Archive for the ‘ইতিহাস’ Category


baby-chick-hello.thumbnailশিগগিরই বাজারে আসছে কৃত্রিম পাউডার ডিম। স্বাদে অবিকল হাঁস-মুরগির ডিমের মতো হলেও এটা আসলে সাদা রঙের গুঁড়ো পাউডার। কৃত্রিম এই পাউডার ডিম তৈরি হয়েছে মটরশুঁটি, শিম প্রভৃতি থেকে।১০ সেপ্টেম্বর যুক্তরাষ্ট্রে ‘বিয়ন্ড এগস’ নামে এ পাউডার ডিম বিক্রি শুরু হয়েছে। শিগগিরই এ ডিম বিশ্বের অন্য দেশগুলোতে রপ্তানির পরিকল্পনা করেছেন ‘বিয়ন্ড এগস’-এর উদ্যোক্তা জস ট্রেটরিক। উদ্ভিদ থেকে ডিম তৈরির এই উদ্যোগে জস ট্রেটরিককে সাহায্য করেছেন পেপলের প্রতিষ্ঠাতা পিটার থায়েল, মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস, সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ার প্রমুখ।

জস ট্রেটরিক কৃত্রিম ডিম সম্পর্কে জানান, বিল গেটস ও পিটার থায়েলসহ অনেকেই কৃত্রিম ডিমের তৈরি বিস্কুট খেয়ে দেখেছেন। আসল ডিমের সঙ্গে এর কোনো পার্থক্য ধরতে পারেননি তাঁরা। এতে কোনো কোলস্টেরল নেই। এ পাউডার ডিম তুলনামূলকভাবে সাশ্রয়ী হবে।

ট্রেটরিকস জানিয়েছেন, ‘খাদ্য-শিল্পে নতুন উদ্ভাবন শুরু হয়ে গেছে। প্রাণীর ওপর থেকে নির্ভরতা কমাতে এই উদ্ভাবনের বিকল্প নেই। তবে, এক্ষেত্রে আরও গবেষণা ও কাজ বাকি বলে মনে করছেন তিনি। উন্নয়নশীল দেশগুলোতে পুষ্টিকর খাবারের তালিকায় এ ধরনের কৃত্রিম ডিম যুক্ত করা যায় কিনা তা নিয়ে ভাবতে শুরু করেছেন তিনি।

Advertisements

it1.thumbnailপাসওয়ার্ডগুগলের তথ্য নিরাপত্তা ব্যবস্থাপক হিদার অ্যাডকিনসের মতে, পাসওয়ার্ডের যুগ শেষ হয়ে গেছে।

অকেজো হয়ে যাচ্ছে পাসওয়ার্ড ব্যবস্থা।

ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর তথ্য নিরাপত্তায় এখন পাসওয়ার্ডের বিকল্প ভাবার আর কোনো বিকল্প নেই।

প্রযুক্তি বিষয়ক ওয়েবসাইট টেকক্রাঞ্চ আয়োজিত এক সম্মেলনে পাসওয়ার্ডের নিয়ে এমনই ভবিষ্যদ্বাণী করেন হিদার।

হিদার জানিয়েছেন, এখন নতুন উদ্যোক্তাদের পাসওয়ার্ডের বাইরে ভাবার সময় এসেছে। কারণ, ‘পাসওয়ার্ড এখন মৃত’।

তথ্যের নিরাপত্তায় এমন নিরাপত্তা ব্যবস্থা উদ্ভাবন করতে হবে যা দুর্বৃত্তরা কখনও হাতিয়ে নিতে না পারে।

হিদার আরও জানান, সার্চ জায়ান্ট গুগল পাসওয়ার্ডের বিকল্প ব্যবস্থা উদ্ভাবনে কাজ করছে। এরমধ্যে রয়েছে হার্ডওয়্যার টোকেন, উলকি ও পিল জাতীয় বিকল্প ব্যবস্থা।

হিদারের মতে, নতুন কোনো প্রযুক্তি-প্রতিষ্ঠান শুরুর আগে অবশ্যই তথ্যের নিরাপত্তা নিয়ে ভাবা উচিত। প্রতিষ্ঠানের তথ্য নিরাপত্তার সার্বক্ষণিক দায়িত্ব কমপক্ষে ২৫ ব্যক্তির ওপর থাকা প্রয়োজন।

পাসওয়ার্ডের বিকল্প হবে উলকি, পিল

যাঁদের পক্ষে পাসওয়ার্ড মনে রাখা কষ্টকর, তাঁদের জন্য গুগল তৈরি করছে বিশেষ ধরনের ইলেকট্রনিক উলকি আর পিল। এ উলকি শরীরে লাগিয়ে রাখতে পারবেন বা বিশেষ পিল সেবন করলে এগুলো পাসওয়ার্ড হিসেবেই কাজ করবে।

গুগলের অধীনস্থ মটোরোলা এই ইলেকট্রনিক ট্যাটু বা উলকি আর বিশেষ ধরনের পিল বাজারে আনতে কাজ করছে। বিশেষ এ উলকি ত্বকের ওপর আঁঁকা এক ধরনের সার্কিটের মতো। এতে কোনো ব্যাটারির প্রয়োজন পড়বে না।

ইলেকট্রনিক উলকির পাশাপাশি বিশেষ ধরনের ইলেকট্রনিক পিল বা বড়ি তৈরিতেও কাজ করছে গুগল। এ পিলটি খেলে মানুষের শরীর থেকে বিশেষ তরঙ্গ নির্গত হবে যা শনাক্ত করতে পারবে স্মার্টফোন। এ পিল শরীরের জন্য ক্ষতিকারক হবে না।

আইফোনে এল ফিঙ্গারপ্রিন্ট প্রযুক্তি

প্রযুক্তিপণ্য নির্মাতাপ্রতিষ্ঠানগুলো পাসওয়ার্ড ব্যবস্থার উন্নয়ন নিয়ে নানা গবেষণা করছে। প্রচলিত সংখ্যা পদ্ধতির পাসওয়ার্ড ব্যবস্থার বিকল্প হিসেবে অ্যাপল কর্তৃপক্ষ আইফোনের নতুন সংস্করণে ফিঙ্গারপ্রিন্ট প্রযুক্তি এনেছে। আইফোনে এ প্রযুক্তি আনতে ২০১২ সালে অথেনটেক নামের একটি প্রতিষ্ঠান কিনেছিল অ্যাপল। ১০ সেপ্টেম্বর ঘোষিত আইফোনের নতুন মডেলের সঙ্গে ফিঙ্গারপ্রিন্ট শনাক্তকারী সেন্সরযুক্ত করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

গবেষকেরা জানিয়েছেন, চোখের আইরিশ স্ক্যান ও কণ্ঠস্বর শনাক্তকরণ প্রযুক্তিকেও পাসওয়ার্ড ব্যবস্থা হিসেবে পরিচিত করার জন্য কাজ করছে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান।


ggh.thumbnail

০১) নাটোর – —- কাঁচাগোল্লা, বনলতা সেন
০২) রাজশাহী – — আম, রাজশাহী সিল্ক শাড়ী
০৩) টাঙ্গাইল – —- চমচম, টাংগাইল শাড়ি
০৪) দিনাজপুর —- লিচু, কাটারিভোগ চাল, চিড়া, পাপড়
০৫) বগুড়া – —- দই
০৬) ঢাকা—— বেনারসী শাড়ি, বাকরখানি
০৭) কুমিল্লা —– রসমালাই, খদ্দর (খাদী)
০৮) চট্রগ্রাম —– মেজবান , শুটকি
০৯) খাগড়াছড়ি—- হলুদ
১০) বরিশাল —– আমড়া
১১) খুলনা —— সুন্দরবন, সন্দেশ, নারিকেল, গলদা চিংড়ি
১২) সিলেট – —- কমলালেবু, চা, সাতকড়ার আচার
১৩) নোয়াখালী—- নারকেল নাড়, ম্যাড়া পিঠা (?)
১৪) রংপুর – —– তামাক, ইক্ষু
১৫) গাইবান্ধা – — রসমঞ্জরী
১৬) চাঁপাইনবাবগঞ্জ — আম, শিবগঞ্জের চমচম, কলাইয়ের রুটি
১৭) পাবনা – —- -ঘি, লুঙ্গি, পাগলাগারদ
১৮) সিরাজগঞ্জ – — পানিতোয়া, ধানসিড়িঁর দই
১৯) গাজীপুর – —- কাঁঠাল, পেয়ারা
২০) ময়মনসিংহ – — মুক্তা-গাছার মন্ডা
২১) কিশোরগঞ্জ – — বালিশ মিষ্টি
২২) জামালপুর – — ছানার পোলাও, ছানার পায়েস
২৩) শেরপুর – —- – ছানার পায়েস, ছানার চপ
২৪) মুন্সীগঞ্জ—— ভাগ্যকুলের মিষ্টি
২৫) নেত্রকোনা —- – বালিশ মিষ্টি
২৬) ফরিদপুর – — খেজুরের গুড়
২৭) রাজবাড়ী —- – চমচম, খেজুরের গুড়
২৮) মাদারীপুর —- খেজুর গুড়, রসগোল্লা
২৯) সাতক্ষীরা – —- সন্দেশ
৩০) বাগেরহাট —–চিংড়ি, ষাটগম্বুজ মসজিদ, সুপারি
৩১) যশোর – —– খই, খেজুর গুড়, জামতলার মিষ্টি
৩২) মাগুরা – —– রসমালাই
৩৩) নড়াইল —– পেড়ো সন্দেশ, খেজুর গুড়, খেজুর রস
৩৪) কুষ্টিয়া – —- তিলের খাজা, কুলফি আইসক্রিম
৩৫) মেহেরপুর – — মিষ্টি সাবিত্রি, রসকদম্ব
৩৬) চুয়াডাঙ্গা —– পান, তামাক, ভুট্টা
৩৭) ঝালকাঠি —– লবন, আটা
৩৮) ভোলা —— নারিকেল, মহিষের দুধের দই
৩৯) পটুয়াখালী —- কুয়াকাটা
৪০) পিরোজপুর —– পেয়ারা, নারিকেল, সুপারি, আমড়া
৪১) নরসিংদী—— সাগর কলা
৪২) নারায়নগঞ্জ- — আইভি আফা
৪৩) নওগাঁ – —– চাল, সন্দেশ
৪৪) মানিকগঞ্জ—– খেজুর গুড়
৪৫) রাঙ্গামাটি—– আনারস, কাঠাল, কলা
৪৬) কক্সবাজার —- মিষ্টিপান
৪৭) বান্দরবান—– হিল জুস, তামাক
৪৮) ফেনী —— মহিশের দুধের ঘি, সেগুন কাঠ, খন্ডলের
মিষ্টি
৪৯) লক্ষীপুর —— সুপারি
৫০) চাঁদপুর —— ইলিশ
৫১) ব্রাহ্মণবাড়িয়া—- তালের বড়া, ছানামুখী,
রসমালাই
৫২) মৌলভিবাজার — ম্যানেজার স্টোরের রসগোল্লা


7g.thumbnailসম্প্রতি দুই দল গবেষক আলাদা আলাদাভাবে বামন নক্ষত্র KIC 11442793 কে কেন্দ্র করে ঘূর্ণায়মান সপ্তম গ্রহের সন্ধান পেয়েছেন। আর নতুন এই সৌরজগত দেখতে প্রায় আমাদের সৌরজগতের মতোই। তবে নতুন আবিষ্কৃত এই সৌরজগতের গ্রহগুলো তাদের কেন্দ্রে থাকা নক্ষত্রের অনেক কাছ দিয়ে সেটিকে প্রদক্ষিণ করে। আর আমাদের সৌরজগত থেকে এ সৌরজগতের দূরত্ব মাত্র ২৫০০ আলোকবর্ষ। আর নতুন এই সৌরজগত নিয়ে দুটি গবেষণাপত্র প্রকাশিত হয়েছে Arxiv.org ওয়েবসাইটে।অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রিস লিনটট এই Planet Hunters paper এর লেখকদের একজন। তিনি ও তার দল নতুন সৌরজগত সংক্রান্ত গবেষণা প্রবন্ধ এস্ট্রোনমিক্যাল জার্নালে প্রদান করেন। আবার ইউরোপের কয়েকটি দেশের বিজ্ঞানীদের একটি দল স্বতন্ত্রভাবে নতুন এই সৌরজগতের সপ্তম গ্রহ সংক্রান্ত আবিষ্কার সংক্রান্ত বিষয় আলাদা গবেষণাপত্র প্রকাশ করেন। নতুন এই গ্রহটি তার নক্ষত্র থেকে দূরত্বের দিক থেকে ঐ সৌরজগতে সপ্তম অবস্থানে রয়েছে। আর প্রতি ১২৫ দিনে একবার সেটি এর নক্ষত্রকে প্রদক্ষিণ করে।
ক্রিসের আরেক সহকর্মী রবার্ট সিম্পসন বলেন, “নতুন এই সৌরজগত দেখতে আমাদের সৌরজগতের মতোই। এই সৌরজগতের বাইরের দিকে আছে বড় গ্রহগুলো আর কেন্দ্রে থাকা নক্ষত্রের কাছাকাছি রয়েছে ছোট গ্রহগুলো। সবচেয়ে মজার বিষয় হচ্ছে, আমাদের সৌরজগতের গ্রহগুলো সূর্য থেকে বিভিন্ন দূরত্ব অবস্থিত। কিন্তু নতুন এই সৌরজগতের গ্রহগুলো সবগুলো প্রায় একই দূরত্ব থেকে এদের নক্ষত্রকে প্রদক্ষিণ করছে। যেকারণে এটি খুব ঘনসন্নিবেশিত একটি সৌরজগত।

সেন্ট এন্ড্রুজ বিশ্ববিদ্যালয়ের জ্যোতির্বিদ্যার অধ্যাপক এন্ড্রু কলিয়ার ক্যামেরন বলেন, কিছুদিন আগেই আবিষ্কার হওয়া এই নতুন সৌরজগত আর একের পর এক এর সাতটি গ্রহ আবিষ্কার হওয়ার ঘটনা এটিই প্রমাণ করে, এই সৌরজগত আমাদের জন্য অনেক অনেক নতুন তথ্য জমা করে রেখেছে, যেগুলো হয়তো এখনো আমাদের চোখের আড়ালেই রয়ে গিয়েছে।

ডক্টর ক্রিস লিনটট বিবিস’র ‘স্কাই এট নাইট’ অনুষ্ঠানটিও উপস্থাপন করেন।

সূত্রঃ বিবিসি


image_6048.thumbnailছেলেদের বুকের পশম দিয়ে তৈরী করা হয়েছে জ্যাকেট; এবং তা এখন বিক্রির জন্য বাজারে। নাহ, গল্প নয়, সত্যিই এমনটি হয়েছে ইংল্যান্ডে।

এর মূল্য ২৫০০ বৃটিশ পাউন্ড। নাম দেওয়া হয়েছে “চেস্ট কোট”।

মেয়েরা এই জ্যাকেটটি উপভোগ করবে বলে আশা করছে ডিজাইন হাউজ। তবে কত পূরুষের কত লক্ষ বুকের পশম দিয়ে তৈরী এই বিশেষ জ্যাকেট তা জানায়নি প্রতিষ্ঠানটি।


dna0212b.thumbnailজেমস ওয়াটসন ও ফ্রান্সিস ক্রিক ৫৯ বছর আগে ডিঅক্সিরাইবোনিউক্লিয়িক অ্যাসিড (ডিএনএ) বিষয়ে ধারণা দেয়ার পর একজন ইটালিয়ান বিজ্ঞানী প্রথমবারের মতো ছবি তুলতে সমর্থ হলেন ডিএনএর। খবর লাইভসায়েন্স-এর।ইটালির ম্যাগনা গ্রাইসিয়া ইউনিভার্সিটি ইন ক্যাটানজারো ইউনিভার্সিটির ফিজিক্স প্রফেসর এনজো ডি ফ্যাব্রিজিও সম্প্রতি ইলেক্ট্রন মাইক্রোস্কোপ ব্যবহার করে ডিএনএর ছবি তুললেন। এর আগ পর্যন্ত বিজ্ঞানীরা ডিএনএ স্ট্রাকচারের ধারণা পেলেও ছবি তোলা সম্ভব হয়নি। এর আগে ডাবল-কর্কস্ক্রু আকৃতির ডিএনএর ধারণা পাওয়া যায় এক্স-রে ক্রিস্টালোগ্রাফি পদ্ধতি ব্যবহার করে। ডি ফ্যাব্রিজিও ও তার সহকর্মীরা সম্পূর্ণ পানিরোধী সিলিকন পিলারের তৈরি ন্যানোস্কোপিক ল্যান্ডস্কেপ তৈরি করেন। তারা সেখানে ডিএনএযুক্ত সলিউশন যোগ করলে পানি দ্রুত বাষ্প হয়ে যায় এবং সেখানে দড়ির মতো আকৃতির ডিএনএ পাওয়া যায়। আরো সূক্ষ্মযন্ত্রপাতি ও কম এনার্জিযুক্ত ইলেক্ট্রন ব্যবহার করে স্বাধীন ডাবল হেলিক্স-এর ছবি তোলাও সম্ভব হবে বলে আশা করছেন ফ্যাব্রিজিও। ডিএনএর ভেতরে প্রাণীদেহের বৃদ্ধি ও কার্যকলাপের যাবতীয় বংশগত বৈশিষ্ট্য সংরক্ষিত থাকে।


ae2ff73e75777a2ff9d0569f3fc05715_xlভারতের পাঞ্জাব প্রদেশে মাত্র ৪৮ ঘণ্টায় একটি দশ তলা ভবন নির্মাণ করা হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে কাজ শুরু করে শনিবার বিকেল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত ভবনটির নির্মাণকাজ চলে। চণ্ডিগড় থেকে ১০ কিলোমিটার দূরে মোহালি শহরে এ ভবনটি নির্মাণ করা হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার স্থানীয় সময় বিকেল সাড়ে চারটায় ভবনটির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন পাঞ্জাবের উপ-মুখ্যমন্ত্রী সুখবির সিং বাদল। ওই দিনই ছয় ঘণ্টার মধ্যে ভবনটির প্রথম তিন তলা নির্মাণ করা হয়। পরদিন সন্ধ্যার মধ্যেই সাত তলা পর্যন্ত নির্মাণ হয়ে যায়। বাকি তিন তলা নির্মাণ শেষ করা হয় শনিবার বিকেল সাড়ে চারটার মধ্যে।

দুইশ’ টন ইস্পাতসহ প্রি-ফেব্রিকেটেড উপাদানে তৈরি এ ভবন নির্মাণে কোনো ইট-সিমেন্ট ব্যবহার করা হয়নি। ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে লাল এবং ধূসর রঙের ভবনটি নির্মাণের কাজ শেষ হলেও জানালায় কাঁচ লাগানোসহ ছোটখাটো কিছু কাজ এখনো বাকি রয়েছে।

ভারতে ‌এই প্রথম এ ধরনের ভবন নির্মাণ করা হলো। ভবনটি নির্মাণে দুইশ’র ওপর দক্ষ কারিগর, টেকনিশিয়ান, প্রকৌশলী ও শ্রমিক কাজ করেছেন। এ ছাড়া, দুইশ’র ওপর যন্ত্রপাতি ব্যবহার করা হয়েছে। এ ভবন নির্মাণে যে সব উপাদান ব্যবহার করা হয়েছে তা গত দু’মাসে নিকটস্থ একটি কারখানায় নির্মাণ করা হয়।

ভবনটি নির্মাণ করেছে সিনার্জি নামের একটি ভারতীয় কোম্পানি। এটি ভূমিকম্প প্রতিরোধী বলে স্বীকৃতি দিয়েছে ভারতের শিল্প ও বিজ্ঞান গবেষণা কেন্দ্র।


ব্রাউসার যুদ্ধ:

প্রতিদিন, প্রতিক্ষণে আমরা ইন্টারনেট ব্যবহার করছি। ভিডিও বা ছবি দেখছি, গান ডাউনলোড করছি। ইন্টারনেট এখন আমাদের প্রাত্যহিক জীবনের এক অবিচ্ছেদ্য অংশ। কিন্তু কতজন ভেবে দেখেছি বা অন্ততঃ জানার চেষ্টা করেছি এই ইন্টারনেটের আদি অবস্থা সম্পর্কে? কতজনই বা জানি ইন্টারনেটের ইতিহাস সম্পর্কে?

৯০’ এর দশকের গোড়ার দিকে কথা। তখনকার ইন্টারনেট আজকের ইন্টারনেটের থেকে ছিলো পুরোপুরি ভিন্ন। তখনকার ইন্টারনেট ছিলো মূলতঃ একটি গবেষণাধর্মী নেটওয়ার্ক যা বছর কয়েক আগে ব্রিটিশ বিজ্ঞানী টিম বার্নার্স লি উদ্ভাবন করেছিলেন। ওই সময় ওয়েবসাইটের সংখ্যা ছিলো হাতে গোণা। আর যাও বা ছিলো তাতে ছিলো শুধু লাইনের পর লাইন বিরক্তিকর গবেষণাধর্মী লেখা। একান্তই “গিক” (Geek-টেকনোলজি বিষয়ক আঁতেল) না হলে কেউ সেই সময়কার ইন্টারনেট নিয়ে মাথা ঘামাতো না। সৌভাগ্যবশত সেরকমই কিছু গিকদের মধ্যে দু’জন ছিলেন ইলিনয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্সের ছাত্র মার্ক এন্ড্রিসেনএরিক বিনা
Nafis Iftekhar 1226144738 1 vlcsnap 90957 ইন্টারনেটের ইতিহাস না জানলে দেখতে পারেন
মার্ক এন্ড্রিসেন

এন্ড্রিসেন ও এরিক বিনা সেই সময়ই কল্পনা করেছিলেন এমন একদিন আসবে যেদিন (বিস্তারিত…)


বেশ কিছুদিন পূর্বে মহানবী (সঃ)-কে কটাক্ষ করে নির্মিত একটি ভিডিও আপলোড করার পরবর্তীতে পৃথিবীর সর্ববৃহৎ ভিডিও শেয়ারিং ওয়েবসাইট, ইউটিউব বাংলাদেশে ব্লক করে দেয়া হয়েছে। যদিও ভিডিওটির বিষয় অত্যন্ত স্পর্শকাতর এবং স্বাভাবিকভাবেই মানুষের মনে ও ধর্মানুভুতিতে আঘাত হানতে বাধ্য, কেউ কি ভেবে দেখেছি বিষয়টির ফলাফল কি হতে পারে? ইউটিউবই কি একমাত্র ওয়েবসাইট যেখানে ইসলাম ও অন্যান্য ধর্মমতের অবমাননা করা হয়? বাংলাদেশে কেন ইউটিউবের পক্ষ থেকে ভিডিওটিকে ব্লক করে দেয়া হয়নি? অন্য কোথাও কি এই ভিডিওটি পাওয়া যাবে না, ইউটিউব ছাড়া? এই প্রশ্নগুলো উত্তর দিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে ভ্রান্ত ধারণাকে দূরীকরণের উদ্দেশ্যেই আমার এই লেখাটি।

ইউটিউব আসলে কি?

আমার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা থেকে বলি, আমার এলাকার কয়েকজন মুরুব্বি নামাজের পর চায়ের দোকানে বসে ইউটিউবের সমালোচনা করছিলেন, বেশ ভালোভাবেই! আমি তাদেরকে গিয়ে জিজ্ঞেস করলাম, “আঙ্কেল, ইউটিউবে কি হয়েছে?” তাঁদের মতে ইউটিউব এমন একটি ওয়েবসাইট যেখানে শুধুই ইসলামকে অবমাননা করে ভিডিও আপলোড করা হয়! প্রযুক্তিবিষয়ক জ্ঞানের অভাবে এইসকল মানুষের মধ্যে এত বড় ভুল ধারণা কারা সৃষ্টি করেছে? আমরাই, যারা নিয়মিত প্রযুক্তি ব্যবহার করি।

ইউটিউবে কি আছে?

ইউটিউবে যে কেউ, যেকোন ভিডিও (গাইডলাইনের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে) আপলোড করে সমগ্র বিশ্বের সঙ্গে শেয়ার করতে পারে। সেটি হতে পারে আপনার জন্মদিনের, বিয়ের বা বাচ্চার হাতেখড়ির অনুষ্ঠানের ভিডিও। ইউটিউব বর্তমানে শিক্ষার একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম।

বাংলাদেশে বংশোদ্ভূত সালমান খানের প্রচেষ্টার ফসল Khan Academy ইউটিউবে তাদের পদার্থবিজ্ঞান, রসায়ন, গণিত, জীববিজ্ঞান, ক্যালকুলাস, পরিসংখ্যান, অর্থনীতি প্রভৃতি বিষয়ক অত্যন্ত আকর্ষণীয় ভিডিও লেকচার সংরক্ষণ করেন। বিশ্বের মিলিয়ন-মিলিয়ন শিক্ষার্থী এসকল ভিডিও দেখে কঠিন পাঠগুলো সহজেই আয়ত্ত করতে পারে। উদাহরণ হিসেবে আমার কথা বলতে পারি। নবম শ্রেণিতে ওঠার পর প্রথম সাময়িক পরীক্ষায় রসায়নে খুবই খারাপ ফলাফল করেছিলাম, বইয়ের বিষয়বস্তু না বোঝার দরুন। খান অ্যাকাডেমীর ভিডিও দেখে বিষয়টি আমি পুরপুরি আয়ত্ত করতে পারি এবং পরবর্তীতে ক্রমে ভালো ফলাফলের দিকে অগ্রসর হই।

আপনি সম্ভবত ড. জাকির নায়েকের মত বেশ কয়েকজন ইসলামবিদের নাম শুনেছেন। তাদের লেকচারগুলোর ভিডিও কিন্তু ইউটিউবে দেখা যায়। কুরআনের তিলাওয়াত, ইসলামী জীবনযাপন সংক্রান্ত ভিডিও, সবই পাবেন ইউটিউবে। মজার বিষয়টা খেয়াল করেছেন কি? ছবিতে দেখুন, কেবল জাকির নায়েকের লেকচারের ভিডিওই রয়েছে ৬৩,০০০ এর উপরে! ইউটিউব ইসলামিক কন্টেন্টে কতটা রিচ তা আপনার কল্পনার বাইরে! অবশ্য, এখন আর দেখবেনই বা কি করে, ইউটিউব তো বন্ধই করে দিয়েছে সরকার।

ফ্রীল্যান্সার এবং প্রযুক্তি বিষয়ক ক্যারিয়ার গঠনে আগ্রহীদের তীর্থস্থান হল ইউটিউব। সুন্দর সব ভিডিও টিউটোরিয়ালের মাধ্য দিয়ে প্রযুক্তি জটিল সকল বিষয় সহজেই বুঝিয়ে দেয়া হয় এ সকল ভিডিওতে। ওয়েবসাইট তৈরি, প্রোগ্রামিং করা, গ্রাফিক্স এডিটিং, কম্পিউটার সারাই কি নেই এখানে! কিন্তু, এত জ্ঞানের ভাণ্ডার থেকে আজ আমরা বঞ্চিত। তাছাড়া, ইউটিউবে ভিডিও আপলোড করে যেসকল ফ্রীল্যান্সার আয় করতেন, তাদের আজ কি অবস্থা?

আপনি কোন মুভি, নাটক বা গান চান? সেটিও আছে ইউটিউবে। শরীর ফিট রাখার জন্য ব্যায়াম শিখতে চান? তা শিখানোর জন্যও আছে ভিডিও টিউটোরিয়াল! কি নেই এখানে? বিনোদন, শিক্ষা ও মানুষের উপার্জনের মাধ্যম হয়ে দাঁড়িয়েছে ইউটিউব।

যত দোষ ইউটিউব ঘোষ

যদি আপনি মনে করেন ইন্টারনেটে কেবল ইউটিউবেই ইসলামকে অবমাননা করা হয়, তবে আপনি প্রকৃতপক্ষে অন্ধকার ঘরে বন্দি। কেননা, ইসলামকে অবমাননা করে অধিকাংশ কন্টেন্ট, আমি বলবো প্রায় সকল কন্টেন্টর উৎসই ফেসবুক। গুগল+ নয়, টুইটার নয়, ফেসবুকই। মহানবী, ইসলামকে ব্যাঙ্গ করে নির্মিত পেজের সংখ্যা হয়তো আমার এই আর্টিকেলের বর্ণের সংখ্যার চেয়েও বেশি। কিন্তু, দোষ কেন শুধু ইউটিউবের? ফেসবুকের শত শত পেজগুলোর কি কোন দোষ নেই? তাদের অবমাননা অপরাধ নয়? ইউটিউব সাধারণ মানুষের শিক্ষা, বিনোদন ও উপার্জনের স্থান। এটিই কি ইউটিউবের একমাত্র দোষ? আমি সঙ্গত কারণেই ফেসবুকপেজের লিংকগুলো দিচ্ছি না, সামান্য খোঁজ করলেই আপনারা এগুলো পেয়ে যাবেন। ফেসবুক পেজগুলো পার পেয়ে যাবে আর একটা ভিডিওর জন্য পুরো ইউটিউব বন্ধ হয়ে যাবে?

ভিডিওটি এখন আর কোথাই কি নেই?

আপনার অবগতির জন্য জানাচ্ছি, ভিডিওটি কেবল ইউটিউবেই সীমাবদ্ধ নেই। Blip.TV, Vimeo, Metacafe, Facebook, Dailymotion প্রভৃতি সাইটে এই ভিডিও ভাইরাসের মত ছড়িয়ে পড়েছে। লাভ হল কি ইউটিউব বন্ধ করে? (আবারও সঙ্গত কারণেই লিংক দিচ্ছি না)

সময় স্বল্পতার কারণে আমার লেখা সম্পূর্ণ করতে পারলাম না, আপনারাই ভেবে দেখুন, ইউটিউব ব্লক করা কতটা যুক্তিযুক্ত? ইউটিউব যে বন্ধ হল, এর জন্য ক্ষতির শিকার হচ্ছি আমরাই। গোটা বিশ্বের তুলনায় আমাদের ছোট্ট দেশটি থেকে পাওয়া ভিজিটর তাদের কাছে খুবই নগণ্য। ইউটিউব দীর্ঘদিন ধরেই বন্ধ হয়ে আছে, এমন অবস্থা চলতে থাকলে ক্ষতির পরিমাণ বাড়বে, কমবে না। কি দোষ করেছিল সে শিক্ষার্থীটি যে খান একাডেমির ভিডিও না দেখতে পেরে গাইড কিনে নিজের মস্তিষ্ক বিক্রি করে দিয়েছে? কিংবা সে ওয়েব ডেভেলপারের, যে জ্যাঙ্গো শিখতে না পেরে একটি প্রজেক্টই বাতিল করে দেয়?

সৃষ্টিকর্তা বৈপরিত্যের মধ্য দিয়েই বিশ্ব সৃষ্টি করেছেন। সবকিছুরই ভালো ও মন্দ দিক উপস্থিত, ইউটিউবও তার ব্যতিক্রম নয়। অতএব, মন্দ দিকটা না ধরে ভালো দিকের প্রতি আকৃষ্ট হবাই বুদ্ধিমানের কাজ! ইউটিউব বন্ধ করা মোটেও সন্তোষজনক পদক্ষেপ নয়। ইউটিউব বন্ধ করার এক অর্থ হল তথ্যের উন্মুক্ত প্রবাহ হতে আমাদের দূরে সরিয়ে রাখার চেষ্টা। আমরা চাই যথাদ্রুত সম্ভব ইউটিউব ও গুগলের অন্যান্য ব্লক হয়ে যাওয়া পরিষেবা আমাদের মাঝে ফিরে আসুক।


লাগোস নাইজেরিয়ায় অনুষ্ঠিত “মেকার ফেয়ার আফ্রিকা” একদল কিশোর বয়সী মেয়েরা একটি জেনারেটর তৈরি করেছে যা মানব বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ তৈরি করতে পারে।

১৪ থেকে ১৫ বছর বয়সী দুরো-আইনা আদেবোলা, আকিন্দেলে আবিওলা, ফালেক ওলুওয়াটোয়িন এবং বেলো এনিওলা একত্রে প্রসাব থেকে বিদ্যুৎ তৈরি করতে পারে এমন জেনারেটর তৈরি করেছে। এই জেনারেটর এক লিটার ইউরিন ব্যবহার করে ছয় ঘণ্টা বিদ্যুৎ সরবরাহ করতে পারে।

প্রসাব থেকে হাইড্রোজেন আলাদা করার জন্য ইলেক্ট্রোলাইট সেল এবং পরিশোধনের জন্য পানির ফিল্টার ব্যবহার করা হয়। এরপর তরল বোরাক্সের মাধ্যমে হাইড্রোজেনকে শুদ্ধ করা হয়।

সবশেষে গ্যাসকে জেনারেটরে পাঠানো হয় বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য।

প্রক্রিয়াটি সহজ হলেও প্রসাব শক্তি চালিত জেনারেটরটি সতর্ক না থাকলে যে কোন মুহূর্তে বিস্ফোরিত হতে পারে। আর তাই ব্যবহার করার আগে নিরাপত্তা মূলক ব্যবস্থা রাখার অনুরোধ জানিয়েছে এই তরুণ উদ্ভাবকেরা।


জনপ্রিয় ক্রেডিট কার্ড কোম্পানি মাস্টারকার্ড সম্প্রতি এলসিডি ডিসপ্লে এবং বিল্ট-ইন কি-বোর্ড সহ অভিনব একটি ক্রেডিট কার্ড বের করেছে। প্রাথমিকভাবে কার্ডটি সিংগাপুরের গ্রাহকদের জন্য বের করা হয়েছে বলে জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

কার্ডটিতে স্পর্শ-সংবেদনশীল বাটন এবং “এক-বার ব্যবহারযোগ্য পাসওয়ার্ড” তৈরি করা যাবে।

উন্নত বিশ্বের ব্যাংকগুলো তাদের অনলাইন ব্যাংকিং গ্রাহকদের নিরাপত্তা প্রদানের জন্য একটি ডিভাইস প্রদান করে থাকে যা একবার ব্যবহারযোগ্য পাসওয়ার্ড তৈরি করে থাকে। মাস্টারকার্ড এই প্রক্রিয়াটিকে আরো সহজ এবং আলাদা ডিভাইসের পরিবর্তে কার্ড এর সাথেই এই সুবিধা যুক্ত করেছে।

প্রতিষ্ঠানটি জানিয়েছে ভবিষ্যতে নতুন এই কার্ডগুলো ব্যাল্যান্স দেখানো সহ অন্যান্য জরুরি তথ্য প্রদর্শন করবে।

প্রাথমিক অবস্থায় সিংগাপুরে এই কার্ড দেয়া হলেও জানুয়ারি মাস থেকে বিশ্বের অন্যান্য দেশে মাস্টারকার্ড তার ব্যবহারকারীদের কাছে এই কার্ডগুলো পৌঁছে দিবে বলে জানিয়েছে।


আপনি কি অবিবাহিত? শ্বশুড়ের টাকায় কোটিপতি হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন? আপনার উত্তর যদি হ্যাঁ সূচক, তাহলে দ্রুত আপনি বিয়ের প্রস্তুতি নিয়ে ফেলুন। হংকংয়ের এক ব্যক্তি ঘোষণা করেছেন, তার মেয়েকে যে বিয়ে করবে তাকে তিনি ৬ কোটি ৪০ লাখ মার্কিন ডলার (প্রায় ৫২২ কোটি টাকা) যৌতুক দেবেন। আরও সুখবর হল, পাত্র যদি গরিব হয় কিংবা হয় বাংলাদেশি অথবা অন্য কোন দেশের নাগরিক, তাহলেও কোন আপত্তি নেই সেই মহানুভব ব্যক্তির।মজার ব্যাপার হল, সিসিল চাও সে সুং নামের ব্যক্তির প্রস্তাব শুনে পুলকিত হয়েছেন তার মেয়ে গিগি চাও নিজেই। তিনি তার বাবার প্রস্তাবকে ‘খুবই মজাদার’ বলে মন্তব্য করেছেন। সিএনএন জানায়, গত সপ্তাহে সিসিলের মেয়ে গিগি প্যারিসে উৎসব করে একজনকে বিয়ে করেছেন। কিন্তু ওই বিয়েটা মেনে নিতে পারেননি সিসিল। তবে বাবার অভিনব প্রস্তাবে পুলকিত গিগি বলেছেন, তার বাবা তাকে খুবই ভালবাসেন বলে এমন প্রস্তাব দিয়েছেন। গিগি বিয়ের কথাও অস্বীকার করেছেন। তবে শুধু বিয়ে করতে রাজি হলেই যে এতগুলো টাকা পাবেন সেটাই বা হয় কী করে! সিসিল বলেছেন, এই লোভনীয় প্রস্তাব গ্রহণ করে যে তার মেয়েকে বিয়ে করতে রাজি হবে তাকে ওয়াদা দিতে হবে, তিনি তার মেয়েকে গভীরভাবে ভালবাসবেন। তার মেয়ের প্রথম বিয়ের কথাটিও তাকে ভূলে যেতে হবে।

এতোটুকু হলে সব ঠিক ছিল কিন্তু যতই লোভ থাকুক আপনি যখন জানবেন তখন একটু হলেও নাক সিটকাবেন, কারণ  প্রথমবার গিগি যাকে ঘটা করে বিয়ে করেছেন তিনিও একজন মহিলা। তার নাম শঁএভ। এর মানে হচ্ছে টাকার লোভে আপনি যাকে বিয়ে করতে চান তিনি একজন লেসবিয়ান !

সূত্র – ওয়েবসাইট।


আমরা অনেকেই জানি টিয়া পাখি, ময়না পাখি, তোতা পাখি মানুষের কণ্ঠে কথা বলতে পারে। মানুষের নাম ধরে ডাকে কিন্তু কখনো কি শুনেছি মেরগের কণ্ঠের ডাক?

এমন ঘটনা অবিশ্বাস্য মনে হলেও সত্যি। তবে মানুষের নাম ধরে না ডেকে মোরগটি ডাকছে আমাদের মহান সৃষ্টিকর্তা আল্লাহর নাম ধরে।

ঘটনাটি ঘটেছে রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার পানিহার গ্রামের মো. মোর্ত্তজার বাড়িতে। আর এ ঘটনায় সকল শ্রেণীর মানুষের মধ্যে ব্যাপক কৌতুহল ও সাড়া জাগিয়েছে।

এমন ঘটনায় মঙ্গলবার সরে জমিনে গিয়ে দেখা যায়, পানিহার গ্রামে মো. মোর্ত্তজার উঠানে দূর-দূরান্ত হতে ছুটে আসা অনেক লোক ভিড় জমিয়েছে।

এরই ফাঁকে কথা হয় মো. মোর্ত্তজার সঙ্গে তিনি জানান, আমার ২০টি মুরগি আছে কিন্তু সব মুরগী খাঁচায় রাতের বেলা থাকে না ।

১০-১২টি মুরগী বাড়ীর আঙ্গিনার ডালিম গাছে থাকে আগামি কাল ঈদ তাই মাংশ খাবার জন্য জবাই করার উদ্দেশে রোববার সন্ধার পর মোরগটিকে গাছ থেকে ধরি। ধরার পর মোরগটি ডাকতে থাকে।

প্রথমে আল্লাহ আল্লাহ ডাকছে মনে হলেও তেমন গুরুত্ব দেয়নি, কিন্তু অনবরত ডাকতে থাকায় মোর্ত্তজা ডাকটি শোনার জন্য তার স্ত্রী শিউলি বেগমকে ডাক দেয় এবং ডাকটি ভালোভাবে শোনার পর বিষয়টি আরও স্পষ্ট হয়ে যায়।

মোরগটি একটানা প্রায় ২ ঘন্ট‍া ডেকেছে এবং এ পবিত্র আল্লাহ ডাকটি মোবাইল ফোনে রেকডিং করেছে তার ছেলে রুবেল।

মোরগটির বয়স ৮ মাস হবে বলে মোর্ত্তজার স্ত্রী শিউলি জানান।

শিউলি বেগম আরও জানান, এমন ঘটনা ব্যাপক জানাজানি হয়ে গেলে অনেকেই মোরগটি কেনার জন্য আসছে।

তিনি জানান নাটোরের এক ব্যাক্তি কেনার জন্য ২০ হাজার টাকা দাম বলেছে কিন্তু শিউলি বেগম মোরগটি আর বিক্রি ও জবাই করতে চায় না। তিনি আর সব অন্য মুরগির সঙ্গে এ মোরগটিকেও পুষতে চান।

এমন অলৈকিক ঘটনায় অনেক মানুষ দূর-দূরান্ত হতে মোরগটিকে এক নজর দেখার জন্য এবং আল্লাহর ডাকটি শোনবার জন্য মো. মোর্ত্তজার বাড়িতে ভিড় জমাচ্ছে । আপনি নিজেও দেখে আসতে পারেন।

downlode এখানে ক্লিক করুন   morog ar konta Allah dak 

ভিডিও LINK http://www.mediafire.com/?qgw2n2vgvn7nl9j

সুবাহান আল্লাহ । অবশ্যই বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন । আল্লাহতাআলা আপনের ভাল করবে ।


undefined

প্রতিবছর খাবারের মোড়কসহ দৈনন্দিন কাজে ব্যবহূত হাজার হাজার টন প্লাস্টিক ব্যাগ নষ্ট হয়। এসব প্লাস্টিক পরিবেশের জন্য ক্ষতিকরও বটে। সম্প্রতি আর্জেন্টিনার একদল গবেষক জানিয়েছেন, খাওয়ার উপযোগী ও সহজেই পচনশীল প্লাস্টিক তৈরির দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে গেছেন তাঁরা। খাদ্যশস্য থেকে তৈরি এ বায়োপ্লাস্টিক খাবারের ওপর জেলির মতো লাগালে তা যেমন খাবারের মোড়ক হিসেবে কাজ করবে, তেমনি ক্রেতা চাইলে এ প্লাস্টিকসহ তাঁর খাবার খেতেও পারবেন। খবর রয়টার্সের।
বুয়েনস এইরেস বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকেরা জানিয়েছেন, উপাদান হিসেবে খাদ্যশস্য ব্যবহার করে তৈরি তাঁদের এ বায়োপ্লাস্টিক সম্পূর্ণ নিরাপদ।
গবেষক সিলভিয়া গোয়ানিজ এ প্রসঙ্গে জানিয়েছেন, বায়োপ্লাস্টিক তৈরির উপাদান হিসেবে শর্করার যে অণু ব্যবহার করা হয়েছে, তা মানুষের চুলের চেয়েও ৫০ হাজার গুণ ক্ষুদ্রাকৃতির। এ প্লাস্টিক অনেক শক্ত ও মজবুতও বটে। খাবারের মোড়ক হিসেবে এটি খাবার সুরক্ষিত রাখে, পাশাপাশি এ প্লাস্টিক পরিবেশবান্ধব। কেননা এ প্লাস্টিক সহজেই মাটিতে মিশে যায়।
এ বায়োপ্লাস্টিক খাবারের ওপর জেল হিসেবে ব্যবহার ও প্লাস্টিক ব্যাগ হিসেবে বাজারে আনার পরিকল্পনা করেছেন গবেষকেরা।


সিন্ডি লি গার্সিয়াসিন্ডি লি গার্সিয়া

মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)-এর অবমাননা করে নির্মিত ‘ইনোসেন্স অব মুসলিমস’ ছবির নির্মাতা ও ইউটিউবের বিরুদ্ধে গতকাল বুধবার যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল কোর্টে মামলা করেছেন ওই ছবির অভিনেত্রী সিন্ডি লি গার্সিয়া।
মামলায় চলচ্চিত্রটির নির্মাতা হিসেবে মিসরীয় বংশোদ্ভূত মার্কিন এক খ্রিষ্টান ব্যক্তির কথা বলেছেন গার্সিয়া। তিনি এ-ও জানিয়েছেন, ক্যালিফোর্নিয়ায় বসবাস করেন ওই ব্যক্তি। সম্প্রতি এক খবরে এমন তথ্য দিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।
ইসলামবিরোধী চলচ্চিত্র ‘ইনোসেন্স অব মুসলিমস’কে কেন্দ্র করে লিবিয়া, ইয়েমেন, মিসরসহ মুসলিম বিশ্বে বিক্ষোভ ও প্রতিবাদের ঝড় ওঠে। এই চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন মার্কিন অভিনেত্রী সিন্ডি লি গার্সিয়া। তাঁর সঙ্গে প্রতারণা করা হয়েছে—এমন অভিযোগে এর আগে ১৯ সেপ্টেম্বর লস অ্যাঞ্জেলেস আদালতে চলচ্চিত্রটির প্রযোজক নাকোলা বাসেলি নাকোলার বিরুদ্ধে মামলা করেন গার্সিয়া। বিতর্কিত ওই চলচ্চিত্রের ভিডিও ফুটেজ পোস্ট করায় ভিডিও-শেয়ারিং ওয়েবসাইট ইউটিউবের বিরুদ্ধেও অভিযোগ দায়ের করেন তিনি।
১৯ সেপ্টেম্বর লস অ্যাঞ্জেলেস আদালতে দাখিল করা ১৭ পৃষ্ঠার অভিযোগপত্রে গার্সিয়া দাবি করেন, মরু অভিযানের বিষয়বস্তু নিয়ে ‘ডেজার্ট ওয়ারিয়র’ চলচ্চিত্রের কথা বলে ইসলামবিরোধী এ চলচ্চিত্র নির্মাণ করা হয়েছে। শুটিংয়ের আগে বা পরে একটিবারের জন্যও বলা হয়নি, এতে মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)কে চিত্রিত করা হবে।
ওই চলচ্চিত্রে ব্যবহূত গার্সিয়ার কয়েকটি সংলাপ সম্পাদনার সময় পরিবর্তন করা হয়েছে বলেও দাবি করেন তিনি। এ ক্ষেত্রে অন্য কাউকে দিয়ে সেই সংলাপগুলো ডাবিং করানো হয়। সম্পাদনার সময় এই পরিবর্তন এত সূক্ষ্মভাবে করা হয়েছে যে চলচ্চিত্রটি দেখার পর মনে হয়েছে, গার্সিয়া স্বপ্রণোদিত হয়েই ইসলামবিদ্বেষী ওই চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন।
এভাবে প্রতারণা করায় প্রযোজক নাকোলা বাসেলি নাকোলার বিরুদ্ধে মামলার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেন গার্সিয়া। এর আগে ব্যাংকে প্রতারণার দায়ে যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় কারাগারে সাজা ভোগ করেছিলেন ৫৫ বছর বয়সী নাকোলা।
গার্সিয়া জানান, মিথ্যা অপবাদে জড়িয়ে তাঁর জীবন হুমকির মুখে। ইউটিউবে ওই চলচ্চিত্রের বিজ্ঞাপনচিত্র তুলে দেওয়ার পর মৃত্যুর হুমকি দেওয়া হয়েছে তাঁকে। মামলার আরজিতে ইউটিউবে চলচ্চিত্রটির প্রদর্শনী বন্ধের অনুরোধ জানিয়েছিলেন গার্সিয়া। কিন্তু আদালত তাঁর পক্ষে রায় দেননি। মূলত, এ কারণেই সম্প্রতি ফেডারেল কোর্টের শরণাপন্ন হয়েছেন গার্সিয়া।
প্রসঙ্গত, ‘ইনোসেন্স অব মুসলিমস’ চলচ্চিত্রের একটি বিজ্ঞাপনচিত্র ইউটিউবে তোলা হয়, যেখানে মুসলমানদের জন্য অবমাননা ও হেয়কর বিষয় চিত্রিত করা হয়েছে। মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)-এর কোনো ধরনের চিত্র অঙ্কন বা তাঁর চেহারার উপস্থাপন মুসলমানদের কাছে নিষিদ্ধ। অথচ মুসলমানদের বিশ্বাসে আঘাত হানতে ওই চলচ্চিত্রে মহানবী (সা.)কে উপস্থাপনের চেষ্টা করা হয়েছে।
‘ইনোসেন্স অব মুসলিমস’ চলচ্চিত্রের খবর ছড়িয়ে পড়লে এশিয়া, ইউরোপ, মধ্যপ্রাচ্যসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে সহিংসতা শুরু হয়। সহিংসতার একপর্যায়ে লিবিয়ায় নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূতসহ চারজন মার্কিন নাগরিক নিহত হন। বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে যুক্তরাষ্ট্রসহ অন্যান্য বিদেশি দূতাবাসেও হামলা চালায় বিক্ষুব্ধ মুসলমানরা।


(দিল্লী, হংকং এবং সিঙ্গাপুর)কে আবারো চিঠি দিয়েছে বাংলাদেশে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা – বিটিআরসি। চিঠিতে বলা হয়েছে, ইউটিউব থেকে ‘ইনসেন্স অব মুসলিমস’ চলচ্চিত্রের ভিডিও ফুটেজ তুলে নেওয়া মাত্র বাংলাদেশে ইউটিউব চালু করা হবে। যতো শিঘ্র সম্ভব এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্যে তাদের প্রতি অনুরোধও জানিয়েছে বিটিআরসি।

নিয়ন্ত্রক সংস্থাটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান গিয়াসউদ্দিন আহমেদ বলেন, ইউটিউবের ওপর সার্বক্ষনিক নজর রাখছেন তারা। যে মুহুর্তে তারা বিতর্কিত ভিডিও ফুটেজ তুলে নেবেন সেই মুহুর্ত থেকেই দেশের ইন্টারনেট ব্যবহারকারিরা ইউটিউব দেখতে পাবেন।

তবে এখনই দেশের বিভিন্ন স্থানে ইউটিউব দেখা যাচ্ছে এমন বক্তব্য উড়িয়ে দেন তিনি। বলেন, তাদের নির্দেশনা কার্যকর হয়েছে। তবে প্রযুক্তিকে সব সময় সব লোকের কাছ থেকে ঠেকিয়ে রাখা যায় না। কিছু দুষ্ট লোক হয়তো বিকল্প কোনো পন্থায় ইউটিউবে ঢুকে থাকতে পারেন। তবে সেটি সার্বিক চিত্র নয়।

গিয়াসউদ্দিন আশা করেন খুব শিঘ্রই দেশের মানুষ আবার ইউটিউব দেখতে পাবেন।

উল্লেখ্য যে, কিছু ব্যতিক্রম ছাড়া বাংলাদেশের বেশিরভাগ ইন্টারনেট ব্যবহারকারীই বর্তমানে ইউটিউব দেখতে পারছেন। বাংলাদেশের আইএসপি-গুলো একাধিক আইআইজি (ইন্টারনেট গেটওয়ে)-এর সাথে যুক্ত। এবং সবগুলো আইআইজি এখনও ইউটিউব বন্ধ করেনি, কিংবা করতে পারেনি। তাই গ্রাহকরা এখনও ইউটিউব


৭১ এর হাতিয়ার গর্জে উঠুক আরেকবার BTRC তুমি এগিয়ে চলো, আমরা সবাই আছি তোমার সাথে”
সাম্প্রতিক সময়ে BTRC এর কিছু বলিষ্ঠ উদ্যোগ,
যা বাংলাদেশের আপামর সকল মোবাইল গ্রাহকদের হৃদয়ে স্বর্নাক্ষরে লেখা থাকবে:
১। সব প্যাকেজে ১০ সেকেন্ড পালস চালু করা।
2। সকল প্রকার কল সেটআপ চার্জ / ১ম মিনিট চার্জ প্রত্যাহার করা।
3। ১GB ইন্টারনেট প্যাক ১০০ টাকা এবং পরবর্তী ইন্টারনেট প্যাক এর সাথে অব্যবহৃত ডাটা ক্যারি ফরওয়ার্ড সুবিধা বাধ্যতামূলক রাখা।সকল প্রকার ইন্টারনেট প্যাক থেকে ফেয়ার ইউসেজ পলিসি বাতিল করতে হবে ।
এছাড়া,

মোবাইল ফোনের সব কলের চার্জ সমান করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। নির্দিষ্ট প্যাকেজের সকল মিনিট বা পালসের কলচার্জও সমহারে কাটতে হবে। এছাড়া, প্যাকেজে প্রতি মিনিট ও পালসের বিল এবং ভ্যাট আদায় বিষয়ক তথ্য সুস্পষ্টভাবে বিজ্ঞাপনে ও ওয়েবসাইটেউল্লেখ করতে হবে। গতকাল এ সংক্রান্ত একটি নির্দেশনা সব মোবাইল ফোন অপারেটরের প্রতি জারি করেছে বিটিআরসি। নির্দেশনায় উল্লেখ করা হয়েছে, প্রতি পালস ও মিনিট প্রতি সর্বোচ্চ বিল আগে থেকেই বিটিআরসি’র কাছ থেকে অনুমোদন করিয়ে নিতে হবে। তাছাড়া, প্রথম পালসে এক রকম আবার শেষের দিকে ভিন্ন হারে টাকা কাটা যাবে না। আগামী ১৫ই সেপ্টেম্বর থেকে এই নির্দেশনা কার্যকর হবে বলে বিটিআরসি’রপক্ষ থেকে বলা হয়েছে।
অন্য চিঠিতে এখনই সব অপারেটরকে তিন দিনের মধ্যে কল সেটআপ চার্জ আদায় বন্ধ করতে বলা হয়েছে।
ওই নির্দেশ অমান্য করলে কমিশন সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলেছে বিটিআরসি। এদিকে আজ বৃহস্পতিবার গ্রামীণফোন, বাংলালিংক, রবি ও সিটিসেল দ্বিতীয় প্রজন্মের (টু-জি) লাইসেন্স নবায়নের দ্বিতীয় কিস্তির টাকা জমা দেবে। টু-জি লাইসেন্স নবায়নে চার অপারেটরেরস্পেকট্রাম ফি’র দ্বিতীয় কিস্তিতে ২৩২৫ কোটি ৪১ লাখ টাকা দেয়ার কথা। এর সঙ্গে ১৫ শতাংশ হারে ভ্যাট যোগ হলে আরও ৩৪৮ কোটি ৮১ লাখ টাকা বাড়বে। মূল টাকায় গ্রামীণফোনের অংশ ১৫০ কোটি ৯৭ লাখ টাকা। বাংলালিংকের ৫৮৫ কোটি ৪৪ লাখ, রবি’র ৫৫৮ কোটি ৫০ লাখ এবং সিটিসেলের আরও ১৩০ কোটি ৫০ লাখ টাকা দেয়ার কথা। এর বাইরে আরও প্রায় ১১০০ কোটি টাকা বকেয়া পাওনা এবং লেট ফি দাবি করেছে বিটিআরসি। আগামী ১৫ই সেপ্টেম্বরের মধ্যে ১০ সেকেন্ড পালস চালু এবং কল সেটআপ চার্জ নেয়া যাবে না ।

-BD All operator’s latest offer

[কেমন লাগলো BTRC এর এই গর্জন তা জানাবেন । আর আপনাদের অনুমতি পেলে এ সংক্রান্ত সকল তথ্য আপনাদের জানাবো । কমেন্ট এ মতামত জানান]


আলহামদুলিল্লাহ্ !শুনে খুশি হবেন যে আজ সকালে আমাদের প্রধানমন্ত্রী আল ক্বুরআনের www.quran.gov.bd ওয়েবসাইটটি উদ্বোধন করেছেন । ভালোই ওয়েবসাইটটা। তাঁর এই সুন্দর ও চমৎকার পদক্ষেপকে স্বাগত জানাই। এটি আমাদের দেশের প্রথম ডিজিটাল কোরআন শরিফ যা রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে আয়োজিত এক বিশাল অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এ ডিজিটাল কোরআন শরীফের ওয়েবসাইটটি উদ্বোধন করেন।

এ সময় তিনি বলেন, “সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে দেশের মানুষের কল্যাণে দেশের মানুষের আহার, বাসস্থান, শিক্ষা, চিকিৎসা এ কাজগুলো যেনো করতে পারি সে দিকে নজর রেখেই অন্তত আন্তরিকতার সঙ্গে মানুষের মৌলিক চাহিদা আমি পূরণ করার চেষ্টা করে যাচ্ছি।”

প্রধানমন্ত্রী এ সময় দেশের উন্নয়ন কর্মসূচিসহ সব ধর্মের মানুষের জন্য সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগ তুলে ধরেন। অসাম্প্রদায়িক হিসেবে জাতির ভাবমূর্তি অক্ষুণ্ন রেখে জাতীয় উন্নয়নে সব ধর্মের মানুষকে ঐক্যবদ্ধ রাখতে ধর্মীয় নেতাদের প্রতি আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

ই-বুক হিসেবে ইন্টারনেটে বা ডাউনলোড করেও এখন যেকোনো স্থান থেকেই পবিত্র কোরআন পড়া যাবে। শোনা যাবে তেলাওয়াত। এতে আরবি তেলাওয়াতের সঙ্গে বাংলায় তরজমাসহ বিভিন্ন ফিচারও রয়েছে।

মাহে রমজান বিষয়ক একটি পেজ । মাহে রমজান সম্পকে আরও জানতে পেজটি থেকে ঘুরে আসুন  দয়া করে
এডিয়ে যাবেননা, পেজটিতে কেউ জয়েন না করে  থাকলে জয়েন করুন  এখুনি । জয়েন করলে ক্ষতি হবে না বরং লাভ হবে । ♥
https://www.facebook.com/m.romjan

সবাই ভালো থাকবেন রমজানে সবার তরে সবাই দো’য়া করবেন যেন সবাই রমজানের সবগুলো রোজা সুস্থ শরীরে রোজার হক্ব আদায় ও তার সাথে  তারাবীর নামাজ পড়ার তৌফিক দান করুন (আমিন)।

আল্লাহ হাফেজ


ওয়েবসাইটে প্রচারিত একটি অনলাইন গেমের কভারে হিন্দুদের দেবী মা-কালির একটি পর্নো ছবি প্রকাশ হওয়া নিয়ে উত্তাল হলো আমেরিকান ইন্ডিয়ান সোসাইটি।মূলত গতকাল থেকে আমেরিকান হিন্দুদের মধ্যেই তোলপাড় হয়েছে বেশি।যার রেশ আছড়ে পড়েছে ভারতেও। সাইটের দৌলতে বহুলপ্রচারিত এই অনলাইন গেমটির বিরুদ্ধে বিশ্বজুড়ে হিন্দুদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভ ও জনমত তৈরি হয়েছে।আমেরিকান অনলাইন গেম কোম্পানি হাইরেজ স্টুডিও “স্মাইট” নামে তাদের ওই অনলাইন গেমটি তৈরি করেছে।

গেমটিতে মা কালিকে একজন যৌন বুভুক্ষু, রক্তপিপাসু, কামুক মহিলা হিসেবে দেখানো হয়েছে।দেখানো হয়েছে মা কালি নামে নীল বর্ণের ও অশ্বেতকায় ওই দেবী একজন অতিসক্রিয় কামার্ত যৌনকর্মী।তবে শুধু মা কালিই নয়, হিন্দু পুরাণের অনেক দেব দেবী যেমন- দ্রোণাচার্য, বিশ্বকর্মা, বামন, অগ্নি, উর্বশী, লক্ষ্মী এদের নিয়েও পর্নো ছবি বানানোর ও সাইটে তা আপলোড করার অভিযোগ উঠেছে হাইরেজ স্টুডিওর বিরুদ্ধে।

সংবাদমাধ্যমে খবর প্রকাশ হতেই লস এঞ্জেলস থেকে নিউ ইয়র্ক সর্বত্রই শুরু হয় প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ।অনাবাসী ভারতীয় ও হিন্দু পুরোহিতরা বিক্ষোভ দেখিয়েছেন নিউ ইয়র্কে, লন্ডনে।

কংগ্রেস ও ভারত সরকার এখনও এ ব্যপারে মুখ না খুললেও বিজেপি, বিশ্ব হিন্দু পরিষদ, সঙ্ঘ পরিবারের পক্ষ থেকে ঘটনাটির তীব্র নিন্দা করা হয়েছে।শনিবার দিল্লির আমেরিকান দূতাবাসে গিয়ে প্রতিবাদপত্র ও স্মারকলিপি জমা দেয়ার কর্মসূচি নিতে পারে হিন্দু সংগঠনগুলি।
অন্যদিকে, হিন্দুদের ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত লাগায় আমেরিকায় আন্তর্জাতিক ইহুদি, বৌদ্ধ ও ক্যাথলিক খ্রিস্টান সম্প্রদায় এই ঘটনার কড়া নিন্দা জানিয়েছে। আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ারও দাবি জানিয়েছে ওই ধর্মীয় সংগঠনগুলি।তারা জানিয়েছে, “ওই গেম মেকাররা ব্যবসার জন্য কত নিচে নামতে পারে তার প্রমাণ এটাই।অবিলম্বে ওদের দৃষ্টান্তমূলক সাজা হওয়া উচিত। এই ঘটনা ভীষণ লজ্জাজনক।”
যদিও হাইরেজ স্টুডিওর সিইও টড হ্যারিস ট্যুইট করেছেন এবং সাফ জানিয়েছেন, “কোনও ধর্মের প্রতি ইচ্ছা বা অনিচ্ছাকৃতভাবে আমরা কোনও আঘাত করতে চাইনি।এক মিনিট মাথা ঠাণ্ডা করে ছবিটা দেখুন, হিন্দু দেবী মা কালির সঙ্গে খুব সামান্যই মিল আছে আমাদের তৈরি ছবির।এটা অনলাইন গেমের একটা নেগেটিভ ক্যারেক্টার।মা কালি জিভ বের করে থাকেন।তার নিচে থাকেনে শিব।এছাড়া কালীর এক হাতে খড়গও থাকে। কিন্তু এখানে তার জিভও বের করা নেই, নেই শিব, কেবল আছে দু হাতে অস্ত্র।তাই এটাকে মা কালি বলা যায় না।”

তবে একটি ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে ইন্টারনেটে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে হ্যারিস কবুল করেছেন, ছবি বা ক্যারেক্টারটি মা কালীর ছবি দেখেই অনুপ্রাণিত হয়ে তাদের শিল্পী স্মাইট নামে ওই অনলাইন গেম বানিয়েছেন।বানানো হয়েছে নীল ছবি বা পর্নোগ্রাফির স্টাইলে।আর তীব্র আপত্তিটা শুরু হয়েছে এখান থেকেই।


প্রায় দেড় হাজার বছর আগে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মহামানব মহানবী হযরত মুহাম্মদ (স:) এর পছন্দের ১২টি খাবার ও তাঁর গুণাবলী এখানে উল্লেখ করা হলো। এসব খাবার নবীজী (স:) আহার করতেন এবং দেড় হাজার বছর পর আজকের বিজ্ঞান গবেষণা করে দেখেছে নবীজী (স:) এর বিভিন্ন খাবারের গুণাগুণ ও উপাদান অত্যন্ত যথাযথ ও নির্ভুল, নিরঙ্কুশভাবে উল্লেখ করা হয়েছে। নবীজী (স:) এর খাবারের মধ্যে রয়েছে বার্লি, খেজুর, ডুমুর, আঙ্গুর, মধু, তরমুজ, দুধ, মাশরুম, অলিভ অয়েল, ডালিম-বেদানা, ভিনেগার ও পানি। খাবারের গুণাবলী এখানে উল্লেখ করা হলো:এক: বার্লি (জাউ): এটা জ্বরের জন্য এবং পেটের পীড়ায় উপকারী।

দুই: খেজুর: খেজুরের গুণাগুণ ও খাদ্যশক্তি অপরিসীম। খেজুরের খাদ্যশক্তি ও খনিজ লবণের উপাদান শরীর সতেজ রাখে। নবীজী (স:) বলতেন, যে বাড়ীতে খেজুর নেই সে বাড়ীতে কোন খাবার নেই। এমনকি সন্তান প্রসবের পর প্রসূতি মাকে খেজুর খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন আল্লাহর নবী।

তিন: ফিগস বা ডুমুর: ডুমুর অত্যন্ত পুষ্টিকর ও ভেষজগুণ সম্পন্ন যাদের পাইলস ও কোষ্ঠকাঠিন্য আছে তাদের জন্য অত্যন্ত উপযোগী খাবার।

চার: আঙ্গুর: নবীজী (স:) আঙ্গুর খেতে অত্যন্ত ভাল বাসতেন। আঙ্গুরের পুষ্টিগুণ ও খাদ্যগুণ অপরিসীম। এই খাবারের উচ্চ খাদ্য শক্তির কারণে এটা থেকে আমরা তাত্ক্ষণিক এনার্জি পাই এবং এটা স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। আঙ্গুর কিডনির জন্য উপকারী এবং বাওয়েল মুভমেন্টে সহায়ক। যাদের আইবিএস বা ইরিটেবল বাওয়েল সিনড্রোম আছে তারা খেতে পারেন।

পাঁচ: মধু- মধুর নানা পুষ্টিগুণ ও ভেষজ গুণ রয়েছে। মধুকে বলা হয় খাবার, পানীয় ও ওষুধের সেরা। হালকা গরম পানির সঙ্গে মিশিয়ে মধু পান ডায়রিয়ার জন্য ভালো। খাবারে অরুচি, পাকস্থলীর সমস্যা, হেয়ার কন্ডিশনার ও মাউথ ওয়াশ হিসেবে উপকারী।

ছয়: তরমুজ- সব ধরনের তরমুজ স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। নবীজী (স:) তরমুজ আহারকে গুরুত্ব দিতেন। যেসব গর্ভবতী মায়েরা তরমুজ আহার করেন তাদের সন্তান প্রসব সহজ হয়। তরমুজের পুষ্টি, খাদ্য ও ভেষজগুণ এখন সর্বজনবিদিত ও বৈজ্ঞানিক সত্য।

সাত: দুধ- দুধের খাদ্যগুণ, পুষ্টিগুণ ও ভেষজগুণ বর্ণনাতীত। দেড় হাজার বছর আগে বিজ্ঞান যখন অন্ধকারে তখন নবীজী (স:) দুধ সম্পর্কে বলেন, দুধ হার্টের জন্য ভালো। দুধ পানে মেরুদন্ড সবল হয়, মস্তিষ্ক সুগঠিত হয় এবং দৃষ্টিশক্তি ও স্মৃতিশক্তি প্রখর হয়। আজকের বিজ্ঞানীরাও দুধকে আদর্শ খাবার হিসেবে দেখেন এবং এর ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন ডি অস্থিগঠনে সহায়ক।

আট: মাশরুম- আজ বিশ্বজুড়ে মাশরুম একটি অত্যন্ত পুষ্টিকর খাবার এবং মাশরুম নিয়ে চলছে নানা গবেষণা। অথচ দেড় হাজার বছর আগে নবীজী (স:) মাশরুম চোখের জন্য ভালো এবং এটা বার্থ কন্ট্রোলে সহায়ক এবং মাশরুমের ভেষজগুণের কারণে এটা নার্ভ শক্ত করে এবং শরীর প্যারালাইসিস বা অকেজো হওয়ার প্রক্রিয়া রোধ করে।

নয়: অলিভ অয়েল: অলিভ অয়েলের খাদ্য ও পুষ্টিগুণ বহুমুখী। তবে আজ মানুষের ত্বকের সৌন্দর্য রক্ষা ও বয়স ধরে রাখার জন্য যারা বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার ব্যয় করছেন তাদের দেড় হাজার বছর আগে নবীজী (স:) অলিভ অয়েল ব্যবহারের পরামর্শ দিয়েছেন। গবেষণায় দেখা গেছে অলিভ অয়েল ত্বক ও চুলের জন্য ভালো এবং বয়স ধরে রাখার ক্ষেত্রে সহায়ক বা বুড়িয়ে যাওয়ার প্রক্রিয়া বিলম্বিত করে। এছাড়া অলিভ অয়েল পাকস্থলীর প্রদাহ নিরাময়ে সহায়ক।

দশ: ডালিম-বেদানা: বেদানার পুষ্টিগুণ ও খাদ্যগুণের পাশাপাশি এটার ধর্মীয় একটি দিক আছে এবং নবীজী (স:) বলতেন, এটা আহারকারীদের শয়তান ও মন্দ চিন্তা থেকে বিরত রাখে।

এগার: ভিনেগার- ভিনেগারের ভেষজ গুণ ও খাদ্যগুণ অপরিসীম। নবীজী (স:) অলিভ অয়েলের সঙ্গে মিশিয়ে ভিনেগার খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। অথচ আজকের এই মডার্ন ও বিজ্ঞানের অভূতপূর্ব সাফল্যের যুগে বিশ্বের বড় বড় নামি-দামি রেস্টুরেন্ট বিশেষ করে এলিট ইটালিয়ান রেস্টুরেন্টে অভিল অয়েল ও ভিনেগার এক সঙ্গে মিশিয়ে পরিবেশন করা হয়।

বার: খাবার পানি: পানির অপর নাম জীবন। পানির ভেষজগুণ অপরিসীম। দেড় হাজার বছর আগে নবীজী (স:) পানিকে পৃথিবীর সেরা ড্রিংক বা পানীয় হিসাবে উল্লেখ করেছেন। সৌন্দর্য চর্চা থেকে শুরু করে স্বাস্থ্য রক্ষায় চিকিত্সা বিজ্ঞানীরা আজ প্রচুর পানি পান করতে বলেন।