Archive for the ‘ইন্টারনেট’ Category


earn-money-online1বিছমিল্লাহির রহমানির রাহিম। মহান আল্লাহর নামে শুরু করছি। যেহেতু আল্লাহর নামে শুরু করেছি সেহেতু এই টপিকটা যে ভুয়া না সেটা অবশ্যই বুঝতে পারছেন।
যাই হোক কথা না বাড়িয়ে কাজ শুরু করি। এ বাপারে আগেও অনেক পোস্ট করা হয়েচে । তারপরও অনেকে বলছেন যে বুঝতে পারেন নি। তাই বুঝিয়ে বলার চেষ্টা করবো।
1. আপনার অবশ্যই একটা ওয়েবসাইট থাকতে হবে। আর কিছু লাগবে না।
2. এই লিঙ্কে গিয়ে Register লেখায় ক্লিক করুণ। Name এ আপনার নাম দিবেন। Company তে কিছু দেয়া লাগবে না। Email এ একটা email দিবেন Join as এটা publisher select করবেন। Mobile এ আপনার Mobile Number। Address এ আপনার ঠিকানা। City তে আপনি যে শহরে থাকেন তার নাম। Postal code 4 সংখার যে কোনো একটা সংখা দিবেন। নিচে একটা যোগ অংক দেয়া আছে ওটার result last box এ দিয়ে Join now তে ক্লিক করবেন। এবার বাকি কাজ করি। join now তে ক্লিক করার পর যে পেইজ এসেছিল সেখানে একটি verification code চাইবে। এটা আপনার email এ আছে। email এ login করুণ। amaderad থেকে যে email টা এসেছে সেটায় ঢুকুন। না পেলে spam অথবা zank folder এ দেখুন। মেইল্টার ভিতরে একটা সংখা পাবেন। সেটাই আপনার verification code। এটা দিয়ে registration সম্পন্ন করুণ।

কত টাকা পাবেন? এটা বলা এদের company থেকে বারণ আছে। But, google adsense এর চেয়ে কিচু কম। google adsence প্রতি ক্লিক এ ৪-৫ টাকা দেয়।
কীভাবে আয় করবেন ? submit site এ গিয়ে আপনার সাইট এড করুণ । 3-4 ঘন্টার মধ্যেই আপনাকে সাইট এড করা হল কীনা তা email a জানানো হবে । এড করা হলে উপর থেকে get code এ গিয়ে কোড সংগ্রহ করে আপনার সাইটে যুক্ত করে দিন ।
টাকা তুলবেন যেভাবে: লগিন করার পর যে পেজ আসে সেখানে payment setup এ গিয়ে আপনার মোবাইল নাম্বার সেট করে দিন । প্রতি মাসের 1-5 তারিখের মধ্যেই টাকা পেয়ে যাবেন । ভয় নেই এরা টাকা ঠিক মতই দেয় । তা নাহলে এতবড় একটা পোষ্ট লেখার দরকার ছিল না ।


প্রতিদিনের কাজের তালিকাটা অনেকের অনেক লম্বা। এত সব কাজের মাঝে অনেক সময় প্রয়োজনীয় কাজটির কথা মনে থাকে না। আর যারা ভুলোমনা টাইপের মানুষ তাদের বিষয়ে তো কথাই নেই। যথাসময়ে কাজের কথা ভুলে যান সহজেই। ফলে অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজ সঠিক সময়ে করা হয় না। তবে স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের সহায়তায় রয়েছে কিছু অ্যাপস।

স্মার্টফোনে দৈনন্দিন পরিকল্পনাগুলোকে সাজিয়ে রাখলে তা মনে করিয়ে দেবে কখন কোন কাজটি করতে হবে? কেমন হবে তখন? কাজের তালিকা তৈরির জন্য অ্যান্ড্রয়েড এবং আইওএসের রয়েছে অনেক অ্যাপস। এগুলোর মধ্যে থেকে সবচেয়ে জনপ্রিয় ৫টি অ্যাপস নিয়ে এ প্রতিবেদন।

 

এ্যানি ডু (any.do)

 

লাখো ব্যবহারকারী প্রতিদিন তাদের কর্মপরিকল্পনার জন্য এ্যানি ডু অ্যাপ ব্যবহার করেন। এটির ডিজাইন খুব সুন্দর এবং ব্যবহার করা খুব সহজ।

 

Any.DO-iPhone_techshohor

 

এ্যানি ডু অ্যাপে রয়েছে ক্লাউড সুবিধা। এতে তালিকায় থাকা কাজগুলো মেইল আইডি এবং ফেইসবুকের সাহায্যে সিনক্রোনাইজ করা যাবে। ফলে অন্য কোনো ডিভাইস থেকে সিনক্রোনাইজ করলে পাওয়া যাবে কাজের ফর্দ। কর্মপরিকল্পনার সময় ঠিক করে রাখলে নির্দিষ্ট সময়ে তা এ্যালার্ম দিয়ে জানিয়ে দেবে।

 

এটি অ্যান্ড্রয়েড ও আইওএস অপারেটিং সিস্টেমের জন্য ফ্রি ডাউনলোড করে ব্যবহার করা যাবে।
এখান থেকে অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারীরা ডাউনলোড করে ব্যবহার করতে পারবেন।

 

রিমেমবার  দ্যা মিল্ক (Remember the Milk) (বিস্তারিত…)


ছবি তোলার পর সেটিকে আরও সুন্দরভাবে ফুটিয়ে তুলতে হাল আমলে এফেক্ট যোগ করা হচ্ছে হামেশ্ই। ছবিতে নিত্য নতুন ইফেক্ট যুক্ত করার প্রবণতা বাড়ছে। তবে এ জন্য কম্পিউটার বা সফটওয়্যারে এক্সপার্ট হওয়ার প্রয়োজন নেই। একটি অ্যাপ ব্যবহার করেই এ কাজটি করা যাবে খুব সহজেই।

ছবিতে ইফেক্ট যোগ করতে অ্যান্ড্রয়েডের রয়েছে নানা অ্যাপস। এত সব অ্যাপসের মধ্যে ভাল একটি অ্যাপস খুঁজে পাওয়া একটু কঠিন বৈকি। অনেকগুলোর মধ্যে থেকে বাছাই করে ব্যবহার করা যেতে পারে জেনরেট্রো (XnRetro)। ছবিতে ইফেক্ট যুক্ত করার জন্য এটি চমৎকার একটি অ্যাপ। এতে রয়েছে দারুণ এবং সুন্দর অনেকগুলো ইফেক্ট। যে ইফেক্টগুলো ব্যবহার করলে ছবি আগের থেকে আকর্ষণীয় হবে।

app-xnretro-512

অ্যাপটির ফিচারগুলো হলো- (বিস্তারিত…)


যুগের সাথে তাল মিলিয়ে বই পড়ার মাধ্যমও বদলে যাচ্ছে। কাগজের মলাটে বাঁধাই করা বইয়ের পাশাপাশি এখন ই-বুক বা ডিজিটাল বুকও জনপ্রিয় হয়ে ঊঠছে। এরই প্রেক্ষিতে দেশের অন্যতম মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান মোবিওঅ্যাপ তৈরি করেছে ‘বই পোকা’ নামে একটি ডিজিটাল বুক রিডিং অ্যাপ্লিকেশন।

পাঠকরা আইফোন এবং অ্যান্ড্রয়েডের সকল স্মার্ট ডিভাইসে বিনামূল্যের এই অ্যাপ্লিকেশনটি ব্যবহার করে বই পড়তে পারবেন। এতে কালজয়ী সব ক্লাসিক বই দেওয়া আছে। পাঠকরা সেগুলো বিনামুল্যে পড়তে পারবেন।

Boipoka-TechShohor

এছাড়াও একজন পাঠক জনপ্রিয় সব লেখকের বই অ্যাপ্লিকেশনটির ‘ইন-অ্যাপ পারচেজ’ ফিচারটির মাধ্যমে খুব সহজেই কিনে পড়তে পারবেন। পাঠকদের বই পড়ার অভিজ্ঞতাকে নতুন মাত্রা দিতে অ্যাপ্লিকেশনটিতে রয়েছে বুকমার্ক, হাইলাইটার, আন্ডারলাইন, অ্যানোটেশন, পেইজ জাম্প, বুক রেটিংয়ের মতো কার্যকর সব ফিচার।

অ্যাপটি ব্যবহারকারীরা তাদের নিজস্ব পিডিএফ বইয়ের সংগ্রহও খুলতে পারবেন। তারা বইয়ের কোন একটি পছন্দের অংশ সোশ্যাল শেয়ার ফিচারের মাধ্যমে সামাজিক যোগাযোগের সাইটগুলোতে বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করতে পারবেন।

প্রকাশক এবং লেখকদের মেধাসত্ত্ব ও রয়্যালটি রক্ষার্থে এবং পাইরেসি রোধকল্পে নির্মাতা প্রতিষ্ঠান মোবিওঅ্যাপ নিজস্ব পিডিএফ রিডার তৈরি করে অ্যাপলিকেশনটিতে ডিজিটাল রাইট ম্যানেজমেন্ট (ডিআরএম), দুই স্তরের নিরাপত্তা এবং এনক্রিপশনের ব্যবস্থা করেছে।

২১শে বইমেলা উপলক্ষে বই পোকা অ্যাপ থেকে ডিজিটাল বই ৬০ থেকে ৬৫ শতাংশ ছাড়ে কিনতে পারবেন বাংলা একাডেমী প্রাঙ্গনে বইমেলার ৫১৩ নাম্বার স্টল থেকে।

‘বই পোকা’ অ্যাপটি এই লিংক থেকে ডাউনলোড করা যাবে।


স্বাস্থ্য সেবায় প্রযুক্তির ব্যবহার বহুল প্রচলিত। ইদানিং স্মার্টফোনের মাধ্যমেও মিলছে স্বাস্থ্যের বিভিন্ন সেবা। নতুন নতুন ডিভাইস ও অ্যাপ ভূমিকা রাখছে এ ক্ষেত্রে। তেমনি একটি ডিভাইস ও অ্যাপ হলো এলাইভইসিজি।

স্মার্টফোনে এটি ব্যবহার করা হলে এখন আর রোগীকে রিপোর্ট দেখানোর জন্য চিকিৎসকের চেম্বারে শশরীরে যেতে হবে না। স্মার্টফোনটিই এখন হৃদকম্পন পরিমাপ করে তা স্বয়ংক্রিয়ভাবে পাঠিয়ে দিবে চিকিৎসকের কাছে।

alivecor

প্রযুক্তিবিদ ও চিকিৎসকরা এ প্রযুক্তিকে স্বাস্থ্য সেবায় যুগান্তকারী পদক্ষেপ হিসাবে দেখছেন। হাতে পরিধানযোগ্য এ ডিভাইসের মাধ্যমে স্মার্টফোনে থাকা এলাইভইসিজি নামের অ্যাপটি প্রতিনিয়ত হৃদকম্পন রেকর্ড করবে। http://adf.ly/eEH1d

এরপর অ্যাপটি রেকর্ড করা ডাটাবেস থেকে তথ্য বিশ্লেষণ করে কোনো সমস্যা থাকলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ই-মেইলের মাধ্যমে তা চিকিৎসকের কাছে পাঠিয়ে দেবে। ফলে চিকিৎসক রেকর্ড দেখে চিকিৎসার নির্দেশনা দিতে পারবেন।

এর ফলে রোগীকে কষ্ট করে হাসপাতালে চিকিৎসকের চেম্বারে যেতে হবে না। ঘরে বসেই চিকিৎসা সেবা পাওয়া যাবে। রোগী ও চিকিৎসক উভয়ের সময় সাশ্রয় হবে।

৫৭  বছর বয়সী উত্তর ক্যারোলিনার বাসিন্দা ই বি ফক্স গত বছরের অক্টোবর থেকে ডিভাইসটি ব্যবহার করছেন। তিনি জানান, এখন তাকে কষ্ট করে চিকিৎসকের কাছে যেতে হয় না। একটি ই-মেইলের মাধ্যমেই চিকিৎসার দিক নির্দেশনা পাচ্ছেন তিনি।

স্মার্টফোনের মাধ্যমে স্বাস্থ্যসেবা খাতেও নতুন দিগন্ত উন্মোচিত হয়েছে নতুন এ প্রযুক্তির মাধ্যমে।


স্মার্টফোন অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে অ্যান্ড্রয়েডের জনপ্রিয়তা শীর্ষে। অ্যাপস সহজলভ্যতার জন্য অ্যান্ড্রয়েডের ব্যবহার বেশি। এ অপারেটিং সিস্টেমের স্মার্টফোন কাস্টমাইজ করার জন্য নানা রকম লঞ্চার অ্যাপ ব্যবহার করা হয়ে থাকে। এসব লঞ্চার দ্বারা হোম স্কিন, উইজেট ইত্যাদি বিভিন্ন রুপে দেখা যায়।

অ্যান্ড্রয়েডের অনেক লঞ্চারের মধ্যে থেকে ভালোটি খুঁজে পাওয়া খুবই কষ্টসাধ্য। এ প্রতিবেদনে চারটি লঞ্চারের সাথে পরিচিয় করিয়ে দেওয়া হলো যা আপনার কাজ সহজ করে দেবে।

apex

এপেক্স লঞ্চার (Apex Launcher)
অ্যান্ড্রয়েডের এ অ্যাপও বেশ জনপ্রিয়। গুগল প্লে স্টোর থেকে এক (বিস্তারিত…)


অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারীদের জন্য স্মার্টফোনটি সঠিকভাবে চালাতে বেশ কিছু সাহায্যকারী অ্যাপ আছে। কিছু অ্যাপ আছে যেগুলো মেমোরি ক্লিনার হিসেবে ব্যবহার করা হয়। এগুলো ব্যবহার করা হলে স্মার্টফোনের গতি কিছু হলেও বৃদ্ধি পায়। অপ্রয়োজনীয় অ্যাপ বন্ধ রাখে ফলে ব্যাটারি চার্জ ক্ষয় কম হয়। সে রকম একটি চমৎকার অ্যাপ অ্যান্ড্রয়েড অ্যাসিস্ট্যান্ট।

অ্যাপটি ফাইল ম্যানেজার হিসেবে ব্যবহার করা যাবে। একই সাথে প্রয়োজনীয় ফাইল ব্যাকআপ রাখাসহ অনেক কাজ করা যাবে এটির সাহায্যে। এ যেন একেক ভিতর সব।

android_assistent_escreveassim.com_.br_

এক নজরে অ্যাপটির ফিচারগুলো (বিস্তারিত…)


it1.thumbnailপাসওয়ার্ডগুগলের তথ্য নিরাপত্তা ব্যবস্থাপক হিদার অ্যাডকিনসের মতে, পাসওয়ার্ডের যুগ শেষ হয়ে গেছে।

অকেজো হয়ে যাচ্ছে পাসওয়ার্ড ব্যবস্থা।

ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর তথ্য নিরাপত্তায় এখন পাসওয়ার্ডের বিকল্প ভাবার আর কোনো বিকল্প নেই।

প্রযুক্তি বিষয়ক ওয়েবসাইট টেকক্রাঞ্চ আয়োজিত এক সম্মেলনে পাসওয়ার্ডের নিয়ে এমনই ভবিষ্যদ্বাণী করেন হিদার।

হিদার জানিয়েছেন, এখন নতুন উদ্যোক্তাদের পাসওয়ার্ডের বাইরে ভাবার সময় এসেছে। কারণ, ‘পাসওয়ার্ড এখন মৃত’।

তথ্যের নিরাপত্তায় এমন নিরাপত্তা ব্যবস্থা উদ্ভাবন করতে হবে যা দুর্বৃত্তরা কখনও হাতিয়ে নিতে না পারে।

হিদার আরও জানান, সার্চ জায়ান্ট গুগল পাসওয়ার্ডের বিকল্প ব্যবস্থা উদ্ভাবনে কাজ করছে। এরমধ্যে রয়েছে হার্ডওয়্যার টোকেন, উলকি ও পিল জাতীয় বিকল্প ব্যবস্থা।

হিদারের মতে, নতুন কোনো প্রযুক্তি-প্রতিষ্ঠান শুরুর আগে অবশ্যই তথ্যের নিরাপত্তা নিয়ে ভাবা উচিত। প্রতিষ্ঠানের তথ্য নিরাপত্তার সার্বক্ষণিক দায়িত্ব কমপক্ষে ২৫ ব্যক্তির ওপর থাকা প্রয়োজন।

পাসওয়ার্ডের বিকল্প হবে উলকি, পিল

যাঁদের পক্ষে পাসওয়ার্ড মনে রাখা কষ্টকর, তাঁদের জন্য গুগল তৈরি করছে বিশেষ ধরনের ইলেকট্রনিক উলকি আর পিল। এ উলকি শরীরে লাগিয়ে রাখতে পারবেন বা বিশেষ পিল সেবন করলে এগুলো পাসওয়ার্ড হিসেবেই কাজ করবে।

গুগলের অধীনস্থ মটোরোলা এই ইলেকট্রনিক ট্যাটু বা উলকি আর বিশেষ ধরনের পিল বাজারে আনতে কাজ করছে। বিশেষ এ উলকি ত্বকের ওপর আঁঁকা এক ধরনের সার্কিটের মতো। এতে কোনো ব্যাটারির প্রয়োজন পড়বে না।

ইলেকট্রনিক উলকির পাশাপাশি বিশেষ ধরনের ইলেকট্রনিক পিল বা বড়ি তৈরিতেও কাজ করছে গুগল। এ পিলটি খেলে মানুষের শরীর থেকে বিশেষ তরঙ্গ নির্গত হবে যা শনাক্ত করতে পারবে স্মার্টফোন। এ পিল শরীরের জন্য ক্ষতিকারক হবে না।

আইফোনে এল ফিঙ্গারপ্রিন্ট প্রযুক্তি

প্রযুক্তিপণ্য নির্মাতাপ্রতিষ্ঠানগুলো পাসওয়ার্ড ব্যবস্থার উন্নয়ন নিয়ে নানা গবেষণা করছে। প্রচলিত সংখ্যা পদ্ধতির পাসওয়ার্ড ব্যবস্থার বিকল্প হিসেবে অ্যাপল কর্তৃপক্ষ আইফোনের নতুন সংস্করণে ফিঙ্গারপ্রিন্ট প্রযুক্তি এনেছে। আইফোনে এ প্রযুক্তি আনতে ২০১২ সালে অথেনটেক নামের একটি প্রতিষ্ঠান কিনেছিল অ্যাপল। ১০ সেপ্টেম্বর ঘোষিত আইফোনের নতুন মডেলের সঙ্গে ফিঙ্গারপ্রিন্ট শনাক্তকারী সেন্সরযুক্ত করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

গবেষকেরা জানিয়েছেন, চোখের আইরিশ স্ক্যান ও কণ্ঠস্বর শনাক্তকরণ প্রযুক্তিকেও পাসওয়ার্ড ব্যবস্থা হিসেবে পরিচিত করার জন্য কাজ করছে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান।


483537_437254906369043_1315323029_nশরীরে প্রথম অজানা ডাকের উঁকিঝুঁকি আসতেই বইয়ের পাতায় লুকিয়ে চিলছাদে এককোণে দুপুর কাটানো। অথবা ফাঁকা বাড়িতে লুকানো সিডিতে বন্ধুরা মিলে উষ্ণতা শিখে নিতে চাওয়া। শরীর চেনা-জানার প্রথম পাঠ তো বোধহয় পর্নোগ্রাফির হাত ধরেই আসে। এমনিতে ছেলেদের দিকে পাইকারি আঙুল উঠলেও শরীর আনচান বয়ঃসন্ধির মেয়েরাই বা লুকিয়ে কম কি নগ্নছবির পাতা উলটেছে? প্রাথমিক অজানাগুলো কেটে যেতে যেতে আমরা এক সময় উপলব্ধি করি পর্নোগ্রাফির বিজ্ঞানসম্মত দিক। এভাবে যৌনজীবন নিয়ে নানান ভ্রান্তি কাটার সময়ের সঙ্গেই সঙ্গেই নীল ছবি ডিপ্রেশনের সঙ্গী হয় মাত্র, যার কোনও বাজে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। কিন্তু সত্যিই কি নেই?
বর্তমান একটি রিপোর্ট বলছে, নীল ছবির আকর্ষণ বয়ঃসন্ধির ওই সময়টুকু ছাড়িয়ে যদি দৈনন্দিন জীবনের আনন্দপূরণের চাহিদা হিসেবে থেকে যায় তবে তো সমূহ বিপদ। পুরুষ-নারী, দু’পক্ষেরই অতিরিক্ত পর্নোপ্রেম ডেকে আনতে পারে সম্পর্কের প্রতি আসক্তিহীনতা থেকে শুরু করে মুহুর্মুহু ভেঙে বেরিয়ে আসার প্রবণতা। আধুনিক জটিল জীবনের আরও নানা অভিশাপের পাশাপাশি এও এক গোপন ব্যাধি বলে ভয় দেখাচ্ছেন বিজ্ঞানীরা। আর এরই সঙ্গে সম্পর্ককে যান্ত্রিক করে তুলছে নানান গ্যাজেটের প্রতি অতিরিক্ত নির্ভরশীলতা। আসলে পর্নোগ্রাফি পড়ার চেয়ে দেখার কুফলটাই বেশি, এমনটাই বলছে সেই রিপোর্ট। আর নানান গ্যাজেট হাতে হাতে ঘোরার ফলে পর্নোগ্রাফিও ঢুকে পড়েছে সেসবের মধ্যে। দুয়ে মিলে জীবন ওষ্ঠাগত হওয়ার পক্ষে যথেষ্ট!

আসলে জীবনের বাস্তবিকতা ভুলে ফ্যান্টাসিতে সম্পর্ক নিমগ্ন রাখতে চাইলে অবিলম্বে ফাটল ধরবেই। ঠিক এখানেই বিপদ ঘটাচ্ছে পর্নোগ্রাফি। দেখা যায়, বেশি বয়স অবধি নারীসঙ্গে বঞ্চিত পুরুষদের মধ্যে পর্নোগ্রাফির প্রতি আকর্ষণ তুলনামূলক অনেক বেশি। যৌনজীবনের কল্পনায় এঁরা নীল ছবিকেই মাথায় রাখেন। কিন্তু বাস্তবের সঙ্গে মিল না খেতে খেতে ফল হয় উল্টো। আবার এই ধরনের পুরুষ স্ত্রী বা প্রেমিকার কাছে বিশ্বাসযোগ্যতাও হারিয়ে ফেলেন অধিক উত্তেজিত যৌনেচ্ছার কারণে। অন্যদিকে আবার সেক্সকে প্রায় জলভাত করে ফেলা এই অস্থির প্রজন্ম ভীষণভাবে পর্ন-অ্যাডিক্ট। এই অ্যাডিকশন যৌন ক্ষিদে মুছে ফেলতে সক্ষম। পাশাপাশি, পর্নোগ্রাফিতে দেখা জুটির প্রফেশনাল চরিত্র না বুঝেই সঙ্গী বা সঙ্গীনির বদলে তাকে কামনা করে যে শারীরিক মিলন ও এক সময় একঘেয়েমি অনুভব করা, তা থেকে সম্পর্কের গভীরতা ফিকে হতে বাধ্য।

সেক্স বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই প্রজন্মের মধ্যে এমন প্রবণতা বেড়েছে যে তারা পার্টনারের প্রতি মনে মনে এই বিশ্বাসঘাতকতা থেকেই হারিয়ে ফেলছেন উষ্ণতা। এই ডিপ্রেশন থেকে উর্বরহীনতা আসা এমন কিছু অবাস্তবও নয়। পর্নোগ্রাফির আর একটি দোষ হল, অল্প সময়ে উত্তেজনার সব চাহিদাটুকু মিটিয়ে ফের টেবিল গুছিয়ে কাজে লেগে পড়া। সম্পূর্ণ যৌনতা কিন্তু তা বলে না। অর্গ্যাজম হোক বা না হোক, শরীর-মনের প্রশান্তির সময়টুকু যেন একেবারে নিখাদ থাকে। কিন্তু পর্নোগ্রাফির চটকদার সব পাওয়ার হিসেবে এই হিসেব মেলে না। এর ফল সম্পর্কে পড়তে বাধ্য। কেন না, সম্পর্কের রসায়ন শুধু ভালবাসা কল্পনার ফানুসে ভাসতে পারে না। অন্তত বর্তমান জীবনে সম্পর্ক নামক গ্রাফের অঙ্ক কষাও একটা শিল্প। পর্নোগ্রাফির মোটা দাগের আনন্দ ক্ষণিকের চটক দিতে পারে মাত্র, যৌনতা উষ্ণতাকে এতে গুলিয়ে ফেলে নিজেকে আরও বেশি নিস্ব-হতাশ করবেন না যেন।

আর এরই সঙ্গে জুটিরা মন দিন নিজেদের দিকে! চলতি হাওয়ায় অনেক মানুষেরই পরস্পরের প্রতি অভিযোগ যে, তাঁরা নাকি অতিরিক্ত পরিমাণ ইন্টারনেটস্যাভি। ঘুম থেকে উঠে বাসিমুখে সঙ্গী বা সঙ্গীনিকে চুমুর বদলে ফেসবুকের ওয়াল পোস্টে আকর্ষণ বেশি হলে তো মুশকিল! ঠিক এই জায়গা থেকেই বিয়ের দু’বছরের মধ্যে সম্পর্ক ভাঙতে চলেছে শহরের এক আইটি-সেক্টরকর্মী অপর্ণার। অভিযোগ, অপর্ণার চেয়ে ইন্টারনেট গেমেই বেশি মন সুমনের। এমনকি, রাতের তীব্র বিছানাবিলাসের পর স্বামীকে জড়িয়ে ঘুমানোর সুখটুকুও মেলে না তার। তখন সুমন ব্যস্ত নেটবিশ্বের স্কাইপ দুনিয়ায়। যন্ত্রপ্রেমে এমন মশগুল যন্ত্রমানবের সঙ্গ থেকে হাঁফ ছেড়ে বাঁচতেই অপর্না ছাড়পত্র চায়।

লেখার প্রতি অক্ষরে নিজেকে মিলিয়ে নিতে নিতে আমরা যারা চমকে উঠছি, তাদের বলি, এতে বেশি বিস্ময়ের কিছু নেই। এই দুজনের মতো আরও অনেকেই যন্ত্রপ্রেমে মশগুল হয়ে অজান্তেই হারিয়ে ফেলছেন পাশের মানুষ দোসরকে। সময় কেটে যখন টনক নড়ছে, তখন বন্ধু বলতে সাইকিয়াট্রিস্ট। যন্ত্র আর অ্যাপ্লিকেশনে সদাব্যস্ত এই প্রজন্ম আদতে হারিয়ে ফেলছে সম্পর্ক আর জীবনের আসল চাবিকাঠি। অথচ বছর ৫ আগেও অফিস ফেরত সম্পতি বা কলেজ ফেরত প্রেমিক যুগল, নিভৃতে নিজেদের সময়টুকু নিয়ে নাড়াচাড়া করত। রাতের খাবারের একান্ত নির্জনতা বা সন্ধেঘন পার্কের কোণের অন্ধকারটুকুতে শুধু দুটি মন ছাড়া আর কেউ নেই।

কিন্তু স্মার্টফোন আর অ্যাপসের যুগে আপনি যে অলওয়েজ বিশ্বনাগরিক ভাই। তাই স্ত্রীর হাতের বাটার পনিরের প্রশংসার আগেই ভেসে আসে ক্যালিফোর্নিয়ার ঘটনাবলী। প্রেমিকের ঘামভেজা শরীরে নাক ডুবিয়ে মগ্নতাকে ছিন্ন করে দেয় আপনার থেকেও স্মার্ট আপনার ফোনের বিভিন্ন চিৎকৃত আপডেট। বাটার পনিরের অমনোযোগী সময় ধীরে ধীরে সম্পর্কের ঘনত্বকে ঠান্ডা মেরে দিতে দিতে নিয়ে যায় ডিভোর্স নামক কয়েক পাতার মর্গে। সাম্প্রতিক একটি সমীক্ষা বলছে, বিশ্বের ৮০ শতাংশ তরুণ কাপল রাতে বা দিনে খাবার টেবিলে খাওয়ার সময়, পরস্পরের সঙ্গে বাক্যালাপের চেয়ে বেশি মগ্ন থাকে নিজ নিজ ল্যাপটপ বা মোবাইল ফোনে। অন্যদিকে ৭০ শতাংশ আবার রাতঘুমের আগে বিছানায় আধঘন্টা কাটায় ল্যাপটপ কোলে, নানান সোশ্যাল মিডিয়ার সোশ্যালিজমে। সে সামাজিকতার এমনই নাকি গুণ, যে পাশে স্ত্রী বা স্বামীকে গুডনাইট বলার দস্তুর হল তার অনলাইন অ্যাকাউন্টে।

মানছি, বাস্তব সম্পর্কে বেশি ডুব দিতে গেলেই নিয়ত আপডেটেড ভার্চুয়াল কক্ষপথ থেকে ছিটকে যাবেন! কিন্তু এই যন্ত্রের আজব ফানুস দুনিয়ায় ঘুরতে ঘুরতে কখন যে বাস্তব থেকে শূন্য যোজন দূরে চলে যাচ্ছে এই প্রজন্ম, সে ক্ষতির হিসেব মিলছে দেওয়ালে পিঠে ঠেকে গেলে। এবার বাকিটুকু বুঝে নিন আপনিই; উপদেশের লক্ষ্য আমাদের একেবারেই নেই। তবু ওই যে ইংরেজিতে বলে না, ‘প্রিভেনশন ইজ বেটার দ্যান কিওর’; সেটাও মাথায় রাখলে ক্ষতি কি!


601712_367828133323807_1314266991_n(1)আগামী ছয় মাসের বাংলাদেশে Mobile Number Portability (MNP) চালু করার জন্যে কাজ শুরু করেছে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন বিটিআরসি। আগামী সপ্তাহে অনুষ্ঠিত কমিশন বৈঠক থেকেই এ বিষয়ে অপারেটরদের নির্দেশ দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন বিটিআরসি’র সংশ্লিষ্ট বিভাগগুলো।MNP= বিদ্যমান নম্বর ঠিক রেখেই ইচ্ছে মতো অপারেটর বদলের সুযোগ.

তবে বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে গ্রামীণফোনের সিইও বিবেক সুদ বলেছেন, তারা এমএনপি’র বিপক্ষে। কারণ এর ফলে নতুন অপারেটরদের সম্ভাবনা বাড়লেও তারা খানিকটা হলেও ঝুঁকিতে পড়বেন।

অন্যদিকে এয়ারটেলের কর্পোরেট বিভাগের প্রধান আশরাফুল হক চৌধুরী বলেছেন, এর আগে দফায় দফায় তারা এমএনপি’র বিষয়ে দাবি জানালেও শেষ পর্যন্ত এটি আধারেই থেকে গেছে। এখন অনেক বিলম্ব হয়ে গেলেও এটি বাস্তাবায়িত হলে তাতে গোটা দেশেরই লাভ হবে।

ভারতে এই পরিবর্তনের জন্যে ১৯ রুপী করে খরচ করতে হয়। থাইল্যান্ডে খরচ করতে হয় ৯৯ বাথ করে। তবে মালয়েশিয়াতে এটি ফ্রি। ভারতে তৃতীয় অপর একটি কোম্পানি এমএনপি’র কাজ করে দিলেও বাংলাদেশের অপারেটরগুলো এর বিপক্ষে বলেছে। ফলে নিজেদেরকেই এখন প্রযুক্তি স্থাপন করতে হবে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া, জার্মানি, ব্রাজিলসহ অনেক দেশেই এখন এমএনপি আছে। পাশের ভারত ২০০১ সালে এই প্রযুক্তি গ্রহন করেছে। পরে পাকিস্তান এবং শ্রীলংকাও এমএনপি’র বাস্তাবায়ন করেছে। (প্রিয় টেক)

[ আমাদের কথাঃ MNP সার্ভিসটি চালু হলে সবচেয়ে বেশী উপকৃত হবে গ্রাহক, কারণ তারা যে অপারেটরে কম মূল্যে বেশী সেবা পাবে সেই অপারেটর এর নেটওয়ার্কে চলে যাবে । ফলে গ্রাহক হারানোর ভয়ে সকল অপারেটরই গ্রাহকদের সর্বোচ্চ সার্ভিস দেওয়ার চেষ্টা করবে । এক্ষেত্রে একচেটিয়া বাজার ব্যবহার পরিবর্তন হবে ]


আসসালামু-আলাইকুম কেমন আছেন সবাই , আশা করি সবাই ভাল আছ, ভাল থাক, সুন্দর থাক, স্বুস্থ থাক , নিরাপদে থাক এটাই আমি সব সময় প্রত্যাশা করি, আপনাদের সর্ব সাফল্য আমি একান্ত ভাবেই কামনা করি।
আমরা জানি তথ্যপ্রযুক্তি এগিয়ে যাচ্ছে। ধরা দিচ্ছে প্রযুক্তির নাগালের অবস্থানরত মানুষের হাতে। প্রযুক্তি নির্ভর মানুষগুলোর কারণেই তথ্যপ্রযুক্তি সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। যাই হোক আসল কথায় আসি ,

আমাদের যাদের নিজস্ব ওয়েবসাইট বা ব্লগ আছে ,আমরা অবশ্যই গুগল অ্যাডসেন্স পেতে ইচ্ছুক কিন্তু পযাপ্ত ভিসিটর না থাকার ফলে আমরা অ্যাডসেন্স পাইনা।আর এ জন্যই
আমি আজ আপনাদের সাথে একটা সাইট শেয়ার করব যেটা নাকি গুগল অ্যাডসেন্স আর বিকল্প ।

http://yllix.com/publishers

এবার Register As A Publisher এ ক্লিক করুন। তারপর আপনার প্রথম নাম ও শেষ নাম লিখুন,এবং আপনার ইমেইল আদ্দ্রেসস দেন।

তারপর Create Account সিলেক্ট করুন। তারপর ঠিক এ রকম একটা মেসেজ আসবে

Welcome Mr. আপনার নাম
Your account has been successfully created.
Please check your mailbox in order to activate your account.

এবার আপনার ইমেইল এ লগিন করুন , দেখবেন যে একটা নতুন মেইল এসেছে ।এটা ওপেন করুন । এখানে আপনার অ্যাকাউন্ট , আইডি, পাসস্বরদ দেওয়া আছে এবং একটা লিঙ্ক ও দেওয়া আছে এটা তে ক্লিক করুন । করার পর আপনার অ্যাকাউন্ট আইডি চাইবে ওইটা বসিয়ে দিন। এবার ঠিক মার্ক করে Complete Registration এ ক্লিক করুন। এরপ্র আপনার Real Address বসিয়ে দিন। Continue তে ক্লিক করুন , আপনার মোবাইল নাম্বার দিন আবার Continue করুন । তারপর আপনার Payment method সিলেক্ট করুন ।আপনার ইমেইল ও Minimum Payout সিলেক্ট করুন । এবার Close সিলেক্ট করুন। তারপর SMS Verification সিলেক্ট করুন । Sand Verification Sms এ ক্লিক করার পর একটা এসএমএস পাবেন ওই নাম্বার টা বসিয়ে দিন। তারপর আপনার ওয়েবসাইট অ্যাড করে কোড গুলো বসিয়ে দিন।

এবার সাইটির ধরণ দেখে নেই।

***Yllix CPM, CPC, CPA এবং পপআপ বিজ্ঞাপন সমর্থন করে ।

***Yllix 300×250, 728×90, 468×60, 120×600, 160×600, PrePop, পপআপ এবং PopUnder বিজ্ঞাপন ফর্ম্যাট সমর্থন করে।

***মিনিমাম Payout 1$। আমার ক্যাশ আউট এর প্রুফ
***Google Adsence এর অন্যতম একটি বিকল্প উপায় Yllix। আপনারা যারা অনেক চেষ্টা করার পরেও আপনার ব্লগ/ওয়েবসাইট এর জন্য Google Adsence থেকে এড পাচ্ছেন না তারা Yllix চেষ্টা করে দেখতে পারেন। Yllix এর Popup, Layer এবং Full page এড এর জন্য এডে ক্লিক অনেক বেশি পরে। আর আপনি রেফেরাল লিঙ্ক এর মাধ্যমেও কিছু আয় করতে পারবেন। আর এর সবচেয়ে বড় সুবিধা হল মাত্র $1 হলেই আপনি Payza, PayPal, Liberty Reserve অথবা Bank wire এর মাধ্যমে পেমেন্ট নিতে পারবেন।


referral_leaderboard

গুগল এডসেন্স বিজ্ঞাপনের ক্ষেত্রে সেরা এ কথা অনস্বীকার্য। তবে পাশাপাশি আরও বেশ কয়েকটি সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান গুগলের সাথে পাল্লা দিয়ে এগিয়ে আসছে। যদিও এগুলোর ধারা গুগল থেকে সম্পূর্ণ ভিন্ন। এডব্রাইট, চিটিকাও একটি স্বতন্ত্র ধারা।
চিটিকা দিয়েও আপনি আপনার ওয়েবসাইটে এড বসিয়ে আয় করতে পারেন।
বিস্তারিত জানতে এবং সেবাটি গ্রহণ করতে সাইন আপ করে দেখতে পারেন।

সাইন আপ

সবচে বড় কথা হলো, সাইন আপ করতে যেহেতু কোনো টাকা পয়সা লাগে না তাই গুগলের উপর নির্ভর না করে এখানেও চেষ্টা করে দেখতে পারেন।
হয়তো গুগল এডসেন্স থেকে এটাই আপনার কাছে সহজ-সাবলীল-প্রয়োজনীয় মনে হবে। তাছাড়া গুগল এডসেন্সের সাথে চিটিকা ইউজ করা যায়

বুঝতে সমস্যা হলে জানাবেন। আমার সাধ্যমতো সলভ করার চেষ্টা করবো।


Flippa.com থেকে একটি ব্লগ/ওয়েবসাইট কিনে আপনি ইনকাম করতে পারবেন।
আপনি যদি ফ্লিপা ডট কম ভিজিট করেন দেখতে পাবেন একটা কত দামে কেনা বেচা হয় এবং এখানে ডোমেইন কত জনপ্রিয়। এখানে একটা ডোমেইন এর দাম একহাজার ডলার থেকে শুরু করে একলক্ষ ডলার এর বেশী হয়ে থাকে। এটা সত্যিই একটা বড় মাকের্ট এবং দিন দিন এই মার্কেট আরো বাড়ছে। উন্নত দেশে অনেকেই তাদের ইনাকাম এর জন্য ফ্লিপা থেকে ডোমেইন কিনেন এবং এটা একটা ওয়েবসইট কেনা বেচার ভাল ব্যবাসা।আপনি ফ্লিপার থেকে যদি না বুজে ডোমেইন কিনেন তাহলে আপনার লস হবার সম্ভাবনা থাকে। তাই ডোমেইন কিনার আগে নিচের বিষয় গুলো খেয়ার করবেন।
১। ডোমেইন নাম: আপনাকে প্রথমেই দেখতে হবে ডোমেইন সার্চ ইঞ্জিন ব্লক করছে কিনা। আপনার সাইট ইনডেক ঠিক আছে কিনা।অনেক সময় স্পামিং এর জন্য গুগুল ওয়েবসাইট সার্চ ইঞ্জিন থেকে ব্লক করে দেয়। আপনার সাইট ব্লক হলে আপনি যতই এস ই করেন না কেন আপনার সাইট রেংকিং পাবে না।
২। পেইজ রেংক: আপনার সাইট কিনার আগে পেইজ রেংক অব্যশই দেখে নিবেন। আপনার ওয়েবসাইটের পেইজরেংক যত বেশী হবে আপনার সাইট ইনডেক্র হবে তত দ্রুত। পেইজরেংক মাধ্যমে আপনার সাইট অথরিটি কতটুকু তাও বুজতে পারবেন।
৩। কিওয়াড রেংক: আপনার সাইটে গুগুল কতটি কিওয়াড আছে তা রেংক দেখতে ভুলবেন না্ এবং আপনার যে কিওয়াড রেংক আছে তার ভিজিটর কত সেটা দেখবেন।
৪। কনটেন্ট: এই ই ও জন্য কনটেন্ট হল রাজা। আপনার কনটেন্ট কি ধরনের তা অব্যশই খেয়ার করতে হবে। অর্থ্যাৎ আপনার ব্লগ রিলেটেড কনটেন্ট হতে হবে। আপনার সাইটে যে কন্টেন্ট আছে তা কি কপি পেষ্ট নাকি ইউনিক সেটা খেয়াল করবেন। লেখা ইউনিক চেক করার জন্য কপি স্কেপ ডট কম চেক করতে পারেন। আপনি যে উদ্দশ্য ব্লগ করছেন তা রিলেটেড লেখা হতে হবে। ধরুন আপনি টেকনোলজি বিষয় লেখালিখছেন এখন এখান্য অপ্রষঙ্গিক লেখা না লেখাই ভাল।
৫। ভিজিটর: আপনার সাইট কিনার আগে অব্যশই বিগত তিন মাসের ভিজিটর দেখবেন। এক্ষেএ্রে ব্লগ ওনারকে বলবেন আপনার গুগুল এনালাইটিক রিপোর্ট অব্যশই মেইল করে পাঠাতে।
৬। শ্রোতৃমণ্ডলী: আপনার সাইটে আগে যে ব্লগিং করত উনি মহিলা হলে উনার ভিজিটর কি শুধুমাত্র মহিলা নাকি পুরুষ সেটা খেয়াল করতে হবে।
৭। টাকা আয়: এটাই সবচেয়ে বেশী গুরুত্বপূর্ন। আপনি যার থেকে সাইট কিনছেন। সে কিভাবে ইনকাম করত। যে সকল পদ্ধতি ব্যবহার করতে তা আপনার জন্য সুবিধাজনক কিনা এবং যে পেমেন্ট গেটওয়ে ব্যবহার করতে তা আমাদের দেশে সুবিধাজনক কিনা সেটা দেখতে ভুববেন না।

আসসালামুআলাইকুম । সবাই ভাল থাকার জন্য দুওয়া করি। আমি আপনাদের কাছে বাংলাদেশ এর সকল সরকারী ওয়েব সাইট এর লিংক শেয়ার করব। আপনারা ভাববেন এত কিছু থাকতে এইটা নিয়ে টিউন কেন। কারন হচ্ছে । আমরা বিভিন্ন কাজে , বিভিন্ন কিছু করতে ,বিভিন্ন কাগজ পত্র এর মাদ্দমে বিভিন্ন ব্যবসা বা কাজ করার জন্য অনুমোদন প্রয়োজন, বিভিন্ন ইনফর্মেশন, ইত্যাদি কাজ করার জন্য এই ওয়েব সাইট মোটা মোটি সকল তথ্য দেওয়া আছে । না থাকলে এই ওয়েব সাইট এ তাদের সাথে যোগাযোগ করার জন্য ব্যবস্তা আছে ।যোগাযোগ করতে পারেন।

http://www.bangladesh.gov.bd/

http://www.hrexport-baira.org/

http://www.bangladesh-bank.org/

http://www.banbeis.org/index-1.html

http://www.bangladesh.gov.bd/mos/bcsa/index.htm

http://www.bccbd.org/

http://www.epzbangladesh.org.bd/

http://www.bangladesh.gov.bd/mofl/fri/index.htm

http://www.bforest.gov.bd/

http://www.bfri.gov.bd/

http://www.bangladesh.gov.bd/

http://www.bdhajjinfo.org/

http://www.bangladesh.gov.bd/bjri/index.htm

http://www.bangladeshmuseum.org/

http://www.petrobangla.org/

http://www.boesl.org.bd/

http://www.parjatan.org/

http://www.bd-energysector-bpi.org/

http://www.bpatc.org/

http://www.bangladesh.gov.bd/bpscs/index.htm

http://www.railway.gov.bd/

http://www.brta.gov.bd/

http://www.brtc.gov.bd/

http://www.sparrso.ohttp:/

http://www.boibd.org/

Ministry of Food and Disaster Management

Ministry of Foreign Affairs

Ministry of Information

Ministry of Textiles and Jute

Ministry of Women and Children Affairs (MWCA)

National Board of Revenue (NBR)

National Data Bank

Parliament Secretariat

Power Development Board

President’s Office

Prime Minister’s Office

Free Online TV

সবাই ভাল থাকবেন।


সালাম ও শুভেচ্ছা জানিয়ে শুরু করছি। আশাকরি সকলে ভালো আছেন। আমরা ইন্টারনেটে প্রতিদিন প্রচুর পরিমানে বিভিন্ন এক্সটেনশনের ডোমেইন নেম দেখে থাকি যেমন: .com, .net ইত্যাদি আবার কিছু কিছু ডোমেইন নেম দেখা যায় এমন .com.bd । আজকে আমি এই ডোমেইনের প্রভেদ নিয়ে আলোচনা করব।

মনে করি, amartunes.com একটি ডোমেইন নেম। (.)এর পরে যে অংশটি দেখা যাচ্ছে সেটি হল টপ লেভেল ডোমেইন এটি দেখে সহজেই বোঝা যায় যে প্রতিষ্ঠান টি কোন ধরনের। এখানে যেটি দেখানো হয়েছে সেটির (.)এর পরে আছে com অর্থাত প্রতিষ্ঠানটি কমার্শিয়াল। এই টপ লেভেল ডোমেইন কে দুই ভাগে ভাগ করা যায় যথা:

১. জেনেরিক (amartunes.com)
২. কান্টি (amartunes.com.bd)

কিছু জেনেরিক টপলেভেল ডোমেইন এবং প্রকৃতি দেখে নিন:
.com (কমার্শিয়াল)
.info (তথ্যসমূহ)
.mobi (মোবাইল কন্টেন্ট)
.gov (রাষ্ট্রীয়)
.mill (মিলিটারি-মার্কিন সেনাবাহিনীর জন্য সংরক্ষিত)
.edu (শিক্ষা প্রতিষ্ঠান)
.net (নেটওয়ার্ক সার্ভিস)
.org (অর্গানাইজেশন)
.int (আন্তর্জাতিক সংস্থা)

কিছু টপলেভেল কান্ট্রি ডোমেইন এবং প্রকৃতি দেখে নিন:
ar (আর্জেন্টিনা)
au (অস্ট্রেলিয়া)
bd (বাংলাদেশ)
bt (ভুটান)
cn (চীন)
eg (মিসর)
id (ইন্দোনেশিয়া)
in (ইন্ডিয়া)
jp (জাপান)
lk (শ্রীলঙ্কা)
my (মালয়েশিয়া)
nl (নেদারল্যাণ্ড)
pk (পাকিস্তান)
sa (সৌদি আরব)
th (থাইল্যান্ড)
tr (তুরস্ক)
uk (যুক্তরাজ্য)
us (যুক্তরাষ্ট্র)
zw (জিম্বাবুয়ে)

আশাকরি এখন থেকে আর আমাদের ডোমেইন চিনতে খুব বেশি সমস্যা হবে না। ধন্যবাদ।


250px-2011_Cricket_World_Cup_Logo.svg_সবচেয়ে কম স্পিড এ IPL , BPL এর খেলা অনলাইন এ দেখুন Free Online TV তে ।

আমি অনলাইন এ খেলা দেখার জন্য একটি ওয়েবসাইট বানিয়েছিলাম ।

তারপর আমার বন্ধুদের অনুরধে অনলাইন এ বিভিন্ন টিভি CHANNEL দেখার জন্য আরেকটি ওয়েবসাইট বানাই ।

ফ্রি অনলাইন টিভি ওয়েবসাইটি : http://www.freeonlinetv.info

“ TECH SPACE BD ” এ এই প্রথম প্রকাশ করছি ।

আমার এই ওয়েবসাইট এর সুবিধা হল যাদের ডাউনলোড স্পিড ২০ কেবিপিএস তারা কোন রকম আটকানও ছাড়া ই খেলা দেখতে পারবে ফুল স্ক্রিন এ ।

তাই যারা অনলাইন এ খেলা দেখতে ভালবাসেন তারা এখনি ভিজিট করুন আমার অনলাইন টিভি তে। ধন্যবাদ সবাইকে ।


অনেকেই আছেন আইপি হাইড করে ব্রাউজ করেন। অনেকেই সফটওয়্যার ব্যাবহার করেন যা কিনা কিনতে হয়, ক্র্যাক ব্যাবহার করে করতে হয়। তারপর, তা কার্যকরী কিনা তা নিয়ে ও সন্দেহ থেকে যায়।

কিছুদিন আগে একটি সফটওয়্যারের টরেন্ট খুজবার জন্য একটি সাইটে যাই। সেখানে অপশন ছিল “anonymous download”. ক্লিক করলাম, দেখি আমাকে   .exe ডাউনলোড/ইন্সটল করতে প্রম্পট আসলো। করলাম, তবে, আপনারা এন্টি-ভাইরাস চালু রেখে তা করবেন। এতে এক ধরণের Adware রয়েছে।

সাইট থেকে সরাসরি ডাউনলোড করতে চাইলে, http://privitize.com/ ভিসিট করুণ। তবে, ডাউনলোড করার সময় এন্টি-ভাইরাস ডি-এক্টিভেট করে নিন।

বিস্তারিত জানতেঃ http://privitize.com/about ভিসিট করুণ।

তারপর, PrivitizeVPN Connect করলাম।

এখন, কতটা কার্যকরী তা যাচাই করার জন্য http://whatismyipaddress.com/ ভিসিট করলাম। দেখলাম সত্যিই কার্যকরী। তবে, টরেন্ট ফাইল ডাউনলোড করার সময় সেই সিড/স্পীড/বেন্ড-উইথ পাইনি।

আপনি ইচ্ছে করলে Disconnect করে রাখতে পারেন।


ক্লাস ৯-১০ এর মেয়ের কথা, আমার একটা বয়ফ্রেন্ড থাকতেই হবে , নাহলে আমি স্মার্ট না ; ক্লাসের ফাকে তারা এক আরেক জনের সাথে গর্ব করে তার কয়টা বয়ফ্রেন্ড , কার কার সাথে কবে কবে ডেটিং এ গেসে……… এটা কিনা এই পিচ্চি মেয়েদের গর্বের বিষয়………। ক্লাস ৬ এর একটা ছেলে যদি পর্ণ না দেখে , তাকে বলা হয় সে কোন যুগে আছে ? টাকার লোভে এইসব কচি কচি ছেলে মেয়েদের হাতে পর্ণ তুলে দিচ্ছে অসাধু পর্ণ ব্যাবসা য়ীরা । প্রতিদিন ২.৫ কোটি টাকা এসব ছেলে মেয়েদের কাছে ২.৫০ কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে ওরা । ক্লাস ৮-৯ এর এইসব ছাত্র-ছাত্রীদের ১/ ৮২% শতাংশই মোবাইলে পর্ণ ছবি দেখে ২/ ক্লাসে বসেই পর্ণছবি দেখে ৬২ শতাংশ ৩/ ৭৮% গড়ে কমপক্ষে ৮ ঘণ্টা ব্যয় করে মোবাইলে ৪/ ৪৪% শতাংশ প্রেমের উদ্দেশ্যে ব্যাবহার করে সময় টিভির ক্যামেরায় এইসব তথ্যই উঠে আসে ( https://www.facebook.com/v/386797358074903 ফেসবুক থেকে সংগৃহীত ,দেখুন ৭ মেগাবাইটের এই ভিডিও তে ) [[ share it ]]

 


baby_at_computerআপনার কম্পিউটারে নির্দিষ্ট কিছু ওয়েবসাইট যেন না খোলে সে ব্যবস্থা আপনি সহজেই করতে পারেন।এ জন্য অনাকাঙ্ক্ষিত সাইট ব্লক করতে হবে।ছোট্ট একটা ফাইল সম্পাদনা করেই এ কাজটি করা যায়। কম্পিউটারে নোটপ্যাড খুলুন।ফাইল থেকে ওপেনে ক্লিক করুন। নিচে Files of type থেকে All files নির্বাচন করুন।এবার C:/WINDOWSystem32/drivers/etc ফোল্ডারটি খুঁজে বের করুন।HOSTS ফাইলটি খুলুন। নিচে দেখুন একটা লাইন আছে এমন ‘127.0.0.1 localhost’। এর নিচে লিখুন 127.0.0.2 www.shamim.com ( যে সাইট ব্লক করতে চান) এবং সেভ করুন।তাহলে ওই সাইটটি ব্লক হয়ে যাবে এবং আপনার কম্পিউটার থেকে আর কেউ এটায় যেতে পারবে না।
অনেকগুলো সাইট ব্লক করতে চাইলে একইভাবে শুধু 127.0.0.1 এর জায়গায় 127.0.0.2 দিন, আরও করতে চাইলে 127.0.0.3 লিখে সাইটের পুরো ঠিকানা লিখবেন। আনব্লক করতে চাইলে ব্লক করার জন্য যে লাইনটা লিখেছিলেন, সেটা মুছে দিয়ে ফাইলটি সেভ করলেই চলবে।


ব্রাউসার যুদ্ধ:

প্রতিদিন, প্রতিক্ষণে আমরা ইন্টারনেট ব্যবহার করছি। ভিডিও বা ছবি দেখছি, গান ডাউনলোড করছি। ইন্টারনেট এখন আমাদের প্রাত্যহিক জীবনের এক অবিচ্ছেদ্য অংশ। কিন্তু কতজন ভেবে দেখেছি বা অন্ততঃ জানার চেষ্টা করেছি এই ইন্টারনেটের আদি অবস্থা সম্পর্কে? কতজনই বা জানি ইন্টারনেটের ইতিহাস সম্পর্কে?

৯০’ এর দশকের গোড়ার দিকে কথা। তখনকার ইন্টারনেট আজকের ইন্টারনেটের থেকে ছিলো পুরোপুরি ভিন্ন। তখনকার ইন্টারনেট ছিলো মূলতঃ একটি গবেষণাধর্মী নেটওয়ার্ক যা বছর কয়েক আগে ব্রিটিশ বিজ্ঞানী টিম বার্নার্স লি উদ্ভাবন করেছিলেন। ওই সময় ওয়েবসাইটের সংখ্যা ছিলো হাতে গোণা। আর যাও বা ছিলো তাতে ছিলো শুধু লাইনের পর লাইন বিরক্তিকর গবেষণাধর্মী লেখা। একান্তই “গিক” (Geek-টেকনোলজি বিষয়ক আঁতেল) না হলে কেউ সেই সময়কার ইন্টারনেট নিয়ে মাথা ঘামাতো না। সৌভাগ্যবশত সেরকমই কিছু গিকদের মধ্যে দু’জন ছিলেন ইলিনয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্সের ছাত্র মার্ক এন্ড্রিসেনএরিক বিনা
Nafis Iftekhar 1226144738 1 vlcsnap 90957 ইন্টারনেটের ইতিহাস না জানলে দেখতে পারেন
মার্ক এন্ড্রিসেন

এন্ড্রিসেন ও এরিক বিনা সেই সময়ই কল্পনা করেছিলেন এমন একদিন আসবে যেদিন (বিস্তারিত…)