সুপ্রিয় সদস্য, আপনাকে স্বাগতম। গত লেসনে আমরা সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেশন নিয়ে আলোচনা শুরু করেছি। এটি একটি ব্যাপক বিষয়। অত্যন্ত ধৈর্য্যের সহিত এই বিষয়টি শিখতে হবে। এই বিষয়ে জ্ঞান যত গভীর হবে, স্বচ্ছ হবে, আপনি ততটা দক্ষতার সাথে অপ্টিমাইজেশন করতে পারবেন। আমাদের দেশের প্রেক্ষাপটে আউটসোর্সিং একটি অত্যন্ত উপযুক্ত উপার্জনের মাধ্যম, এবং SEO তার মধ্যে অন্যতম জনপ্রিয়। কারণ, কম্পিউটার বিষয়ে বেসিক ধারণা থাকলেই এই কাজে সফল হওয়া সম্ভব, অতিরিক্ত কোনো টেকনিক্যাল জ্ঞানের প্রয়োজন পড়ে না। এবং আউটসোর্সিং এর বাজারে এই কাজের অত্যন্ত চাহিদা রয়েছে।  তবে একটি কথা আমি বারবারই বলে আসছি, তাড়াহুড়ো করে, কোনো বিষয় সঠিকভাবে না জেনেই উপার্জনের দিকে হুমড়ি খেয়ে পড়া উচিত নয়। মনে রাখবেন, শর্ট কাট পদ্ধতিতে উপার্জন করার পন্থা কখনো দীর্ঘস্থায়ী হয় না। আউটসোর্সিং আমাদের দেশের বেকারত্বের নিরসনে এক অপার সম্ভাবনার দ্বার উন্মোচন করে দিয়েছে, এটা যেমন সত্যি; তেমনি আউটসোর্সিং এর যথাযথ জ্ঞান ও হাতে কলমে অভিজ্ঞদের মাধ্যমে ট্রেনিং না থাকলে আপনার সময় ও শ্রম দুটোই বৃথা যেতে পারে। এই লেসনগুলোর মাধ্যমে আমরা আউটসোর্সিং এর সকল সম্ভাব্য বিষয়গুলো নিয়ে একে একে আলোচনা করবো।

 

আমরা যারা ইন্টারনেট ব্যবহার করি তারা সবাই প্রায় সার্চ ইঞ্জিন এর সাথে পরিচিত। google, yahoo,ask ইত্যাদি।তার মধ্যে গুগল খুবই জনপ্রিয় সার্চ ইঞ্জিন।আমরা যখন কোন কিছুএ সম্পর্কে জানতে চাই তখন আমরা সার্চ ইন্জিনে তা সার্চ করে থাকি।যেমন আপনি যদি বাংলাদেশের সকল খবরের কাগজের ওয়েব সাইটের লিংক চান তাহলে হয়তো গুগলে গিয়ে সার্চ বক্সে লিখবেন “Bangladeshi newspaper links”।এর পর সার্চ দিলে দেখবেন কিছুক্ষণ পর অনেক গুলো ওয়েব সাইটের লিংক আপনার সামনে এসে হাজির।

সার্চ ইন্জিনে সাবমিট করা সকল সাইটকে গুগল একটা লিস্ট বা ফলাফল প্রকাশ করে।সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এর প্রধান কাজ থাকে এই তালিকায় প্রথম পেজে থাকা।আর গুগল এই তালিকা প্রকাশ করে একটি সাইটের জনপ্রিয়তা, প্রয়োজনীয়তা,গুরুত্বপূর্ণতা সহ সকল কোয়ালিটি বিবেচনা করে।আর এসইও এর কাজ হল একটি সাইটের সার্চ ইন্জিনের জন্য কোয়ালিটি সম্পন্ন করে তোলা।

কি কারণে এই সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন করা !

আপনাদর অনেকের মনে প্রশ্ন জাগতে পারে কেন আমরা এসইও করবো। এর সহজ উত্তর হয় ওয়েব সাইটের ভিজিটর বা ট্রাফিক বাড়ানো।একটি ভিজিটর ছাড়া ওয়েব সাইট এর কোন মূল্য নেই।আর ভিজিটর বাড়ানোর মূল্য রয়েছে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনের এর গুরুত্ব। সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনের প্রধান প্রধান উদ্দেশ্য গুলোর মধ্যে রয়েছে

১। এর মাধ্যমে আপনার সাইটকে সকলের কাছে সহজে পৌছে দেওয়া
২। আপনার ওয়েব সাইটের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি করা
৩। সাইটের ভিজিটর বৃদ্ধি করা।
৪। বিভিন্ন ধরনের অনলাইন আয় করার প্লাটফর্ম হিসাবে কাজ করে।
৫। তথ্য বিনিময় ও প্রতিযোগিতায় টিকে থাকার শক্ত ভিত হিসাবে কাজ করে।

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনের উপকারীতা:

এসইও এর প্রয়োজনীয়তা বা উপকারীতা কথা বলে শেষ করা যাবে না।আপনার ওয়েব সাইটের ট্রাফিক বাড়াতে এর মত পদ্ধতির জুড়ি মেলা ভার।আজকের যুগ প্রতিযোগীতায় টিকে থাকার যুগ।কেউ আপনার সাইটকে মনে রাখার মত সময় নেই।তারা সহজে তাদের প্রয়োজনমাফিক তথ্য অতি দ্রুত পেতে চায়।যার জন্য তারা সার্চ ইঞ্জিন ব্যবহার করে।আর সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাজেশন করা হলে আপনি আপনার সাইটকে সকলের সামনে তুলে ধরতে পারবেন।

আপনার সাইটের ব্যবসায়িক ভাবে প্রচার প্রচারণা করার জন্য সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন তো মাস্ট।অলাইন মার্কেটিং করা,নতুন পণ্য সকলের সামনে তুলে ধরা,নতুন নতুন সফটওয়্যার এর প্রচার প্রচারণা সহ সকল কাজ সহজ করে দিয়েছে এসইও।

তাই অনলাইনে আ্যড এর আয় বা অলাইন মার্কেটিং যাই বলুন না কেন অপটিমাইজেশন ছাড়া কোন গতি নেই। যেমন গুগল এ্যাডসেন্স এর কথাই বলি।গুগল এ্যাডসেন্স এ সফলতা পাওয়ার জন্য এসইও অনেক অনেক বড় ভূমিকা পালন করে।অধিক ভিজিটর পাওয়া,ক্লিক পাওয়া,আয় করা সবই সম্ভব হবে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনের মাধ্যমে।তো এবার আপনিই বলুন অনলাইন আয় কিংবা ভিজিটে বাড়ানোর জন্য সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন ছাড়া কোন উপায় আছে?

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন শিখতে কি কি লাগবে:

আপনি যদি এসইও করা শিখতে চান তা হলে প্রথমে আপনাকে বেশ কিছু মৌলিক বিষয় সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা থাকতে হবে।নিচে এসকল মৌলিক বিষয় গুলো দেওয়া হল:

১। ওয়েব সাইট সম্পর্কে ধারণা
২। কী-ওয়ার্ড বাছাই করণ
৩। ব্যাক লিংক সম্পর্কে ধারণা
৪। পেজ রেংক সম্পর্কে ধারণা
৫। ওয়েব সাইট সাবমিট করা
৬। সার্চ ইঞ্জিন সম্পর্কে ভালো মানের ধারণা
৭। মেটা ট্যাগ এর ব্যবহার জানা।
৮। অন পেজ আপটিমাইজেশন ও অফপেজ অপটিমাইজেশন সম্পর্কে জানা ইত্যাদি।

উপরের এসকল বিষয় গুলো সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনের জন্য খুবই প্রয়োজনীয়। তাই এসইও করার জন্য এ সম্পর্কে ধারণা থাকা জরুরী। এই সব বিষয়ে আমরা পরবর্তীতে বিস্তারিত আলোচনা করবো ।

সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেশন এর উপাদানঃ

  1. ডোমেইন এর নাম
  2. হোস্টিং সার্ভার
  3. ওয়েব সাইট

ওয়েব সাইটের বিষয়বস্তু

  • কি-ওয়ার্ড
  •  ট্যাগ
  • অন্যান্য  (এই গুলো অন-পেজ অপ্টিমাইজেশন এর জন্য)
  • লিংক …ইত্যাদি।(এই গুলো অফ-পেজ অপ্টিমাইজেশন এর জন্য)
মন্তব্য
  1. rakib বলেছেন:

    ভালো লাগল।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s