Archive for the ‘টেকবিশ্ব’ Category


প্রতিদিনের কাজের তালিকাটা অনেকের অনেক লম্বা। এত সব কাজের মাঝে অনেক সময় প্রয়োজনীয় কাজটির কথা মনে থাকে না। আর যারা ভুলোমনা টাইপের মানুষ তাদের বিষয়ে তো কথাই নেই। যথাসময়ে কাজের কথা ভুলে যান সহজেই। ফলে অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজ সঠিক সময়ে করা হয় না। তবে স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের সহায়তায় রয়েছে কিছু অ্যাপস।

স্মার্টফোনে দৈনন্দিন পরিকল্পনাগুলোকে সাজিয়ে রাখলে তা মনে করিয়ে দেবে কখন কোন কাজটি করতে হবে? কেমন হবে তখন? কাজের তালিকা তৈরির জন্য অ্যান্ড্রয়েড এবং আইওএসের রয়েছে অনেক অ্যাপস। এগুলোর মধ্যে থেকে সবচেয়ে জনপ্রিয় ৫টি অ্যাপস নিয়ে এ প্রতিবেদন।

 

এ্যানি ডু (any.do)

 

লাখো ব্যবহারকারী প্রতিদিন তাদের কর্মপরিকল্পনার জন্য এ্যানি ডু অ্যাপ ব্যবহার করেন। এটির ডিজাইন খুব সুন্দর এবং ব্যবহার করা খুব সহজ।

 

Any.DO-iPhone_techshohor

 

এ্যানি ডু অ্যাপে রয়েছে ক্লাউড সুবিধা। এতে তালিকায় থাকা কাজগুলো মেইল আইডি এবং ফেইসবুকের সাহায্যে সিনক্রোনাইজ করা যাবে। ফলে অন্য কোনো ডিভাইস থেকে সিনক্রোনাইজ করলে পাওয়া যাবে কাজের ফর্দ। কর্মপরিকল্পনার সময় ঠিক করে রাখলে নির্দিষ্ট সময়ে তা এ্যালার্ম দিয়ে জানিয়ে দেবে।

 

এটি অ্যান্ড্রয়েড ও আইওএস অপারেটিং সিস্টেমের জন্য ফ্রি ডাউনলোড করে ব্যবহার করা যাবে।
এখান থেকে অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারীরা ডাউনলোড করে ব্যবহার করতে পারবেন।

 

রিমেমবার  দ্যা মিল্ক (Remember the Milk) (বিস্তারিত…)

Advertisements

ছবি তোলার পর সেটিকে আরও সুন্দরভাবে ফুটিয়ে তুলতে হাল আমলে এফেক্ট যোগ করা হচ্ছে হামেশ্ই। ছবিতে নিত্য নতুন ইফেক্ট যুক্ত করার প্রবণতা বাড়ছে। তবে এ জন্য কম্পিউটার বা সফটওয়্যারে এক্সপার্ট হওয়ার প্রয়োজন নেই। একটি অ্যাপ ব্যবহার করেই এ কাজটি করা যাবে খুব সহজেই।

ছবিতে ইফেক্ট যোগ করতে অ্যান্ড্রয়েডের রয়েছে নানা অ্যাপস। এত সব অ্যাপসের মধ্যে ভাল একটি অ্যাপস খুঁজে পাওয়া একটু কঠিন বৈকি। অনেকগুলোর মধ্যে থেকে বাছাই করে ব্যবহার করা যেতে পারে জেনরেট্রো (XnRetro)। ছবিতে ইফেক্ট যুক্ত করার জন্য এটি চমৎকার একটি অ্যাপ। এতে রয়েছে দারুণ এবং সুন্দর অনেকগুলো ইফেক্ট। যে ইফেক্টগুলো ব্যবহার করলে ছবি আগের থেকে আকর্ষণীয় হবে।

app-xnretro-512

অ্যাপটির ফিচারগুলো হলো- (বিস্তারিত…)


বিশ্ববিদ্যালয়ের রঙ্গীন দিনগুলোর গল্প, মজাদার কাহিনী, ভাল ও খারাপ লাগা অনুভূতির স্মৃতিচারণ মূলক লেখার একটি অ্যাপ উম্মুক্ত করা হয়েছে।

ইউনিভার্সিটি লাইফ বাই সরব.কম নামের অ্যাপটিতে উঠে এসেছে ১৮ জন ব্লগারের বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের দিনগুলো।

shrobapps_techshohor

সম্প্রতি অ্যাপটি প্রকাশের আগে বিভিন্ন  ব্লগারদের কাছ থেকে লেখা সংগ্রহ করা হয়। এরপর অনেক লেখা থেকে বাছাই করা ১৮টি নিয়ে একটি ই-বুক প্রকাশ করা হয়েছিল।

ই-বুক প্রকাশের পর এটি অ্যাপ আকারে গুগল স্টোরে প্রকাশ করা হয়।

অ্যাপটির মাধ্যমে নির্বাচিত বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের দারুণ সব গল্পগুলো সহজে পড়া যাবে। অ্যাপটির ওপরে একটি মেন্যু রয়েছে যেখান থেকে প্রথম পাতা, সম্পাদকীয়, বইটির সর্ম্পকে এবং সূচী দেখা যাবে। কিভাবে অ্যাপটি ব্যবহার করতে হবে সেজন্য রয়েছে ‘ইউজার গাইড’।

অ্যাপটি সর্ম্পকে সরব.কমের সমন্বয়কারী নুরউদ্দিন আহমেদ বাপ্পি বলেন, ‘সরব উদ্ভাবনে বিশ্বাস করে। গত ৬/৭ বছরে বাংলা ব্লগাররা নতুন তাদের বক্তব্য, আইডিয়া, গল্প  মানুষের কাছে পৌঁছে দিয়েছেন। সরব সেদিকে একটু বেশি সক্রিয়। এক মহৎ  রিকশাচালকের হাসপাতাল তৈরির ওপর ব্লগ থেকে শুরু করে রবিঠাকুর এবং বাংলাদেশের মিডিয়ার ওপর ইনফোগ্রাফিক প্রকাশ করেছে সরব।

বাপ্পি জানান, বাংলা ভাষায় প্রথম গণিতের ওপর ই-বুক এর পাশাপাশি এবার সরব বিশ্ববিদ্যালয়ের জীবনের গল্প নিয়ে ই-বুক তৈরি করেছে। সরব তারুণ্যের প্ল্যাটফর্ম। আর তরুণদের কাছে পৌঁছানোর সহজ উপায় মোবাইল ফোন। তাই মোবাইল অ্যাপ আকারে ই-বুকটা প্রকাশ করা হয়েছে।

অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমচালিত স্মার্টফোনের ব্যবহারকারীরা ১.৬৩ মেগাবাইটের অ্যাপটি এখান থেকে ডাউনলোড করতে পারবেন।


যুগের সাথে তাল মিলিয়ে বই পড়ার মাধ্যমও বদলে যাচ্ছে। কাগজের মলাটে বাঁধাই করা বইয়ের পাশাপাশি এখন ই-বুক বা ডিজিটাল বুকও জনপ্রিয় হয়ে ঊঠছে। এরই প্রেক্ষিতে দেশের অন্যতম মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান মোবিওঅ্যাপ তৈরি করেছে ‘বই পোকা’ নামে একটি ডিজিটাল বুক রিডিং অ্যাপ্লিকেশন।

পাঠকরা আইফোন এবং অ্যান্ড্রয়েডের সকল স্মার্ট ডিভাইসে বিনামূল্যের এই অ্যাপ্লিকেশনটি ব্যবহার করে বই পড়তে পারবেন। এতে কালজয়ী সব ক্লাসিক বই দেওয়া আছে। পাঠকরা সেগুলো বিনামুল্যে পড়তে পারবেন।

Boipoka-TechShohor

এছাড়াও একজন পাঠক জনপ্রিয় সব লেখকের বই অ্যাপ্লিকেশনটির ‘ইন-অ্যাপ পারচেজ’ ফিচারটির মাধ্যমে খুব সহজেই কিনে পড়তে পারবেন। পাঠকদের বই পড়ার অভিজ্ঞতাকে নতুন মাত্রা দিতে অ্যাপ্লিকেশনটিতে রয়েছে বুকমার্ক, হাইলাইটার, আন্ডারলাইন, অ্যানোটেশন, পেইজ জাম্প, বুক রেটিংয়ের মতো কার্যকর সব ফিচার।

অ্যাপটি ব্যবহারকারীরা তাদের নিজস্ব পিডিএফ বইয়ের সংগ্রহও খুলতে পারবেন। তারা বইয়ের কোন একটি পছন্দের অংশ সোশ্যাল শেয়ার ফিচারের মাধ্যমে সামাজিক যোগাযোগের সাইটগুলোতে বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করতে পারবেন।

প্রকাশক এবং লেখকদের মেধাসত্ত্ব ও রয়্যালটি রক্ষার্থে এবং পাইরেসি রোধকল্পে নির্মাতা প্রতিষ্ঠান মোবিওঅ্যাপ নিজস্ব পিডিএফ রিডার তৈরি করে অ্যাপলিকেশনটিতে ডিজিটাল রাইট ম্যানেজমেন্ট (ডিআরএম), দুই স্তরের নিরাপত্তা এবং এনক্রিপশনের ব্যবস্থা করেছে।

২১শে বইমেলা উপলক্ষে বই পোকা অ্যাপ থেকে ডিজিটাল বই ৬০ থেকে ৬৫ শতাংশ ছাড়ে কিনতে পারবেন বাংলা একাডেমী প্রাঙ্গনে বইমেলার ৫১৩ নাম্বার স্টল থেকে।

‘বই পোকা’ অ্যাপটি এই লিংক থেকে ডাউনলোড করা যাবে।


দুর্ঘটনার কোনো সময় অসময় নেই। তাই সব সময় প্রস্তুত থাকা ভালো। এ ক্ষেত্রে হাতের স্মার্টফোনটিও কাজে আসতে পারে। যদি প্রাথমিক চিকিৎসার জন্য ফার্স্ট এইড অ্যাপটি নামানো থাকে।

দুর্ঘটনার পরপর আহত ব্যক্তিকে নিকটের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার আগে প্রয়োজন প্রাথমিক চিকিৎসার। ফার্স্ট এইড অ্যাপটি সে সময় জানিয়ে দেবে রোগীর জন্য কি ধরনের প্রাথমিক চিকিৎসা প্রয়োজন।

চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ করার আগে অ্যাপটির ব্যবহার বেশ উপকারে আসবে। দুর্ঘটনা ছাড়াও অন্যান্য রোগের সমন্ধে প্রাথমিকভাবে জানতেও সাহায্য করবে এটি। দারুণ কাজের এ অ্যাপটির সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিতে এ প্রতিবেদন।

First-aid-android-logo_techshohor

বিশ্বব্যাপী অ্যাপটি বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে। এখন পর্যন্ত দশ লাখ বার ডাউনলোড করা হয়েছে। গুগলের প্লেস্টোরে অ্যাপটির রেটিং ৪.৫। সাইজ ৩.৪ মেগাবাইট।

এক নজরে অ্যাপটির ফিচারগুলো
১. এতে রয়েছে স্বাস্থ্য বিষয়ক নানা ট্রিপস।
২. জরুরী নম্বরে কল করার ব্যবস্থা রয়েছে।
৩. প্রাথমিক রোগ সনাক্তেও সাহায্য করবে এটি। রোগীকে অসুস্থতার ধরণ সর্ম্পকে প্রশ্ন করে এর উওর দেওয়ার মাধ্যমে তা সনাক্ত করা যায়।
৪. বিভিন্ন ধরনের রোগের প্রাথমিক চিকিৎসা সর্ম্পকে বিস্তারিত ছবিসহ  বর্ণনা দেওয়া আছে।

firstaid_techshohor

৫. অ্যাপটিতে রয়েছে বিভিন্ন ওষুধের নাম।
৬. বিভিন্ন রোগের কারণ সর্ম্পকে তুলে ধরা হয়েছে এবং প্রতিকারগুলো সুন্দরভাবে তুলে ধরা হয়েছে।

এখান থেকে অ্যাপটি বিনামূল্যে ডাউনলোড করে ব্যবহার করা যাবে।


স্বাস্থ্য সেবায় প্রযুক্তির ব্যবহার বহুল প্রচলিত। ইদানিং স্মার্টফোনের মাধ্যমেও মিলছে স্বাস্থ্যের বিভিন্ন সেবা। নতুন নতুন ডিভাইস ও অ্যাপ ভূমিকা রাখছে এ ক্ষেত্রে। তেমনি একটি ডিভাইস ও অ্যাপ হলো এলাইভইসিজি।

স্মার্টফোনে এটি ব্যবহার করা হলে এখন আর রোগীকে রিপোর্ট দেখানোর জন্য চিকিৎসকের চেম্বারে শশরীরে যেতে হবে না। স্মার্টফোনটিই এখন হৃদকম্পন পরিমাপ করে তা স্বয়ংক্রিয়ভাবে পাঠিয়ে দিবে চিকিৎসকের কাছে।

alivecor

প্রযুক্তিবিদ ও চিকিৎসকরা এ প্রযুক্তিকে স্বাস্থ্য সেবায় যুগান্তকারী পদক্ষেপ হিসাবে দেখছেন। হাতে পরিধানযোগ্য এ ডিভাইসের মাধ্যমে স্মার্টফোনে থাকা এলাইভইসিজি নামের অ্যাপটি প্রতিনিয়ত হৃদকম্পন রেকর্ড করবে। http://adf.ly/eEH1d

এরপর অ্যাপটি রেকর্ড করা ডাটাবেস থেকে তথ্য বিশ্লেষণ করে কোনো সমস্যা থাকলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ই-মেইলের মাধ্যমে তা চিকিৎসকের কাছে পাঠিয়ে দেবে। ফলে চিকিৎসক রেকর্ড দেখে চিকিৎসার নির্দেশনা দিতে পারবেন।

এর ফলে রোগীকে কষ্ট করে হাসপাতালে চিকিৎসকের চেম্বারে যেতে হবে না। ঘরে বসেই চিকিৎসা সেবা পাওয়া যাবে। রোগী ও চিকিৎসক উভয়ের সময় সাশ্রয় হবে।

৫৭  বছর বয়সী উত্তর ক্যারোলিনার বাসিন্দা ই বি ফক্স গত বছরের অক্টোবর থেকে ডিভাইসটি ব্যবহার করছেন। তিনি জানান, এখন তাকে কষ্ট করে চিকিৎসকের কাছে যেতে হয় না। একটি ই-মেইলের মাধ্যমেই চিকিৎসার দিক নির্দেশনা পাচ্ছেন তিনি।

স্মার্টফোনের মাধ্যমে স্বাস্থ্যসেবা খাতেও নতুন দিগন্ত উন্মোচিত হয়েছে নতুন এ প্রযুক্তির মাধ্যমে।


অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারীদের জন্য স্মার্টফোনটি সঠিকভাবে চালাতে বেশ কিছু সাহায্যকারী অ্যাপ আছে। কিছু অ্যাপ আছে যেগুলো মেমোরি ক্লিনার হিসেবে ব্যবহার করা হয়। এগুলো ব্যবহার করা হলে স্মার্টফোনের গতি কিছু হলেও বৃদ্ধি পায়। অপ্রয়োজনীয় অ্যাপ বন্ধ রাখে ফলে ব্যাটারি চার্জ ক্ষয় কম হয়। সে রকম একটি চমৎকার অ্যাপ অ্যান্ড্রয়েড অ্যাসিস্ট্যান্ট।

অ্যাপটি ফাইল ম্যানেজার হিসেবে ব্যবহার করা যাবে। একই সাথে প্রয়োজনীয় ফাইল ব্যাকআপ রাখাসহ অনেক কাজ করা যাবে এটির সাহায্যে। এ যেন একেক ভিতর সব।

android_assistent_escreveassim.com_.br_

এক নজরে অ্যাপটির ফিচারগুলো (বিস্তারিত…)


প্রযুক্তির উন্নতির সঙ্গে বাড়ছে স্মার্টফোন ব্যবহার। মুহূতেই অনেক কাজ করে ফেলা যায় নতুন প্রযুক্তির এ ফোনের সাহায্যে। বিশেষ করে বিভিন্ন ধরনের অ্যাপস ব্যবহার অনেক জটিল ও দূরহ বিষয়কেও সজহ করেছে। এরই ধারাবাহিকতায় তৈরি হয়েছে শিক্ষামূলক বিভিন্ন অ্যাপস। তেমনি একটি অ্যাপ নামাজ শিক্ষা।

মুসলিম ধর্মের এ অত্যাবশ্যকীয় ইবাদত প্রতিপালনের বিষয় স্মার্টফোনের মাধ্যমে শেখাতে বাংলা অ্যাপটি তৈরি করা হয়েছে। নামাজ পড়ার নিয়মকানুন, নামাজের সময়, বিভিন্ন সূরা এবং দোয়া সম্পর্কে এতে তুলে ধরা হয়েছে।

imagesএক নজরে অ্যাপটির ফিচারগুলো
১. পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের (বিস্তারিত…)


এবার পুরো রাজধানী ঢাকার জন্য আনুষ্ঠানিকভাবে ‘ডিএমপি’ অ্যাপ চালু করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে অ্যাপটির উদ্বোধন করেন ডিএমপি কমিশনার বেনজীর আহমেদ।

অ্যাপটির মাধ্যমে ঢাকার সকল থানার ওসি এবং ডিউটি অফিসারের নম্বরসহ পাওয়া যাবে প্রতিটি থানার ঠিকানা এবং ম্যাপ। এই অ্যাপ্লিকেশনটি ব্যবহার করে ঢাকার যে কোন স্থান থেকে আপনি আপনার সবচেয়ে কাছের থানাটি সহজেই খুঁজে বের করতে পারবেন; সেই সাথে গুগল ম্যাপে আপনাকে সেই থানায় যাওয়ার পথও দেখিয়ে দেবে।

মঙ্গলবার দুপুরে উদ্বোধন হলেও সোমবার রাতে এটি চালু হয়। প্রথম রাতেই ‘অ্যাপটি ১৪ হাজার ডিভাইস থেকে ডাউনলোড হয়েছে বলে অনুষ্ঠানে জানানো হয়। ফেইসবুক পেইজের মাধ্যমেও ভালো সাড়া মিলছে বলে জানান ডিএমপি কর্মকর্তারা।

Image

মোবাইল ফোনের মাধ্যমে পুলিশের বিভিন্ন সেবাকে জনগনের আরও কাছে পৌছে দিতে ডিএমপি আনুষ্ঠানিকভাবে চালু করল ‘ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ-ডিএমপি’ নামের এ স্মার্টফোন অ্যাপ্লিকেশন।

উত্তরায় সর্বপ্রথম অ্যন্ড্রয়েডচালিত অ্যাপ্লিকেশন (অ্যাপ) চালু করে ডিএমপি।

বর্তমানে অ্যান্ড্রয়েড প্লাটফর্মের সকল মোবাইল ফোনে (স্যামসাং, ওয়ালটন, সিম্ফনি, এইচটিসিসহ অন্যান্য) এটি ব্যবহার করা যাবে।

নতুন মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনটি চালু (বিস্তারিত…)


image_hjuyuy.thumbnailজুতা থেকে বিদ্যুত উতপাদনের পদ্ধতি বের করেছেন চার ছাত্র। তাদের আবিষ্কৃত জুতা পায়ে হাঁটলে আরামে কেবল পথ চলাই হবে না বরং প্রতি পদক্ষেপে বিদ্যুতও উদপাদিত হবে। এ বিদ্যুত দিয়ে অনায়াসে সেল ফোন, ট্যাবলেট পিসির মতো বহনযোগ্য ইলেক্ট্রনিক যন্ত্রপাতির শক্তি যোগানো যাবে।

তবে এখানেই থেমে যায়নি আমেরিকার হিউস্টনের রাইস বিশ্ববিদ্যালয়ের যন্ত্র-প্রকৌশলী বিভাগের এই চার ছাত্র। তারা বলছেন, এ জুতার কল্যাণে ভবিষ্যতে জীবন রক্ষার কাজে ব্যবহৃত যন্ত্রপাতিরও শক্তি যোগান সম্ভব হবে। টেক্সাস মেডিক্যাল সেন্টারের অন লাইন সংবাদে এ খবর প্রকাশিত হয়েছে।

এ চার ছাত্রের নাম হলো, ক্যারিয়োস আর্মাডা, জুলিয়ান কাস্ত্রো, ডেভিড মোরিল্লা এবং টেইলার ওয়েস্ট। এর আগে জুতা থেকে বিদ্যুত তৈরির চেষ্টা হয়েছে এবং এ জন্য হাঁটুর গতিকে ব্যবহার করা হয়েছে। কিন্তু এ চার ছাত্র এর বদলে পাকে বেছে নেন। তারা দেখতে পান হাঁটার সময় সবচেয়ে শক্তি প্রয়োগ করা হয় পায়ের গোড়ালিতে। সুতরাং বিদ্যুত তৈরির জন্য পায়ের এ অংশকেই বেছে নিলেন তারা। বিদ্যুত তৈরির যন্ত্র বসালেন জুতার গোড়ালিতে।

এ ভাবে তৈরি হলো পেডআইপাওয়ার নামের বিদ্যুত উতপন্নকারী জুতা। ৪০০ মিলিওয়াট বিদ্যুত উতপন্ন করে এ জুতা। এ বিদ্যুত তার দিয়ে কোমরে বাধা ব্যাটারি প্যাকে জমা হতে থাকে।
অবশ্য এখনো এ জুতার সব সমস্যার সমাধান হয়ে যায়নি। পরীক্ষামূলক জুতাটি আকারে বেশ বড়। প্রতিদিন পরে ঘোরাফেরা করা যাবে না।

এ ছাত্ররা মনে করছেন, একই বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্য একটি দল আগামী শরতকালে তাদের প্রকল্প হিসেবে এ জুতাকে বেছে নিবেন এবং জুতার সব সমস্যার সমাধান করবে। একই সঙ্গে এ জুতা আটপৌরে কাজের উপযোগী হয়ে উঠবে আর তৈরি হবে বাণিজ্যিক ভাবে।


teeth.thumbnailস্টেম সেল থেকে পড়ে যাওয়া দাঁত গজানো সম্ভবনতুন দাঁত গজানোর নতুন একটি কৌশল উদ্ভাবন করেছেন চীনা গবেষকেরা। মূত্র থেকে প্রাথমিক দাঁত গজানোর এ গবেষণার ফল প্রকাশিত হয়েছে ‘সেল রিজেনারেশন জার্নাল’-এ।

চীনের গবেষকেরা দাবি করেছেন, মূত্রকে স্টেম সেলের উৎস হিসেবে ব্যবহার করে প্রাথমিক দাঁত গজানো সম্ভব। যাঁদের দাঁত পড়ে গেছে তাঁদের জন্য এ উদ্ভাবন সুসংবাদ হতে পারে বলে তাঁরা ধারণা করছেন।

মানুষের বয়স বাড়লে এবং দাঁতের যত্ন না করলে দাঁত পড়ে যায়। গবেষকেরা দীর্ঘদিন ধরেই স্টেম সেল ব্যবহার করে নতুন দাঁত গজানোর কৌশল নিয়ে গবেষণা করছিলেন। স্টেম সেল ব্যবহার করে যেকোনো ধরনের কোষকলা তৈরি করা সম্ভব হয়।

চীনের গুয়াংজু ইনস্টিটিউট অব বায়োমেডিসিন অ্যান্ড হেলথের গবেষকেরা মূত্রকে তাঁদের গবেষণার প্রাথমিক ভিত্তি ধরেন এবং তা থেকে স্টেম সেল তৈরি করেছেন।

গবেষকেরা জানিয়েছেন, এ সংক্রান্ত আরও গবেষণা প্রয়োজন। তারপরই কেবল পরীক্ষামূলক পর্যায়ে যাওয়া সম্ভব হবে। অবশ্য মূত্র থেকে দাঁত গজানোর এ গবেষণা বিষয়ে সমালোচনা করেছেন যুক্তরাজ্যের গবেষকেরা। তাঁদের দাবি, এমন একটি উত্স থেকে দাঁত গজানোর গবেষণা করা হয়েছে যা শুরুর পর্যায় হিসেবে খুবই খারাপ।


baby-chick-hello.thumbnailশিগগিরই বাজারে আসছে কৃত্রিম পাউডার ডিম। স্বাদে অবিকল হাঁস-মুরগির ডিমের মতো হলেও এটা আসলে সাদা রঙের গুঁড়ো পাউডার। কৃত্রিম এই পাউডার ডিম তৈরি হয়েছে মটরশুঁটি, শিম প্রভৃতি থেকে।১০ সেপ্টেম্বর যুক্তরাষ্ট্রে ‘বিয়ন্ড এগস’ নামে এ পাউডার ডিম বিক্রি শুরু হয়েছে। শিগগিরই এ ডিম বিশ্বের অন্য দেশগুলোতে রপ্তানির পরিকল্পনা করেছেন ‘বিয়ন্ড এগস’-এর উদ্যোক্তা জস ট্রেটরিক। উদ্ভিদ থেকে ডিম তৈরির এই উদ্যোগে জস ট্রেটরিককে সাহায্য করেছেন পেপলের প্রতিষ্ঠাতা পিটার থায়েল, মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস, সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ার প্রমুখ।

জস ট্রেটরিক কৃত্রিম ডিম সম্পর্কে জানান, বিল গেটস ও পিটার থায়েলসহ অনেকেই কৃত্রিম ডিমের তৈরি বিস্কুট খেয়ে দেখেছেন। আসল ডিমের সঙ্গে এর কোনো পার্থক্য ধরতে পারেননি তাঁরা। এতে কোনো কোলস্টেরল নেই। এ পাউডার ডিম তুলনামূলকভাবে সাশ্রয়ী হবে।

ট্রেটরিকস জানিয়েছেন, ‘খাদ্য-শিল্পে নতুন উদ্ভাবন শুরু হয়ে গেছে। প্রাণীর ওপর থেকে নির্ভরতা কমাতে এই উদ্ভাবনের বিকল্প নেই। তবে, এক্ষেত্রে আরও গবেষণা ও কাজ বাকি বলে মনে করছেন তিনি। উন্নয়নশীল দেশগুলোতে পুষ্টিকর খাবারের তালিকায় এ ধরনের কৃত্রিম ডিম যুক্ত করা যায় কিনা তা নিয়ে ভাবতে শুরু করেছেন তিনি।


it1.thumbnailপাসওয়ার্ডগুগলের তথ্য নিরাপত্তা ব্যবস্থাপক হিদার অ্যাডকিনসের মতে, পাসওয়ার্ডের যুগ শেষ হয়ে গেছে।

অকেজো হয়ে যাচ্ছে পাসওয়ার্ড ব্যবস্থা।

ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর তথ্য নিরাপত্তায় এখন পাসওয়ার্ডের বিকল্প ভাবার আর কোনো বিকল্প নেই।

প্রযুক্তি বিষয়ক ওয়েবসাইট টেকক্রাঞ্চ আয়োজিত এক সম্মেলনে পাসওয়ার্ডের নিয়ে এমনই ভবিষ্যদ্বাণী করেন হিদার।

হিদার জানিয়েছেন, এখন নতুন উদ্যোক্তাদের পাসওয়ার্ডের বাইরে ভাবার সময় এসেছে। কারণ, ‘পাসওয়ার্ড এখন মৃত’।

তথ্যের নিরাপত্তায় এমন নিরাপত্তা ব্যবস্থা উদ্ভাবন করতে হবে যা দুর্বৃত্তরা কখনও হাতিয়ে নিতে না পারে।

হিদার আরও জানান, সার্চ জায়ান্ট গুগল পাসওয়ার্ডের বিকল্প ব্যবস্থা উদ্ভাবনে কাজ করছে। এরমধ্যে রয়েছে হার্ডওয়্যার টোকেন, উলকি ও পিল জাতীয় বিকল্প ব্যবস্থা।

হিদারের মতে, নতুন কোনো প্রযুক্তি-প্রতিষ্ঠান শুরুর আগে অবশ্যই তথ্যের নিরাপত্তা নিয়ে ভাবা উচিত। প্রতিষ্ঠানের তথ্য নিরাপত্তার সার্বক্ষণিক দায়িত্ব কমপক্ষে ২৫ ব্যক্তির ওপর থাকা প্রয়োজন।

পাসওয়ার্ডের বিকল্প হবে উলকি, পিল

যাঁদের পক্ষে পাসওয়ার্ড মনে রাখা কষ্টকর, তাঁদের জন্য গুগল তৈরি করছে বিশেষ ধরনের ইলেকট্রনিক উলকি আর পিল। এ উলকি শরীরে লাগিয়ে রাখতে পারবেন বা বিশেষ পিল সেবন করলে এগুলো পাসওয়ার্ড হিসেবেই কাজ করবে।

গুগলের অধীনস্থ মটোরোলা এই ইলেকট্রনিক ট্যাটু বা উলকি আর বিশেষ ধরনের পিল বাজারে আনতে কাজ করছে। বিশেষ এ উলকি ত্বকের ওপর আঁঁকা এক ধরনের সার্কিটের মতো। এতে কোনো ব্যাটারির প্রয়োজন পড়বে না।

ইলেকট্রনিক উলকির পাশাপাশি বিশেষ ধরনের ইলেকট্রনিক পিল বা বড়ি তৈরিতেও কাজ করছে গুগল। এ পিলটি খেলে মানুষের শরীর থেকে বিশেষ তরঙ্গ নির্গত হবে যা শনাক্ত করতে পারবে স্মার্টফোন। এ পিল শরীরের জন্য ক্ষতিকারক হবে না।

আইফোনে এল ফিঙ্গারপ্রিন্ট প্রযুক্তি

প্রযুক্তিপণ্য নির্মাতাপ্রতিষ্ঠানগুলো পাসওয়ার্ড ব্যবস্থার উন্নয়ন নিয়ে নানা গবেষণা করছে। প্রচলিত সংখ্যা পদ্ধতির পাসওয়ার্ড ব্যবস্থার বিকল্প হিসেবে অ্যাপল কর্তৃপক্ষ আইফোনের নতুন সংস্করণে ফিঙ্গারপ্রিন্ট প্রযুক্তি এনেছে। আইফোনে এ প্রযুক্তি আনতে ২০১২ সালে অথেনটেক নামের একটি প্রতিষ্ঠান কিনেছিল অ্যাপল। ১০ সেপ্টেম্বর ঘোষিত আইফোনের নতুন মডেলের সঙ্গে ফিঙ্গারপ্রিন্ট শনাক্তকারী সেন্সরযুক্ত করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

গবেষকেরা জানিয়েছেন, চোখের আইরিশ স্ক্যান ও কণ্ঠস্বর শনাক্তকরণ প্রযুক্তিকেও পাসওয়ার্ড ব্যবস্থা হিসেবে পরিচিত করার জন্য কাজ করছে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান।


atm-booth.thumbnailবাংলাদেশে ব্যাংকের পাশাপাশি এখন এটিএম বুথের চাহিদাও আগের তুলনায় অনেক বেড়ে গেছে এবং পর্যায়ক্রমে দিনে দিনে তা আরো বাড়তে থাকবে। যে বুথ থেকে প্রয়োজন মতে যখন ইচ্ছা তখন টাকা তুলা যায়। এটিএম বুথের গ্রাহক সংখ্যা দিন দিন বাড়লেও বুথের সিকিউরিটি গার্ড ছাড়া নিরাপত্তা দেওয়ার মত সেখানে আর কেউ থাকে না। তাই যেকোন মুহুর্তে বিপদগ্রস্থ হতেই পারি। তাছাড়া বাংলাদেশে অপরাধী চক্রের তো কোন অভাব নেই। তাই সঠিক করে বলা যায় না যে, কোন সময় চক্রের আবার এটিএম বুথের দিকে নজর যায়। তাই সব সাবধানতা অবলম্বন করে সাবধান থাকায় ভালো। এটিএম বুথে টাকা তুলতে গিয়ে যদি কোনদিন সন্ত্রাসীদের মুখোমুখি হন তাহলে আপনি কি করবেন? তখন আপনাকে যেটা করতে হবে- কোন অবস্থাতেই সন্ত্রাসীদের সাথে কথা কাটাকাটি করতে যাবেন না। কথা কাটাকাটি করতে গেলে আপনার নিজের বিপদ বাড়বে। কারণ অর্থের চেয়ে জীবনের মূল্য অনেক বেশি। তাই যদি সন্ত্রাসীরা আপনার কাছ থেকে কার্ডের পিন নাম্বার/কোড চাই তাহলে দিয়ে দিন তবে একটু কৌশল অবলম্বন করে দিন! নাম্বারটি যদি ১২৩৪ হয় তবে আপনি বলবেন উল্টো দিক থেকে যেমন- ৪৩২১। এতে যেটা হবে সেটা হচ্ছে টাকা ঠিকই বের হবে কিন্তু মেশিনের ভিতর আটকে থাকবে এবং কন্ট্রোল রুমে সিগন্যাল চলে যাবে যে আপনি বিপদ গ্রস্থ হয়েছেন। এতে করে আপনিও বাঁচলেন আপনার টাকাও। এই ব্যবস্থা বাংলাদেশের সব এটিএম বুথে চালু আছে। শুধু আমরা একটু সচেতন হলেই হলো।


7g.thumbnailসম্প্রতি দুই দল গবেষক আলাদা আলাদাভাবে বামন নক্ষত্র KIC 11442793 কে কেন্দ্র করে ঘূর্ণায়মান সপ্তম গ্রহের সন্ধান পেয়েছেন। আর নতুন এই সৌরজগত দেখতে প্রায় আমাদের সৌরজগতের মতোই। তবে নতুন আবিষ্কৃত এই সৌরজগতের গ্রহগুলো তাদের কেন্দ্রে থাকা নক্ষত্রের অনেক কাছ দিয়ে সেটিকে প্রদক্ষিণ করে। আর আমাদের সৌরজগত থেকে এ সৌরজগতের দূরত্ব মাত্র ২৫০০ আলোকবর্ষ। আর নতুন এই সৌরজগত নিয়ে দুটি গবেষণাপত্র প্রকাশিত হয়েছে Arxiv.org ওয়েবসাইটে।অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রিস লিনটট এই Planet Hunters paper এর লেখকদের একজন। তিনি ও তার দল নতুন সৌরজগত সংক্রান্ত গবেষণা প্রবন্ধ এস্ট্রোনমিক্যাল জার্নালে প্রদান করেন। আবার ইউরোপের কয়েকটি দেশের বিজ্ঞানীদের একটি দল স্বতন্ত্রভাবে নতুন এই সৌরজগতের সপ্তম গ্রহ সংক্রান্ত আবিষ্কার সংক্রান্ত বিষয় আলাদা গবেষণাপত্র প্রকাশ করেন। নতুন এই গ্রহটি তার নক্ষত্র থেকে দূরত্বের দিক থেকে ঐ সৌরজগতে সপ্তম অবস্থানে রয়েছে। আর প্রতি ১২৫ দিনে একবার সেটি এর নক্ষত্রকে প্রদক্ষিণ করে।
ক্রিসের আরেক সহকর্মী রবার্ট সিম্পসন বলেন, “নতুন এই সৌরজগত দেখতে আমাদের সৌরজগতের মতোই। এই সৌরজগতের বাইরের দিকে আছে বড় গ্রহগুলো আর কেন্দ্রে থাকা নক্ষত্রের কাছাকাছি রয়েছে ছোট গ্রহগুলো। সবচেয়ে মজার বিষয় হচ্ছে, আমাদের সৌরজগতের গ্রহগুলো সূর্য থেকে বিভিন্ন দূরত্ব অবস্থিত। কিন্তু নতুন এই সৌরজগতের গ্রহগুলো সবগুলো প্রায় একই দূরত্ব থেকে এদের নক্ষত্রকে প্রদক্ষিণ করছে। যেকারণে এটি খুব ঘনসন্নিবেশিত একটি সৌরজগত।

সেন্ট এন্ড্রুজ বিশ্ববিদ্যালয়ের জ্যোতির্বিদ্যার অধ্যাপক এন্ড্রু কলিয়ার ক্যামেরন বলেন, কিছুদিন আগেই আবিষ্কার হওয়া এই নতুন সৌরজগত আর একের পর এক এর সাতটি গ্রহ আবিষ্কার হওয়ার ঘটনা এটিই প্রমাণ করে, এই সৌরজগত আমাদের জন্য অনেক অনেক নতুন তথ্য জমা করে রেখেছে, যেগুলো হয়তো এখনো আমাদের চোখের আড়ালেই রয়ে গিয়েছে।

ডক্টর ক্রিস লিনটট বিবিস’র ‘স্কাই এট নাইট’ অনুষ্ঠানটিও উপস্থাপন করেন।

সূত্রঃ বিবিসি


image_6048.thumbnailছেলেদের বুকের পশম দিয়ে তৈরী করা হয়েছে জ্যাকেট; এবং তা এখন বিক্রির জন্য বাজারে। নাহ, গল্প নয়, সত্যিই এমনটি হয়েছে ইংল্যান্ডে।

এর মূল্য ২৫০০ বৃটিশ পাউন্ড। নাম দেওয়া হয়েছে “চেস্ট কোট”।

মেয়েরা এই জ্যাকেটটি উপভোগ করবে বলে আশা করছে ডিজাইন হাউজ। তবে কত পূরুষের কত লক্ষ বুকের পশম দিয়ে তৈরী এই বিশেষ জ্যাকেট তা জানায়নি প্রতিষ্ঠানটি।


601712_367828133323807_1314266991_n(1)আগামী ছয় মাসের বাংলাদেশে Mobile Number Portability (MNP) চালু করার জন্যে কাজ শুরু করেছে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন বিটিআরসি। আগামী সপ্তাহে অনুষ্ঠিত কমিশন বৈঠক থেকেই এ বিষয়ে অপারেটরদের নির্দেশ দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন বিটিআরসি’র সংশ্লিষ্ট বিভাগগুলো।MNP= বিদ্যমান নম্বর ঠিক রেখেই ইচ্ছে মতো অপারেটর বদলের সুযোগ.

তবে বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে গ্রামীণফোনের সিইও বিবেক সুদ বলেছেন, তারা এমএনপি’র বিপক্ষে। কারণ এর ফলে নতুন অপারেটরদের সম্ভাবনা বাড়লেও তারা খানিকটা হলেও ঝুঁকিতে পড়বেন।

অন্যদিকে এয়ারটেলের কর্পোরেট বিভাগের প্রধান আশরাফুল হক চৌধুরী বলেছেন, এর আগে দফায় দফায় তারা এমএনপি’র বিষয়ে দাবি জানালেও শেষ পর্যন্ত এটি আধারেই থেকে গেছে। এখন অনেক বিলম্ব হয়ে গেলেও এটি বাস্তাবায়িত হলে তাতে গোটা দেশেরই লাভ হবে।

ভারতে এই পরিবর্তনের জন্যে ১৯ রুপী করে খরচ করতে হয়। থাইল্যান্ডে খরচ করতে হয় ৯৯ বাথ করে। তবে মালয়েশিয়াতে এটি ফ্রি। ভারতে তৃতীয় অপর একটি কোম্পানি এমএনপি’র কাজ করে দিলেও বাংলাদেশের অপারেটরগুলো এর বিপক্ষে বলেছে। ফলে নিজেদেরকেই এখন প্রযুক্তি স্থাপন করতে হবে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া, জার্মানি, ব্রাজিলসহ অনেক দেশেই এখন এমএনপি আছে। পাশের ভারত ২০০১ সালে এই প্রযুক্তি গ্রহন করেছে। পরে পাকিস্তান এবং শ্রীলংকাও এমএনপি’র বাস্তাবায়ন করেছে। (প্রিয় টেক)

[ আমাদের কথাঃ MNP সার্ভিসটি চালু হলে সবচেয়ে বেশী উপকৃত হবে গ্রাহক, কারণ তারা যে অপারেটরে কম মূল্যে বেশী সেবা পাবে সেই অপারেটর এর নেটওয়ার্কে চলে যাবে । ফলে গ্রাহক হারানোর ভয়ে সকল অপারেটরই গ্রাহকদের সর্বোচ্চ সার্ভিস দেওয়ার চেষ্টা করবে । এক্ষেত্রে একচেটিয়া বাজার ব্যবহার পরিবর্তন হবে ]


আসসালামু-আলাইকুম কেমন আছেন সবাই , আশা করি সবাই ভাল আছ, ভাল থাক, সুন্দর থাক, স্বুস্থ থাক , নিরাপদে থাক এটাই আমি সব সময় প্রত্যাশা করি, আপনাদের সর্ব সাফল্য আমি একান্ত ভাবেই কামনা করি।
আমরা জানি তথ্যপ্রযুক্তি এগিয়ে যাচ্ছে। ধরা দিচ্ছে প্রযুক্তির নাগালের অবস্থানরত মানুষের হাতে। প্রযুক্তি নির্ভর মানুষগুলোর কারণেই তথ্যপ্রযুক্তি সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। যাই হোক আসল কথায় আসি ,

আমাদের যাদের নিজস্ব ওয়েবসাইট বা ব্লগ আছে ,আমরা অবশ্যই গুগল অ্যাডসেন্স পেতে ইচ্ছুক কিন্তু পযাপ্ত ভিসিটর না থাকার ফলে আমরা অ্যাডসেন্স পাইনা।আর এ জন্যই
আমি আজ আপনাদের সাথে একটা সাইট শেয়ার করব যেটা নাকি গুগল অ্যাডসেন্স আর বিকল্প ।

http://yllix.com/publishers

এবার Register As A Publisher এ ক্লিক করুন। তারপর আপনার প্রথম নাম ও শেষ নাম লিখুন,এবং আপনার ইমেইল আদ্দ্রেসস দেন।

তারপর Create Account সিলেক্ট করুন। তারপর ঠিক এ রকম একটা মেসেজ আসবে

Welcome Mr. আপনার নাম
Your account has been successfully created.
Please check your mailbox in order to activate your account.

এবার আপনার ইমেইল এ লগিন করুন , দেখবেন যে একটা নতুন মেইল এসেছে ।এটা ওপেন করুন । এখানে আপনার অ্যাকাউন্ট , আইডি, পাসস্বরদ দেওয়া আছে এবং একটা লিঙ্ক ও দেওয়া আছে এটা তে ক্লিক করুন । করার পর আপনার অ্যাকাউন্ট আইডি চাইবে ওইটা বসিয়ে দিন। এবার ঠিক মার্ক করে Complete Registration এ ক্লিক করুন। এরপ্র আপনার Real Address বসিয়ে দিন। Continue তে ক্লিক করুন , আপনার মোবাইল নাম্বার দিন আবার Continue করুন । তারপর আপনার Payment method সিলেক্ট করুন ।আপনার ইমেইল ও Minimum Payout সিলেক্ট করুন । এবার Close সিলেক্ট করুন। তারপর SMS Verification সিলেক্ট করুন । Sand Verification Sms এ ক্লিক করার পর একটা এসএমএস পাবেন ওই নাম্বার টা বসিয়ে দিন। তারপর আপনার ওয়েবসাইট অ্যাড করে কোড গুলো বসিয়ে দিন।

এবার সাইটির ধরণ দেখে নেই।

***Yllix CPM, CPC, CPA এবং পপআপ বিজ্ঞাপন সমর্থন করে ।

***Yllix 300×250, 728×90, 468×60, 120×600, 160×600, PrePop, পপআপ এবং PopUnder বিজ্ঞাপন ফর্ম্যাট সমর্থন করে।

***মিনিমাম Payout 1$। আমার ক্যাশ আউট এর প্রুফ
***Google Adsence এর অন্যতম একটি বিকল্প উপায় Yllix। আপনারা যারা অনেক চেষ্টা করার পরেও আপনার ব্লগ/ওয়েবসাইট এর জন্য Google Adsence থেকে এড পাচ্ছেন না তারা Yllix চেষ্টা করে দেখতে পারেন। Yllix এর Popup, Layer এবং Full page এড এর জন্য এডে ক্লিক অনেক বেশি পরে। আর আপনি রেফেরাল লিঙ্ক এর মাধ্যমেও কিছু আয় করতে পারবেন। আর এর সবচেয়ে বড় সুবিধা হল মাত্র $1 হলেই আপনি Payza, PayPal, Liberty Reserve অথবা Bank wire এর মাধ্যমে পেমেন্ট নিতে পারবেন।


referral_leaderboard

গুগল এডসেন্স বিজ্ঞাপনের ক্ষেত্রে সেরা এ কথা অনস্বীকার্য। তবে পাশাপাশি আরও বেশ কয়েকটি সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান গুগলের সাথে পাল্লা দিয়ে এগিয়ে আসছে। যদিও এগুলোর ধারা গুগল থেকে সম্পূর্ণ ভিন্ন। এডব্রাইট, চিটিকাও একটি স্বতন্ত্র ধারা।
চিটিকা দিয়েও আপনি আপনার ওয়েবসাইটে এড বসিয়ে আয় করতে পারেন।
বিস্তারিত জানতে এবং সেবাটি গ্রহণ করতে সাইন আপ করে দেখতে পারেন।

সাইন আপ

সবচে বড় কথা হলো, সাইন আপ করতে যেহেতু কোনো টাকা পয়সা লাগে না তাই গুগলের উপর নির্ভর না করে এখানেও চেষ্টা করে দেখতে পারেন।
হয়তো গুগল এডসেন্স থেকে এটাই আপনার কাছে সহজ-সাবলীল-প্রয়োজনীয় মনে হবে। তাছাড়া গুগল এডসেন্সের সাথে চিটিকা ইউজ করা যায়

বুঝতে সমস্যা হলে জানাবেন। আমার সাধ্যমতো সলভ করার চেষ্টা করবো।


558395_142071752602463_1384647620_n-300x225সাবধান হন এখনি। আপনিও হতে পারেন সিম ক্লোনের শিকার। হাঁ ভয়ানক এই তথ্যটি জানতে পারি একুশে টিভির এক বন্ধুর মাধ্যমে। পরে বিষয়টি সম্পর্কে আরও স্পষ্ট ধারনা পেতে একুশে টি ভির নিউজ দেখে শিওর হলাম মাত্র।

১- সিম ক্লোন কি?
একটি সিম যেটি আপনি ব্যবহার করছেন সেই সিম টি যদি অন্য কেউ ব্যবহার করে কিংবা এক নাম্বার যদি দেখেন এক সাথে দুইজন ব্যবহার করে কিংবা হঠাৎ করে যদি দেখেন আপনার সেল ফোনের কানেকশন নাম্বার থেকে ব্যালান্স কোন কারন ছাড়া কমে যাচ্ছে তবে আপনি সিম ক্লোনের শিকার।

২- কিভাবে শিকার হবেন সিম ক্লোনের?
আপনি যদি অপরিচিত কোন নাম্বার থেকে মিসড কল পান এবং সেটাতে যদি কল ব্যাক করেন তবে আপনি সিম ক্লোনিং এর শিকারে পরিনত হতে পারেন। দুষ্কৃতকারীরা বিশেষ একটি সফটওয়্যার এর মাধ্যমে আপনার নাম্বার টি ক্লোনিং করে। অর্থাৎ আপনি যখন মিসড কল নাম্বারে কল ব্যাক করবেন তখন একটি সফটওয়্যার এর মাধ্যমে আপনার নাম্বার টি ক্লোন হতে পারে। সিম ক্লোনিং হলে আপনার সিমে রাখা ডাটা ক্লোন নাম্বারে চলে যাবে। এবং আপনার প্রাইভেসি ক্ষুণ্ণ হবে।৩- যে সমস্যায় আপনি পড়তে পারেন সিম ক্লোনিং হয়ে গেলে?
সাধারনত জঙ্গি কিংবা দুষ্কৃতিকারীরা আপনার নাম্বার টি ব্যবহার করে আপনার জীবন বিপন্ন করতে পারে। অর্থাৎ ওই নাম্বার দিয়ে কেউ কাউকে মৃত্যুর হুমকি, চাঁদাবাজি কিংবা জঙ্গি কানেকশন করলে আপাত দায়ভার আপনার উপর বর্তাবে। কাজেই আপনি আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে ধৃত হবেন। পরবর্তীতে আরও নানাবিধ সমস্যায় পড়তে পারেন।লক্ষ্য করুন———–
* ভারতে সম্প্রতি এক লাখ সিম ও রিম কার্ড ক্লোনিং হয়েছে। সেখানকার গোয়েন্দা বাহিনী সতর্ক অবস্থায় রয়েছে। ভারতের গোয়েন্দা সংস্থা জানিয়েছে ওই ক্লোনিং সিম বা রিমের মাধ্যমে অনেক অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে।
* বাংলাদেশে এখনও সিম ক্লোনিং হয়েছে বলে ৬ টি মোবাইল অপারেটরের হাতে এমন কোন তথ্য নেই। তবে বাংলাদেশের গোয়েন্দা সংস্থা জানিয়েছে যে কোন সময় এমন অনাকাংখিত ঘটনা ঘটতে পারে।সতর্ক হবেন যেভাবে-
* অপরিচিত নাম্বার থেকে মিসড কল এলে আপনি কল ব্যাক করার পূর্বে ভালো করে চিহ্নিত করবার চেষ্টা করুন যে এটি কার নাম্বার। অথবা কল ব্যাক করা বন্ধ করুন।
* মনে রাখবেন সিম ক্লোনিং হতে হলে মিসড কল আসবে। ডাইরেক্ট রিং হলে সেটি রিসিভ করলে আপনি সিম ক্লোনিং এর শিকার হবেন না। মিসড কল এলেই সতর্ক হন।
* যদি দেখেন আপনার সেল ফোনের ব্যালান্স অকারণে কমে যাচ্ছে সাথে সাথে কল সেন্টারে ফোন করে জানান।
* আপনার সেল ফোন টি এখনি বন্ধ করে অন্য একটি নাম্বার থেকে আপনার নাম্বারে ফোন দিন। দেখুন রিং হয় কিনা। রিং হলে আপনি সিম ক্লোনিং এর শিকার।

সবাই সতর্ক থাকুন ,ভালো থাকুন ।