Archive for the ‘না জানা ঘটনা’ Category


বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম। আসসালামু আলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহ। সমস্থ প্রশংসা সেই মহান আল্লাহ তায়ালার দরবারে যিনি আমাদের সৃষ্টি করেছেন ও তাঁর হাজারও নিয়ামত দিয়ে আমাদের দুনিয়ায় কিছুটা সময় বসবাস করার তৌফিক দান করেছেন। আমরা সবাই বলি আলহামদুলিল্লাহ। যাকে সৃষ্টি না করা হলে আল্লাহ পাক আমাদের সৃষ্টি করতেন না, যার মাধ্যমে আল্লাহ তায়ালা ইসলাম কে পরিপূর্ণ দ্বীন হিসাবে মনোনীত করেছেন, যিনি আমাদের মুক্তির এক মাত্র কাণ্ডারি যার সুপারিশ আমাদের উপর বিশেষ রহমত তিনি হযরত মোহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সবাই বলি (সাঃ)। আসুন সবাই একবার কালেমা পাঠ করি “লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু মোহাম্মদুর রসুলুল্লাহ” । অর্থ আল্লাহ ছাড়া কোন উপাস্য নাই, হযরত মুহাম্মাদ (সাঃ) তাঁহার প্রেরিত রাসুল।

আল্লাহ তায়ালা আমাদের সৃষ্টি করেছেন একমাত্র তাঁরই হুকুম পালন ইবাদত করার জন্য, আর প্রতিটি নেক আমলই ইবাদত, সুবহানাল্লাহ। ব্যবসা, বাণিজ্য, চলা-ফেরা, খাওয়া-দাওয়া কথা বলা ঘুমানো সবই ইবাদত হবে যখন আপনি এসব কাজ আল্লাহ তায়ালা নবী রাসূলদের দিয়ে যেভাবে আমাদের শিখিয়ে দিয়েছেন ও হাদিস কোরআন এ এসব বিষয় সম্পর্কে যেভাবে লিপিবদ্ধ করেছেন ঠিক সে নিয়মে পালন করলে।

আল্লাহ তায়ালার সকল হুকুম পালন করা প্রতিটি মুসলিম নারী ও পুরুষের অবধারিত। অন্য সব হুকুম এর মধ্যে নামায এর গুরুত্ব অত্যাধিক। অবশ্যই আমাদের এই হুকুম অমান্য করা যাবে না। নবী করিম সাঃ যেভাবে নামায আদায় করেছেন ও তার সাহাবা গন দের যে ভাবে শিক্ষা দিয়েছেন আমাদের নামায যেন ঐ রুপ হয়। আল্লাহু আমাদের সে তৌফিক দান করুন। আমিন।

আমরা কিভাবে এই হুকুম এর সঠিক আমল করতে পারি তার জন্য তৈরি করা হয়েছে নামায শিক্ষা।  www.namaj.info এটি বাংলা নামায শিক্ষার ওয়েব সাইট। এখানে খুব সল্প পরিসরে দ্বান্দিক মাসায়েল এর আলোচনা না করে সহজ-সরলভাবে সংক্ষিপ্ত অথচ তথ্য সমৃদ্ধ আঙ্গিকে লেখা হয়েছে।


earn-money-online1বিছমিল্লাহির রহমানির রাহিম। মহান আল্লাহর নামে শুরু করছি। যেহেতু আল্লাহর নামে শুরু করেছি সেহেতু এই টপিকটা যে ভুয়া না সেটা অবশ্যই বুঝতে পারছেন।
যাই হোক কথা না বাড়িয়ে কাজ শুরু করি। এ বাপারে আগেও অনেক পোস্ট করা হয়েচে । তারপরও অনেকে বলছেন যে বুঝতে পারেন নি। তাই বুঝিয়ে বলার চেষ্টা করবো।
1. আপনার অবশ্যই একটা ওয়েবসাইট থাকতে হবে। আর কিছু লাগবে না।
2. এই লিঙ্কে গিয়ে Register লেখায় ক্লিক করুণ। Name এ আপনার নাম দিবেন। Company তে কিছু দেয়া লাগবে না। Email এ একটা email দিবেন Join as এটা publisher select করবেন। Mobile এ আপনার Mobile Number। Address এ আপনার ঠিকানা। City তে আপনি যে শহরে থাকেন তার নাম। Postal code 4 সংখার যে কোনো একটা সংখা দিবেন। নিচে একটা যোগ অংক দেয়া আছে ওটার result last box এ দিয়ে Join now তে ক্লিক করবেন। এবার বাকি কাজ করি। join now তে ক্লিক করার পর যে পেইজ এসেছিল সেখানে একটি verification code চাইবে। এটা আপনার email এ আছে। email এ login করুণ। amaderad থেকে যে email টা এসেছে সেটায় ঢুকুন। না পেলে spam অথবা zank folder এ দেখুন। মেইল্টার ভিতরে একটা সংখা পাবেন। সেটাই আপনার verification code। এটা দিয়ে registration সম্পন্ন করুণ।

কত টাকা পাবেন? এটা বলা এদের company থেকে বারণ আছে। But, google adsense এর চেয়ে কিচু কম। google adsence প্রতি ক্লিক এ ৪-৫ টাকা দেয়।
কীভাবে আয় করবেন ? submit site এ গিয়ে আপনার সাইট এড করুণ । 3-4 ঘন্টার মধ্যেই আপনাকে সাইট এড করা হল কীনা তা email a জানানো হবে । এড করা হলে উপর থেকে get code এ গিয়ে কোড সংগ্রহ করে আপনার সাইটে যুক্ত করে দিন ।
টাকা তুলবেন যেভাবে: লগিন করার পর যে পেজ আসে সেখানে payment setup এ গিয়ে আপনার মোবাইল নাম্বার সেট করে দিন । প্রতি মাসের 1-5 তারিখের মধ্যেই টাকা পেয়ে যাবেন । ভয় নেই এরা টাকা ঠিক মতই দেয় । তা নাহলে এতবড় একটা পোষ্ট লেখার দরকার ছিল না ।


প্রতিদিনের কাজের তালিকাটা অনেকের অনেক লম্বা। এত সব কাজের মাঝে অনেক সময় প্রয়োজনীয় কাজটির কথা মনে থাকে না। আর যারা ভুলোমনা টাইপের মানুষ তাদের বিষয়ে তো কথাই নেই। যথাসময়ে কাজের কথা ভুলে যান সহজেই। ফলে অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজ সঠিক সময়ে করা হয় না। তবে স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের সহায়তায় রয়েছে কিছু অ্যাপস।

স্মার্টফোনে দৈনন্দিন পরিকল্পনাগুলোকে সাজিয়ে রাখলে তা মনে করিয়ে দেবে কখন কোন কাজটি করতে হবে? কেমন হবে তখন? কাজের তালিকা তৈরির জন্য অ্যান্ড্রয়েড এবং আইওএসের রয়েছে অনেক অ্যাপস। এগুলোর মধ্যে থেকে সবচেয়ে জনপ্রিয় ৫টি অ্যাপস নিয়ে এ প্রতিবেদন।

 

এ্যানি ডু (any.do)

 

লাখো ব্যবহারকারী প্রতিদিন তাদের কর্মপরিকল্পনার জন্য এ্যানি ডু অ্যাপ ব্যবহার করেন। এটির ডিজাইন খুব সুন্দর এবং ব্যবহার করা খুব সহজ।

 

Any.DO-iPhone_techshohor

 

এ্যানি ডু অ্যাপে রয়েছে ক্লাউড সুবিধা। এতে তালিকায় থাকা কাজগুলো মেইল আইডি এবং ফেইসবুকের সাহায্যে সিনক্রোনাইজ করা যাবে। ফলে অন্য কোনো ডিভাইস থেকে সিনক্রোনাইজ করলে পাওয়া যাবে কাজের ফর্দ। কর্মপরিকল্পনার সময় ঠিক করে রাখলে নির্দিষ্ট সময়ে তা এ্যালার্ম দিয়ে জানিয়ে দেবে।

 

এটি অ্যান্ড্রয়েড ও আইওএস অপারেটিং সিস্টেমের জন্য ফ্রি ডাউনলোড করে ব্যবহার করা যাবে।
এখান থেকে অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারীরা ডাউনলোড করে ব্যবহার করতে পারবেন।

 

রিমেমবার  দ্যা মিল্ক (Remember the Milk) (বিস্তারিত…)


ছবি তোলার পর সেটিকে আরও সুন্দরভাবে ফুটিয়ে তুলতে হাল আমলে এফেক্ট যোগ করা হচ্ছে হামেশ্ই। ছবিতে নিত্য নতুন ইফেক্ট যুক্ত করার প্রবণতা বাড়ছে। তবে এ জন্য কম্পিউটার বা সফটওয়্যারে এক্সপার্ট হওয়ার প্রয়োজন নেই। একটি অ্যাপ ব্যবহার করেই এ কাজটি করা যাবে খুব সহজেই।

ছবিতে ইফেক্ট যোগ করতে অ্যান্ড্রয়েডের রয়েছে নানা অ্যাপস। এত সব অ্যাপসের মধ্যে ভাল একটি অ্যাপস খুঁজে পাওয়া একটু কঠিন বৈকি। অনেকগুলোর মধ্যে থেকে বাছাই করে ব্যবহার করা যেতে পারে জেনরেট্রো (XnRetro)। ছবিতে ইফেক্ট যুক্ত করার জন্য এটি চমৎকার একটি অ্যাপ। এতে রয়েছে দারুণ এবং সুন্দর অনেকগুলো ইফেক্ট। যে ইফেক্টগুলো ব্যবহার করলে ছবি আগের থেকে আকর্ষণীয় হবে।

app-xnretro-512

অ্যাপটির ফিচারগুলো হলো- (বিস্তারিত…)


বিশ্ববিদ্যালয়ের রঙ্গীন দিনগুলোর গল্প, মজাদার কাহিনী, ভাল ও খারাপ লাগা অনুভূতির স্মৃতিচারণ মূলক লেখার একটি অ্যাপ উম্মুক্ত করা হয়েছে।

ইউনিভার্সিটি লাইফ বাই সরব.কম নামের অ্যাপটিতে উঠে এসেছে ১৮ জন ব্লগারের বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের দিনগুলো।

shrobapps_techshohor

সম্প্রতি অ্যাপটি প্রকাশের আগে বিভিন্ন  ব্লগারদের কাছ থেকে লেখা সংগ্রহ করা হয়। এরপর অনেক লেখা থেকে বাছাই করা ১৮টি নিয়ে একটি ই-বুক প্রকাশ করা হয়েছিল।

ই-বুক প্রকাশের পর এটি অ্যাপ আকারে গুগল স্টোরে প্রকাশ করা হয়।

অ্যাপটির মাধ্যমে নির্বাচিত বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের দারুণ সব গল্পগুলো সহজে পড়া যাবে। অ্যাপটির ওপরে একটি মেন্যু রয়েছে যেখান থেকে প্রথম পাতা, সম্পাদকীয়, বইটির সর্ম্পকে এবং সূচী দেখা যাবে। কিভাবে অ্যাপটি ব্যবহার করতে হবে সেজন্য রয়েছে ‘ইউজার গাইড’।

অ্যাপটি সর্ম্পকে সরব.কমের সমন্বয়কারী নুরউদ্দিন আহমেদ বাপ্পি বলেন, ‘সরব উদ্ভাবনে বিশ্বাস করে। গত ৬/৭ বছরে বাংলা ব্লগাররা নতুন তাদের বক্তব্য, আইডিয়া, গল্প  মানুষের কাছে পৌঁছে দিয়েছেন। সরব সেদিকে একটু বেশি সক্রিয়। এক মহৎ  রিকশাচালকের হাসপাতাল তৈরির ওপর ব্লগ থেকে শুরু করে রবিঠাকুর এবং বাংলাদেশের মিডিয়ার ওপর ইনফোগ্রাফিক প্রকাশ করেছে সরব।

বাপ্পি জানান, বাংলা ভাষায় প্রথম গণিতের ওপর ই-বুক এর পাশাপাশি এবার সরব বিশ্ববিদ্যালয়ের জীবনের গল্প নিয়ে ই-বুক তৈরি করেছে। সরব তারুণ্যের প্ল্যাটফর্ম। আর তরুণদের কাছে পৌঁছানোর সহজ উপায় মোবাইল ফোন। তাই মোবাইল অ্যাপ আকারে ই-বুকটা প্রকাশ করা হয়েছে।

অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমচালিত স্মার্টফোনের ব্যবহারকারীরা ১.৬৩ মেগাবাইটের অ্যাপটি এখান থেকে ডাউনলোড করতে পারবেন।


যুগের সাথে তাল মিলিয়ে বই পড়ার মাধ্যমও বদলে যাচ্ছে। কাগজের মলাটে বাঁধাই করা বইয়ের পাশাপাশি এখন ই-বুক বা ডিজিটাল বুকও জনপ্রিয় হয়ে ঊঠছে। এরই প্রেক্ষিতে দেশের অন্যতম মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান মোবিওঅ্যাপ তৈরি করেছে ‘বই পোকা’ নামে একটি ডিজিটাল বুক রিডিং অ্যাপ্লিকেশন।

পাঠকরা আইফোন এবং অ্যান্ড্রয়েডের সকল স্মার্ট ডিভাইসে বিনামূল্যের এই অ্যাপ্লিকেশনটি ব্যবহার করে বই পড়তে পারবেন। এতে কালজয়ী সব ক্লাসিক বই দেওয়া আছে। পাঠকরা সেগুলো বিনামুল্যে পড়তে পারবেন।

Boipoka-TechShohor

এছাড়াও একজন পাঠক জনপ্রিয় সব লেখকের বই অ্যাপ্লিকেশনটির ‘ইন-অ্যাপ পারচেজ’ ফিচারটির মাধ্যমে খুব সহজেই কিনে পড়তে পারবেন। পাঠকদের বই পড়ার অভিজ্ঞতাকে নতুন মাত্রা দিতে অ্যাপ্লিকেশনটিতে রয়েছে বুকমার্ক, হাইলাইটার, আন্ডারলাইন, অ্যানোটেশন, পেইজ জাম্প, বুক রেটিংয়ের মতো কার্যকর সব ফিচার।

অ্যাপটি ব্যবহারকারীরা তাদের নিজস্ব পিডিএফ বইয়ের সংগ্রহও খুলতে পারবেন। তারা বইয়ের কোন একটি পছন্দের অংশ সোশ্যাল শেয়ার ফিচারের মাধ্যমে সামাজিক যোগাযোগের সাইটগুলোতে বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করতে পারবেন।

প্রকাশক এবং লেখকদের মেধাসত্ত্ব ও রয়্যালটি রক্ষার্থে এবং পাইরেসি রোধকল্পে নির্মাতা প্রতিষ্ঠান মোবিওঅ্যাপ নিজস্ব পিডিএফ রিডার তৈরি করে অ্যাপলিকেশনটিতে ডিজিটাল রাইট ম্যানেজমেন্ট (ডিআরএম), দুই স্তরের নিরাপত্তা এবং এনক্রিপশনের ব্যবস্থা করেছে।

২১শে বইমেলা উপলক্ষে বই পোকা অ্যাপ থেকে ডিজিটাল বই ৬০ থেকে ৬৫ শতাংশ ছাড়ে কিনতে পারবেন বাংলা একাডেমী প্রাঙ্গনে বইমেলার ৫১৩ নাম্বার স্টল থেকে।

‘বই পোকা’ অ্যাপটি এই লিংক থেকে ডাউনলোড করা যাবে।


দুর্ঘটনার কোনো সময় অসময় নেই। তাই সব সময় প্রস্তুত থাকা ভালো। এ ক্ষেত্রে হাতের স্মার্টফোনটিও কাজে আসতে পারে। যদি প্রাথমিক চিকিৎসার জন্য ফার্স্ট এইড অ্যাপটি নামানো থাকে।

দুর্ঘটনার পরপর আহত ব্যক্তিকে নিকটের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার আগে প্রয়োজন প্রাথমিক চিকিৎসার। ফার্স্ট এইড অ্যাপটি সে সময় জানিয়ে দেবে রোগীর জন্য কি ধরনের প্রাথমিক চিকিৎসা প্রয়োজন।

চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ করার আগে অ্যাপটির ব্যবহার বেশ উপকারে আসবে। দুর্ঘটনা ছাড়াও অন্যান্য রোগের সমন্ধে প্রাথমিকভাবে জানতেও সাহায্য করবে এটি। দারুণ কাজের এ অ্যাপটির সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিতে এ প্রতিবেদন।

First-aid-android-logo_techshohor

বিশ্বব্যাপী অ্যাপটি বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে। এখন পর্যন্ত দশ লাখ বার ডাউনলোড করা হয়েছে। গুগলের প্লেস্টোরে অ্যাপটির রেটিং ৪.৫। সাইজ ৩.৪ মেগাবাইট।

এক নজরে অ্যাপটির ফিচারগুলো
১. এতে রয়েছে স্বাস্থ্য বিষয়ক নানা ট্রিপস।
২. জরুরী নম্বরে কল করার ব্যবস্থা রয়েছে।
৩. প্রাথমিক রোগ সনাক্তেও সাহায্য করবে এটি। রোগীকে অসুস্থতার ধরণ সর্ম্পকে প্রশ্ন করে এর উওর দেওয়ার মাধ্যমে তা সনাক্ত করা যায়।
৪. বিভিন্ন ধরনের রোগের প্রাথমিক চিকিৎসা সর্ম্পকে বিস্তারিত ছবিসহ  বর্ণনা দেওয়া আছে।

firstaid_techshohor

৫. অ্যাপটিতে রয়েছে বিভিন্ন ওষুধের নাম।
৬. বিভিন্ন রোগের কারণ সর্ম্পকে তুলে ধরা হয়েছে এবং প্রতিকারগুলো সুন্দরভাবে তুলে ধরা হয়েছে।

এখান থেকে অ্যাপটি বিনামূল্যে ডাউনলোড করে ব্যবহার করা যাবে।


স্বাস্থ্য সেবায় প্রযুক্তির ব্যবহার বহুল প্রচলিত। ইদানিং স্মার্টফোনের মাধ্যমেও মিলছে স্বাস্থ্যের বিভিন্ন সেবা। নতুন নতুন ডিভাইস ও অ্যাপ ভূমিকা রাখছে এ ক্ষেত্রে। তেমনি একটি ডিভাইস ও অ্যাপ হলো এলাইভইসিজি।

স্মার্টফোনে এটি ব্যবহার করা হলে এখন আর রোগীকে রিপোর্ট দেখানোর জন্য চিকিৎসকের চেম্বারে শশরীরে যেতে হবে না। স্মার্টফোনটিই এখন হৃদকম্পন পরিমাপ করে তা স্বয়ংক্রিয়ভাবে পাঠিয়ে দিবে চিকিৎসকের কাছে।

alivecor

প্রযুক্তিবিদ ও চিকিৎসকরা এ প্রযুক্তিকে স্বাস্থ্য সেবায় যুগান্তকারী পদক্ষেপ হিসাবে দেখছেন। হাতে পরিধানযোগ্য এ ডিভাইসের মাধ্যমে স্মার্টফোনে থাকা এলাইভইসিজি নামের অ্যাপটি প্রতিনিয়ত হৃদকম্পন রেকর্ড করবে। http://adf.ly/eEH1d

এরপর অ্যাপটি রেকর্ড করা ডাটাবেস থেকে তথ্য বিশ্লেষণ করে কোনো সমস্যা থাকলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ই-মেইলের মাধ্যমে তা চিকিৎসকের কাছে পাঠিয়ে দেবে। ফলে চিকিৎসক রেকর্ড দেখে চিকিৎসার নির্দেশনা দিতে পারবেন।

এর ফলে রোগীকে কষ্ট করে হাসপাতালে চিকিৎসকের চেম্বারে যেতে হবে না। ঘরে বসেই চিকিৎসা সেবা পাওয়া যাবে। রোগী ও চিকিৎসক উভয়ের সময় সাশ্রয় হবে।

৫৭  বছর বয়সী উত্তর ক্যারোলিনার বাসিন্দা ই বি ফক্স গত বছরের অক্টোবর থেকে ডিভাইসটি ব্যবহার করছেন। তিনি জানান, এখন তাকে কষ্ট করে চিকিৎসকের কাছে যেতে হয় না। একটি ই-মেইলের মাধ্যমেই চিকিৎসার দিক নির্দেশনা পাচ্ছেন তিনি।

স্মার্টফোনের মাধ্যমে স্বাস্থ্যসেবা খাতেও নতুন দিগন্ত উন্মোচিত হয়েছে নতুন এ প্রযুক্তির মাধ্যমে।


স্মার্টফোন অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে অ্যান্ড্রয়েডের জনপ্রিয়তা শীর্ষে। অ্যাপস সহজলভ্যতার জন্য অ্যান্ড্রয়েডের ব্যবহার বেশি। এ অপারেটিং সিস্টেমের স্মার্টফোন কাস্টমাইজ করার জন্য নানা রকম লঞ্চার অ্যাপ ব্যবহার করা হয়ে থাকে। এসব লঞ্চার দ্বারা হোম স্কিন, উইজেট ইত্যাদি বিভিন্ন রুপে দেখা যায়।

অ্যান্ড্রয়েডের অনেক লঞ্চারের মধ্যে থেকে ভালোটি খুঁজে পাওয়া খুবই কষ্টসাধ্য। এ প্রতিবেদনে চারটি লঞ্চারের সাথে পরিচিয় করিয়ে দেওয়া হলো যা আপনার কাজ সহজ করে দেবে।

apex

এপেক্স লঞ্চার (Apex Launcher)
অ্যান্ড্রয়েডের এ অ্যাপও বেশ জনপ্রিয়। গুগল প্লে স্টোর থেকে এক (বিস্তারিত…)


অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারীদের জন্য স্মার্টফোনটি সঠিকভাবে চালাতে বেশ কিছু সাহায্যকারী অ্যাপ আছে। কিছু অ্যাপ আছে যেগুলো মেমোরি ক্লিনার হিসেবে ব্যবহার করা হয়। এগুলো ব্যবহার করা হলে স্মার্টফোনের গতি কিছু হলেও বৃদ্ধি পায়। অপ্রয়োজনীয় অ্যাপ বন্ধ রাখে ফলে ব্যাটারি চার্জ ক্ষয় কম হয়। সে রকম একটি চমৎকার অ্যাপ অ্যান্ড্রয়েড অ্যাসিস্ট্যান্ট।

অ্যাপটি ফাইল ম্যানেজার হিসেবে ব্যবহার করা যাবে। একই সাথে প্রয়োজনীয় ফাইল ব্যাকআপ রাখাসহ অনেক কাজ করা যাবে এটির সাহায্যে। এ যেন একেক ভিতর সব।

android_assistent_escreveassim.com_.br_

এক নজরে অ্যাপটির ফিচারগুলো (বিস্তারিত…)


প্রযুক্তির উন্নতির সঙ্গে বাড়ছে স্মার্টফোন ব্যবহার। মুহূতেই অনেক কাজ করে ফেলা যায় নতুন প্রযুক্তির এ ফোনের সাহায্যে। বিশেষ করে বিভিন্ন ধরনের অ্যাপস ব্যবহার অনেক জটিল ও দূরহ বিষয়কেও সজহ করেছে। এরই ধারাবাহিকতায় তৈরি হয়েছে শিক্ষামূলক বিভিন্ন অ্যাপস। তেমনি একটি অ্যাপ নামাজ শিক্ষা।

মুসলিম ধর্মের এ অত্যাবশ্যকীয় ইবাদত প্রতিপালনের বিষয় স্মার্টফোনের মাধ্যমে শেখাতে বাংলা অ্যাপটি তৈরি করা হয়েছে। নামাজ পড়ার নিয়মকানুন, নামাজের সময়, বিভিন্ন সূরা এবং দোয়া সম্পর্কে এতে তুলে ধরা হয়েছে।

imagesএক নজরে অ্যাপটির ফিচারগুলো
১. পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের (বিস্তারিত…)


এবার পুরো রাজধানী ঢাকার জন্য আনুষ্ঠানিকভাবে ‘ডিএমপি’ অ্যাপ চালু করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে অ্যাপটির উদ্বোধন করেন ডিএমপি কমিশনার বেনজীর আহমেদ।

অ্যাপটির মাধ্যমে ঢাকার সকল থানার ওসি এবং ডিউটি অফিসারের নম্বরসহ পাওয়া যাবে প্রতিটি থানার ঠিকানা এবং ম্যাপ। এই অ্যাপ্লিকেশনটি ব্যবহার করে ঢাকার যে কোন স্থান থেকে আপনি আপনার সবচেয়ে কাছের থানাটি সহজেই খুঁজে বের করতে পারবেন; সেই সাথে গুগল ম্যাপে আপনাকে সেই থানায় যাওয়ার পথও দেখিয়ে দেবে।

মঙ্গলবার দুপুরে উদ্বোধন হলেও সোমবার রাতে এটি চালু হয়। প্রথম রাতেই ‘অ্যাপটি ১৪ হাজার ডিভাইস থেকে ডাউনলোড হয়েছে বলে অনুষ্ঠানে জানানো হয়। ফেইসবুক পেইজের মাধ্যমেও ভালো সাড়া মিলছে বলে জানান ডিএমপি কর্মকর্তারা।

Image

মোবাইল ফোনের মাধ্যমে পুলিশের বিভিন্ন সেবাকে জনগনের আরও কাছে পৌছে দিতে ডিএমপি আনুষ্ঠানিকভাবে চালু করল ‘ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ-ডিএমপি’ নামের এ স্মার্টফোন অ্যাপ্লিকেশন।

উত্তরায় সর্বপ্রথম অ্যন্ড্রয়েডচালিত অ্যাপ্লিকেশন (অ্যাপ) চালু করে ডিএমপি।

বর্তমানে অ্যান্ড্রয়েড প্লাটফর্মের সকল মোবাইল ফোনে (স্যামসাং, ওয়ালটন, সিম্ফনি, এইচটিসিসহ অন্যান্য) এটি ব্যবহার করা যাবে।

নতুন মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনটি চালু (বিস্তারিত…)


sk1.thumbnailশুক্রাণুর নতুন এক গবেষণায় উঠে এসেছে শাক-সবজি সুস্থ সবল শুক্রাণু তৈরিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুল অফ পাবলিক হেলথের গবেষকরা দাবি করেছেন, গাজর একাই ডিম্বাণুর দিকে শুক্রাণুর গতি কয়েক গুণ বাড়িয়ে দেওয়ার ক্ষমতা রাখে। গাজরের সঙ্গে লেটুস, পালংও বাড়িয়ে দিতে পারে শুক্রাণুর গতি।

গাজর, লেটুস, পালংয়ের মত সবজিতে বিটা-ক্যারোটিন নামের এক জাতীয় অ্যান্টিঅক্সিডান্ট থাকে। গবেষকদের মতে এই অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট ডিম্বাণু অভিমুখে শুক্রাণুর গতি ৬.৫% থেকে ৮% বাড়িয়ে দিতে পারে।

অন্যদিকে, টম্যাটোর মধ্যে লাইকোপেন নামক এক ধরনের প্রোটিন থাকে। টম্যাটোর লাল রংয়ের জন্য দায়ি এই প্রোটিন। লাইকোপেন অস্বাভাবিক আকৃতির শুক্রাণুর উৎপন্নকে প্রতিহত করে।


bbcream_cccream_photo_24920ইদানিং বিউটি ওয়ার্ল্ডের সবচেয়ে আলোচিত প্রসাধনী হলো BB এবং CC ক্রিম। যেকোনো দোকানেই যান না কেন BB অথবা CC ক্রিম চোখে পড়বেই, নানা রকম ব্র্যান্ডে, নানা রকম ফরমুলাতে, নানা রকম শেডে আর নানা রকম দামে। এই ক্রিম গুলোর দিকে তাকালে নিশ্চয়ই মনে হয় এগুলো বিশেষত্ব আসলে কি আর এদের মাঝে পার্থক্যই বা কি? আজকের লেখার বিষয়বস্তু সেটাই।
BB ক্রিমঃ
ব্লেমিশ বাম অথবা বিউটি বাম এর সংক্ষিপ্ত রূপ হল BB ক্রিম। যখন এই ক্রিম প্রথম তৈরি হয় তখন এটি স্কিন লেজার ট্রিটমেন্ট এর জন্য ব্যবহার করা হত। কিন্তু বর্তমানে BB ক্রিম বাজারে আনা হয়েছে মাল্টি-টাস্কার ক্রিম হিসেবে। BB ক্রিম বাজারজাতকারী কোম্পানি গুলোর কথা অনুযায়ী এই ক্রিম হলো ত্বক পরিচর্যা এবং মেক-আপ উপাদানের সংমিশ্রণ। তাঁরা দাবী করেন এই ক্রিম আপনাকে দেবে অল-ইন-ওয়ান স্কিন কেয়ার। এই ক্রিম ত্বকের অসমান রঙ থেকে শুরু করে রোদ থেকে ত্বককে বাঁচানো, ব্লেমিশ/ব্রণ/স্পট প্রতিরোধ করা, ময়েশ্চারাইজ করা, মেক-আপের জন্য ত্বককে তৈরি করা ইত্যাদি যাবতীয় কাজের সমাধান। এটির একমাত্র নেগেটিভ দিক হলো বাজারে এই ক্রিমের যেকোনো স্কিন টোনের জন্য পর্যাপ্ত শেড নেই।
CC ক্রিমঃ
কালার কারেকশন অথবা কমপ্লেকশন কেয়ার এর সংক্ষিপ্ত রূপ হলো CC ক্রিম। BB ক্রিমের পর CC ক্রিম বাজারে আসে মূলত আগেরটির কমতি গুলো পুরণ করার জন্য। যখন ব্যবহারকারীরা অভিযোগ করেন যে BB ক্রিম সব রকম স্কিন টোনের সাথে যাচ্ছে না, স্কিন তৈলাক্ত করে ফেলছে, ঠিক মতো মেক-আপের কাভারেজ দিচ্ছে না তখন এই সকল সমস্যার সমাধান নিয়ে আসে CC ক্রিম। CC ক্রিমের মুস এর মত টেক্সচার স্কিন এ আরও সুন্দর এবং সহজ ভাবে ব্লেন্ড হয়, এটি BB ক্রিমের তুলনায় অধিক মেক-আপ কাভারেজ দেয়, স্কিন তৈলাক্ত করা ছাড়াই অধিক সময় স্থায়ী। উপাদানের কথা বলতে গেলে, উৎপাদনকারীরা বলেন, CC ক্রিমে যোগ করা হয়েছে এমন একটি উপাদান যা স্কিনের কোলোজেন বাড়াতে সাহায্য করবে। কোলোজেন স্কিনের মসৃণতা, উজ্জ্বলতা, এবং স্কিন কোষের আয়ু বাড়ায়।
BB ক্রিম/ CC ক্রিম, যেভাবে কাজ করেঃ
সত্যিকার অর্থে BB ক্রিম / CC ক্রিম হলো সাধারণ ময়েশ্চারাইজার এর সাথে ফাউন্ডেশন ও সানস্ক্রিনের সংমিশ্রণ। তার মানে এই নয় যে এগুলো আপনার দৈনন্দিন ব্যবহারের ময়েশ্চারাইজার এবং সানস্ক্রিনের পরিবর্তক হতে পারে। কারণ এর মাঝে থাকা উপাদান গুলো আপনাকে সুরক্ষা দেবার জন্য যথেষ্ট নয়। এই ক্রিম গুলো শুধু মাত্র আপনি ফাউন্ডেশনের পরিবর্তে ব্যবহার করতে পারেন। তারপরও আপনার মুখে যদি গাঢ় দাগ থেকে থাকে তাহলে কনসিলারের কোনো বিকল্প নেই। BB ক্রিম / CC ক্রিম দুটোই মেক-আপের বেইস প্রাইমার হিসেবে খুব ভালো কাজ করে।
– BB ক্রিম/ CC ক্রিম এর অন্যতম নেতিবাচক দিক হলো এগুলো শুধুমাত্র এক অথবা দুটি শেডে আসে যা সব ধরনের স্কিন-টোনের সাথে মিশে যাওয়ার কথা থাকলেও তা যায়না।
– BB ক্রিম/ CC ক্রিম মেয়েরা এমনকি ছেলেদের কাছেও বেশ আকর্ষণীয় প্রোডাক্ট কারণ এগুলো সহজে ব্যবহার উপযোগী, মাল্টি-পারপাস, এমনকি তাদের জন্য অন্যতম যারা নো-মেক-আপ লুক পছন্দ করে।
BB ক্রিম/ CC ক্রিম কেনার টিপসঃ
কেনার আগে মনে রাখবেন…
*হাতের উল্টো পাশে স্কিন ও ক্রিমের রঙ মিলিয়ে নিন। ক্রিমের টেক্সচার খেয়াল করুন যে আপনার স্কিন এর সাথে ঠিক মত মিশছে কিনা।
*তৈলাক্ত স্কিনের জন্য লুমিনাস এবং শিমার ফরমুলা বাদে কিনুন। ম্যাট এবং জেল বেইসড ফর্মুলা তৈলাক্ত স্কিনের জন্য সবচেয়ে ভালো।
*ড্রাই এবং নরমাল স্কিনের জন্য লুমিনাশ, শিমার, ক্রিমি যেকোনো ফর্মুলা বেছে নিতে পারেন।
BB ক্রিম কিনবেন যদি আপনার হয়…
– সেন্সেটিভ স্কিন
– ড্রাই স্কিন
– রোদে পোড়া স্কিন
– ব্রণ অথবা একনে স্কিন
CC ক্রিম কিনবেন যদি আপনার হয়…
– তৈলাক্ত স্কিন
– অসমান স্কিন টোন
– ব্লেমিশ/ দাগ
– ফাইন লাইন এবং বয়স জনিত ভাঁজ
ব্যবহারের ক্ষেত্রেঃ
BB ক্রিম / CC ক্রিম একটু খানিতেই অনেক দিন চলে যায়। একবারে অল্প করে পুরো মুখে মিশিয়ে দিন। কিছুটা বেশি কাভারেজ চাইলে দ্বিতীয় বার এপ্লাই করুন। কিন্তু মনে রাখবেন যদি প্রয়োজনের অতিরিক্ত হয়ে যায় তাহলে তা মুখে মিশবে না উলটো মাস্কের মত দেখাবে। তাই এ ব্যাপারে সতর্ক হোন। BB ক্রিম / CC ক্রিম চাইলে আপনি ব্রাশের সাহায্যেও লাগাতে পারেন।

ওরাল সেক্স বা মুখ মেহন থেকে সাবধান! এ থেকে মুখ ও গলায় ক্যানসার হতে পারে। হলিউড অভিনেতা মাইকেল ডগলাস এ কথা জানিয়েছেন।

মাইকেল ডগলাস দাবি করেন, থ্রোট ক্যান্সারে তিনি প্রায় মরতে বসেছিলেন। যৌনসঙ্গীর সাথে ওরাল সেক্স করতে গিয়েই তিনি এ অসুখ বাঁধিয়েছিলেন।

হিউম্যান প্যাপিলোমা ভাইরাস বা এইচপিভির কারণে সার্ভাইক্যাল ক্যানসার বা জরায়ু মুখের ক্যানসার হয়ে থাকে। কিন্তু এখন তা মুখ ও গলার ক্যানসারের জন্যও দায়ী। এ ধরনের ঘটনা ক্রমবর্ধমান হারে বাড়ছে।

ক্যানসার রিসার্চ ইউকের ডক্টর ক্যাট আর্নি বিবিসির টু ডে প্রোগ্রামের সারাহ মন্টেগুকে বলেন, নতুন পার্টনারের সাথে যৌনকর্ম করতে গেলে ঝুঁকি থাকবেই। তবু আমরা মানুষকে আনন্দ উপভোগ থেকে ভয় দেখিয়ে বিরত রাখতে চাই না। সূত্র: বিবিসি

ওরাল সেক্স বা মুখ মেহন থেকে সাবধান! এ থেকে মুখ ও গলায় ক্যানসার হতে পারে। হলিউড অভিনেতা মাইকেল ডগলাস এ কথা জানিয়েছেন।মাইকেল ডগলাস দাবি করেন, থ্রোট ক্যান্সারে তিনি প্রায় মরতে বসেছিলেন। যৌনসঙ্গীর সাথে ওরাল সেক্স করতে গিয়েই তিনি এ অসুখ বাঁধিয়েছিলেন।

হিউম্যান প্যাপিলোমা ভাইরাস বা এইচপিভির কারণে সার্ভাইক্যাল ক্যানসার বা জরায়ু মুখের ক্যানসার হয়ে থাকে। কিন্তু এখন তা মুখ ও গলার ক্যানসারের জন্যও দায়ী। এ ধরনের ঘটনা ক্রমবর্ধমান হারে বাড়ছে।

ক্যানসার রিসার্চ ইউকের ডক্টর ক্যাট আর্নি বিবিসির টু ডে প্রোগ্রামের সারাহ মন্টেগুকে বলেন, নতুন পার্টনারের সাথে যৌনকর্ম করতে গেলে ঝুঁকি থাকবেই। তবু আমরা মানুষকে আনন্দ উপভোগ থেকে ভয় দেখিয়ে বিরত রাখতে চাই না। সূত্র: বিবিসি – See more at: http://www.bengalinews24.com/lifestyle-health-&-treatment/2013/06/04/6376#sthash.LeZx3G1a.dpuf


imagesবিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে নিয়মিত ব্যায়াম করার চেয়ে নিয়মিত সেক্স লাইফ ভাল। যদি আপনি নিজেকে ফিট, সুন্দরী ও এবং কম বয়সী হিসেবে দেখতে চান তাহলে আপনার জন্য নিয়মিত যৌনজীবন খুবই দরকারি।একটি স্কটিশ গবেষণায় দেখা গেছে, পুরুষের মতো উন্নত যৌন জীবন নারীদেরকে সুস্বাস্থ্যের অধিকারী করে তোলে। এতে নারীদের ত্বক আরো মসৃণ ও সতেজ হয়। যখন আপনি দৈহিক সম্পর্কে লিপ্ত থাকেন, তখন আপনার শরীর থেকে তিন ধরনের হরমন কাজ করে।

স্কটিশ ঐ গবেষণার সঙ্গে যুক্ত গবেষকদের মতে, এই তিন ধরনের হরমোন সূর্যের তাপ থেকে শরীরের ত্বকে যে ক্ষতগুলো হয় তা পূরণ করে দেয়।

এছাড়াও এ সময় যে ঘাম বের হয় তার মাধ্যমে একধরনের এসিড বের হয়ে যায়, যেটা সুন্দর মলিন ঠোট ও উজ্জ্বল চোখ তৈরিতে ভূমিকা রাখে।


teeth.thumbnailস্টেম সেল থেকে পড়ে যাওয়া দাঁত গজানো সম্ভবনতুন দাঁত গজানোর নতুন একটি কৌশল উদ্ভাবন করেছেন চীনা গবেষকেরা। মূত্র থেকে প্রাথমিক দাঁত গজানোর এ গবেষণার ফল প্রকাশিত হয়েছে ‘সেল রিজেনারেশন জার্নাল’-এ।

চীনের গবেষকেরা দাবি করেছেন, মূত্রকে স্টেম সেলের উৎস হিসেবে ব্যবহার করে প্রাথমিক দাঁত গজানো সম্ভব। যাঁদের দাঁত পড়ে গেছে তাঁদের জন্য এ উদ্ভাবন সুসংবাদ হতে পারে বলে তাঁরা ধারণা করছেন।

মানুষের বয়স বাড়লে এবং দাঁতের যত্ন না করলে দাঁত পড়ে যায়। গবেষকেরা দীর্ঘদিন ধরেই স্টেম সেল ব্যবহার করে নতুন দাঁত গজানোর কৌশল নিয়ে গবেষণা করছিলেন। স্টেম সেল ব্যবহার করে যেকোনো ধরনের কোষকলা তৈরি করা সম্ভব হয়।

চীনের গুয়াংজু ইনস্টিটিউট অব বায়োমেডিসিন অ্যান্ড হেলথের গবেষকেরা মূত্রকে তাঁদের গবেষণার প্রাথমিক ভিত্তি ধরেন এবং তা থেকে স্টেম সেল তৈরি করেছেন।

গবেষকেরা জানিয়েছেন, এ সংক্রান্ত আরও গবেষণা প্রয়োজন। তারপরই কেবল পরীক্ষামূলক পর্যায়ে যাওয়া সম্ভব হবে। অবশ্য মূত্র থেকে দাঁত গজানোর এ গবেষণা বিষয়ে সমালোচনা করেছেন যুক্তরাজ্যের গবেষকেরা। তাঁদের দাবি, এমন একটি উত্স থেকে দাঁত গজানোর গবেষণা করা হয়েছে যা শুরুর পর্যায় হিসেবে খুবই খারাপ।


baby-chick-hello.thumbnailশিগগিরই বাজারে আসছে কৃত্রিম পাউডার ডিম। স্বাদে অবিকল হাঁস-মুরগির ডিমের মতো হলেও এটা আসলে সাদা রঙের গুঁড়ো পাউডার। কৃত্রিম এই পাউডার ডিম তৈরি হয়েছে মটরশুঁটি, শিম প্রভৃতি থেকে।১০ সেপ্টেম্বর যুক্তরাষ্ট্রে ‘বিয়ন্ড এগস’ নামে এ পাউডার ডিম বিক্রি শুরু হয়েছে। শিগগিরই এ ডিম বিশ্বের অন্য দেশগুলোতে রপ্তানির পরিকল্পনা করেছেন ‘বিয়ন্ড এগস’-এর উদ্যোক্তা জস ট্রেটরিক। উদ্ভিদ থেকে ডিম তৈরির এই উদ্যোগে জস ট্রেটরিককে সাহায্য করেছেন পেপলের প্রতিষ্ঠাতা পিটার থায়েল, মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস, সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ার প্রমুখ।

জস ট্রেটরিক কৃত্রিম ডিম সম্পর্কে জানান, বিল গেটস ও পিটার থায়েলসহ অনেকেই কৃত্রিম ডিমের তৈরি বিস্কুট খেয়ে দেখেছেন। আসল ডিমের সঙ্গে এর কোনো পার্থক্য ধরতে পারেননি তাঁরা। এতে কোনো কোলস্টেরল নেই। এ পাউডার ডিম তুলনামূলকভাবে সাশ্রয়ী হবে।

ট্রেটরিকস জানিয়েছেন, ‘খাদ্য-শিল্পে নতুন উদ্ভাবন শুরু হয়ে গেছে। প্রাণীর ওপর থেকে নির্ভরতা কমাতে এই উদ্ভাবনের বিকল্প নেই। তবে, এক্ষেত্রে আরও গবেষণা ও কাজ বাকি বলে মনে করছেন তিনি। উন্নয়নশীল দেশগুলোতে পুষ্টিকর খাবারের তালিকায় এ ধরনের কৃত্রিম ডিম যুক্ত করা যায় কিনা তা নিয়ে ভাবতে শুরু করেছেন তিনি।


lipstick1.thumbnailঠোঁটে লিপস্টিক দিলে মেয়েদের আরও সুন্দর দেখায়। শুধু তা-ই নয়, তাদের ব্যক্তিত্বও ফুটে ওঠে। কিন্তু মেয়েরা দিনে কতবার লিপস্টিক দেবে? ইউরোপ-আমেরিকায় সৌন্দর্যপিয়াসী মেয়েরা এমনকি দিনে ২৪ বারও ঠোঁটে লিপস্টিক দেয়। সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা গেছে, লিপস্টিকে ক্ষতিকর কিছু ধাতব পদার্থ থাকে। এতে অবশ্য আতঙ্কের কিছু নেই। কারণ, এদের উপস্থিতি খুব সামান্য। যেমন সিসা থাকে ১০ লাখ ভাগের মাত্র এক ভাগের সামান্য বেশি (এক পিপিএম)। কিন্তু বারবার ব্যবহারে ঠোঁট থেকে জিহ্বা হয়ে পেটে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে। শরীরে সিসা ঢুকলে তা ভেতরেই থেকে যায়। এখানেই ভয়। লিপস্টিকে সিসার উপস্থিতি ধরা পড়ে ২০০৭ সালে (দেখুন, নিউইয়র্ক টাইমস, ২০ আগস্ট ২০১৩)। সে সময় নিরাপদ প্রসাধনীর জন্য ‘বিষ চুম্বন’ আন্দোলন শুরু হয়। তবে লিপস্টিক দেওয়া নিয়ে আতঙ্কের কিছু নেই। দিনে দু-তিনবার অনায়াসে ব্যবহার করা যায়।


it1.thumbnailপাসওয়ার্ডগুগলের তথ্য নিরাপত্তা ব্যবস্থাপক হিদার অ্যাডকিনসের মতে, পাসওয়ার্ডের যুগ শেষ হয়ে গেছে।

অকেজো হয়ে যাচ্ছে পাসওয়ার্ড ব্যবস্থা।

ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর তথ্য নিরাপত্তায় এখন পাসওয়ার্ডের বিকল্প ভাবার আর কোনো বিকল্প নেই।

প্রযুক্তি বিষয়ক ওয়েবসাইট টেকক্রাঞ্চ আয়োজিত এক সম্মেলনে পাসওয়ার্ডের নিয়ে এমনই ভবিষ্যদ্বাণী করেন হিদার।

হিদার জানিয়েছেন, এখন নতুন উদ্যোক্তাদের পাসওয়ার্ডের বাইরে ভাবার সময় এসেছে। কারণ, ‘পাসওয়ার্ড এখন মৃত’।

তথ্যের নিরাপত্তায় এমন নিরাপত্তা ব্যবস্থা উদ্ভাবন করতে হবে যা দুর্বৃত্তরা কখনও হাতিয়ে নিতে না পারে।

হিদার আরও জানান, সার্চ জায়ান্ট গুগল পাসওয়ার্ডের বিকল্প ব্যবস্থা উদ্ভাবনে কাজ করছে। এরমধ্যে রয়েছে হার্ডওয়্যার টোকেন, উলকি ও পিল জাতীয় বিকল্প ব্যবস্থা।

হিদারের মতে, নতুন কোনো প্রযুক্তি-প্রতিষ্ঠান শুরুর আগে অবশ্যই তথ্যের নিরাপত্তা নিয়ে ভাবা উচিত। প্রতিষ্ঠানের তথ্য নিরাপত্তার সার্বক্ষণিক দায়িত্ব কমপক্ষে ২৫ ব্যক্তির ওপর থাকা প্রয়োজন।

পাসওয়ার্ডের বিকল্প হবে উলকি, পিল

যাঁদের পক্ষে পাসওয়ার্ড মনে রাখা কষ্টকর, তাঁদের জন্য গুগল তৈরি করছে বিশেষ ধরনের ইলেকট্রনিক উলকি আর পিল। এ উলকি শরীরে লাগিয়ে রাখতে পারবেন বা বিশেষ পিল সেবন করলে এগুলো পাসওয়ার্ড হিসেবেই কাজ করবে।

গুগলের অধীনস্থ মটোরোলা এই ইলেকট্রনিক ট্যাটু বা উলকি আর বিশেষ ধরনের পিল বাজারে আনতে কাজ করছে। বিশেষ এ উলকি ত্বকের ওপর আঁঁকা এক ধরনের সার্কিটের মতো। এতে কোনো ব্যাটারির প্রয়োজন পড়বে না।

ইলেকট্রনিক উলকির পাশাপাশি বিশেষ ধরনের ইলেকট্রনিক পিল বা বড়ি তৈরিতেও কাজ করছে গুগল। এ পিলটি খেলে মানুষের শরীর থেকে বিশেষ তরঙ্গ নির্গত হবে যা শনাক্ত করতে পারবে স্মার্টফোন। এ পিল শরীরের জন্য ক্ষতিকারক হবে না।

আইফোনে এল ফিঙ্গারপ্রিন্ট প্রযুক্তি

প্রযুক্তিপণ্য নির্মাতাপ্রতিষ্ঠানগুলো পাসওয়ার্ড ব্যবস্থার উন্নয়ন নিয়ে নানা গবেষণা করছে। প্রচলিত সংখ্যা পদ্ধতির পাসওয়ার্ড ব্যবস্থার বিকল্প হিসেবে অ্যাপল কর্তৃপক্ষ আইফোনের নতুন সংস্করণে ফিঙ্গারপ্রিন্ট প্রযুক্তি এনেছে। আইফোনে এ প্রযুক্তি আনতে ২০১২ সালে অথেনটেক নামের একটি প্রতিষ্ঠান কিনেছিল অ্যাপল। ১০ সেপ্টেম্বর ঘোষিত আইফোনের নতুন মডেলের সঙ্গে ফিঙ্গারপ্রিন্ট শনাক্তকারী সেন্সরযুক্ত করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

গবেষকেরা জানিয়েছেন, চোখের আইরিশ স্ক্যান ও কণ্ঠস্বর শনাক্তকরণ প্রযুক্তিকেও পাসওয়ার্ড ব্যবস্থা হিসেবে পরিচিত করার জন্য কাজ করছে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান।