Archive for the ‘মোবাইল টিপস’ Category


প্রতিদিনের কাজের তালিকাটা অনেকের অনেক লম্বা। এত সব কাজের মাঝে অনেক সময় প্রয়োজনীয় কাজটির কথা মনে থাকে না। আর যারা ভুলোমনা টাইপের মানুষ তাদের বিষয়ে তো কথাই নেই। যথাসময়ে কাজের কথা ভুলে যান সহজেই। ফলে অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজ সঠিক সময়ে করা হয় না। তবে স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের সহায়তায় রয়েছে কিছু অ্যাপস।

স্মার্টফোনে দৈনন্দিন পরিকল্পনাগুলোকে সাজিয়ে রাখলে তা মনে করিয়ে দেবে কখন কোন কাজটি করতে হবে? কেমন হবে তখন? কাজের তালিকা তৈরির জন্য অ্যান্ড্রয়েড এবং আইওএসের রয়েছে অনেক অ্যাপস। এগুলোর মধ্যে থেকে সবচেয়ে জনপ্রিয় ৫টি অ্যাপস নিয়ে এ প্রতিবেদন।

 

এ্যানি ডু (any.do)

 

লাখো ব্যবহারকারী প্রতিদিন তাদের কর্মপরিকল্পনার জন্য এ্যানি ডু অ্যাপ ব্যবহার করেন। এটির ডিজাইন খুব সুন্দর এবং ব্যবহার করা খুব সহজ।

 

Any.DO-iPhone_techshohor

 

এ্যানি ডু অ্যাপে রয়েছে ক্লাউড সুবিধা। এতে তালিকায় থাকা কাজগুলো মেইল আইডি এবং ফেইসবুকের সাহায্যে সিনক্রোনাইজ করা যাবে। ফলে অন্য কোনো ডিভাইস থেকে সিনক্রোনাইজ করলে পাওয়া যাবে কাজের ফর্দ। কর্মপরিকল্পনার সময় ঠিক করে রাখলে নির্দিষ্ট সময়ে তা এ্যালার্ম দিয়ে জানিয়ে দেবে।

 

এটি অ্যান্ড্রয়েড ও আইওএস অপারেটিং সিস্টেমের জন্য ফ্রি ডাউনলোড করে ব্যবহার করা যাবে।
এখান থেকে অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারীরা ডাউনলোড করে ব্যবহার করতে পারবেন।

 

রিমেমবার  দ্যা মিল্ক (Remember the Milk) (বিস্তারিত…)

Advertisements

ছবি তোলার পর সেটিকে আরও সুন্দরভাবে ফুটিয়ে তুলতে হাল আমলে এফেক্ট যোগ করা হচ্ছে হামেশ্ই। ছবিতে নিত্য নতুন ইফেক্ট যুক্ত করার প্রবণতা বাড়ছে। তবে এ জন্য কম্পিউটার বা সফটওয়্যারে এক্সপার্ট হওয়ার প্রয়োজন নেই। একটি অ্যাপ ব্যবহার করেই এ কাজটি করা যাবে খুব সহজেই।

ছবিতে ইফেক্ট যোগ করতে অ্যান্ড্রয়েডের রয়েছে নানা অ্যাপস। এত সব অ্যাপসের মধ্যে ভাল একটি অ্যাপস খুঁজে পাওয়া একটু কঠিন বৈকি। অনেকগুলোর মধ্যে থেকে বাছাই করে ব্যবহার করা যেতে পারে জেনরেট্রো (XnRetro)। ছবিতে ইফেক্ট যুক্ত করার জন্য এটি চমৎকার একটি অ্যাপ। এতে রয়েছে দারুণ এবং সুন্দর অনেকগুলো ইফেক্ট। যে ইফেক্টগুলো ব্যবহার করলে ছবি আগের থেকে আকর্ষণীয় হবে।

app-xnretro-512

অ্যাপটির ফিচারগুলো হলো- (বিস্তারিত…)


বিশ্ববিদ্যালয়ের রঙ্গীন দিনগুলোর গল্প, মজাদার কাহিনী, ভাল ও খারাপ লাগা অনুভূতির স্মৃতিচারণ মূলক লেখার একটি অ্যাপ উম্মুক্ত করা হয়েছে।

ইউনিভার্সিটি লাইফ বাই সরব.কম নামের অ্যাপটিতে উঠে এসেছে ১৮ জন ব্লগারের বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের দিনগুলো।

shrobapps_techshohor

সম্প্রতি অ্যাপটি প্রকাশের আগে বিভিন্ন  ব্লগারদের কাছ থেকে লেখা সংগ্রহ করা হয়। এরপর অনেক লেখা থেকে বাছাই করা ১৮টি নিয়ে একটি ই-বুক প্রকাশ করা হয়েছিল।

ই-বুক প্রকাশের পর এটি অ্যাপ আকারে গুগল স্টোরে প্রকাশ করা হয়।

অ্যাপটির মাধ্যমে নির্বাচিত বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের দারুণ সব গল্পগুলো সহজে পড়া যাবে। অ্যাপটির ওপরে একটি মেন্যু রয়েছে যেখান থেকে প্রথম পাতা, সম্পাদকীয়, বইটির সর্ম্পকে এবং সূচী দেখা যাবে। কিভাবে অ্যাপটি ব্যবহার করতে হবে সেজন্য রয়েছে ‘ইউজার গাইড’।

অ্যাপটি সর্ম্পকে সরব.কমের সমন্বয়কারী নুরউদ্দিন আহমেদ বাপ্পি বলেন, ‘সরব উদ্ভাবনে বিশ্বাস করে। গত ৬/৭ বছরে বাংলা ব্লগাররা নতুন তাদের বক্তব্য, আইডিয়া, গল্প  মানুষের কাছে পৌঁছে দিয়েছেন। সরব সেদিকে একটু বেশি সক্রিয়। এক মহৎ  রিকশাচালকের হাসপাতাল তৈরির ওপর ব্লগ থেকে শুরু করে রবিঠাকুর এবং বাংলাদেশের মিডিয়ার ওপর ইনফোগ্রাফিক প্রকাশ করেছে সরব।

বাপ্পি জানান, বাংলা ভাষায় প্রথম গণিতের ওপর ই-বুক এর পাশাপাশি এবার সরব বিশ্ববিদ্যালয়ের জীবনের গল্প নিয়ে ই-বুক তৈরি করেছে। সরব তারুণ্যের প্ল্যাটফর্ম। আর তরুণদের কাছে পৌঁছানোর সহজ উপায় মোবাইল ফোন। তাই মোবাইল অ্যাপ আকারে ই-বুকটা প্রকাশ করা হয়েছে।

অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমচালিত স্মার্টফোনের ব্যবহারকারীরা ১.৬৩ মেগাবাইটের অ্যাপটি এখান থেকে ডাউনলোড করতে পারবেন।


যুগের সাথে তাল মিলিয়ে বই পড়ার মাধ্যমও বদলে যাচ্ছে। কাগজের মলাটে বাঁধাই করা বইয়ের পাশাপাশি এখন ই-বুক বা ডিজিটাল বুকও জনপ্রিয় হয়ে ঊঠছে। এরই প্রেক্ষিতে দেশের অন্যতম মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান মোবিওঅ্যাপ তৈরি করেছে ‘বই পোকা’ নামে একটি ডিজিটাল বুক রিডিং অ্যাপ্লিকেশন।

পাঠকরা আইফোন এবং অ্যান্ড্রয়েডের সকল স্মার্ট ডিভাইসে বিনামূল্যের এই অ্যাপ্লিকেশনটি ব্যবহার করে বই পড়তে পারবেন। এতে কালজয়ী সব ক্লাসিক বই দেওয়া আছে। পাঠকরা সেগুলো বিনামুল্যে পড়তে পারবেন।

Boipoka-TechShohor

এছাড়াও একজন পাঠক জনপ্রিয় সব লেখকের বই অ্যাপ্লিকেশনটির ‘ইন-অ্যাপ পারচেজ’ ফিচারটির মাধ্যমে খুব সহজেই কিনে পড়তে পারবেন। পাঠকদের বই পড়ার অভিজ্ঞতাকে নতুন মাত্রা দিতে অ্যাপ্লিকেশনটিতে রয়েছে বুকমার্ক, হাইলাইটার, আন্ডারলাইন, অ্যানোটেশন, পেইজ জাম্প, বুক রেটিংয়ের মতো কার্যকর সব ফিচার।

অ্যাপটি ব্যবহারকারীরা তাদের নিজস্ব পিডিএফ বইয়ের সংগ্রহও খুলতে পারবেন। তারা বইয়ের কোন একটি পছন্দের অংশ সোশ্যাল শেয়ার ফিচারের মাধ্যমে সামাজিক যোগাযোগের সাইটগুলোতে বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করতে পারবেন।

প্রকাশক এবং লেখকদের মেধাসত্ত্ব ও রয়্যালটি রক্ষার্থে এবং পাইরেসি রোধকল্পে নির্মাতা প্রতিষ্ঠান মোবিওঅ্যাপ নিজস্ব পিডিএফ রিডার তৈরি করে অ্যাপলিকেশনটিতে ডিজিটাল রাইট ম্যানেজমেন্ট (ডিআরএম), দুই স্তরের নিরাপত্তা এবং এনক্রিপশনের ব্যবস্থা করেছে।

২১শে বইমেলা উপলক্ষে বই পোকা অ্যাপ থেকে ডিজিটাল বই ৬০ থেকে ৬৫ শতাংশ ছাড়ে কিনতে পারবেন বাংলা একাডেমী প্রাঙ্গনে বইমেলার ৫১৩ নাম্বার স্টল থেকে।

‘বই পোকা’ অ্যাপটি এই লিংক থেকে ডাউনলোড করা যাবে।


দুর্ঘটনার কোনো সময় অসময় নেই। তাই সব সময় প্রস্তুত থাকা ভালো। এ ক্ষেত্রে হাতের স্মার্টফোনটিও কাজে আসতে পারে। যদি প্রাথমিক চিকিৎসার জন্য ফার্স্ট এইড অ্যাপটি নামানো থাকে।

দুর্ঘটনার পরপর আহত ব্যক্তিকে নিকটের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার আগে প্রয়োজন প্রাথমিক চিকিৎসার। ফার্স্ট এইড অ্যাপটি সে সময় জানিয়ে দেবে রোগীর জন্য কি ধরনের প্রাথমিক চিকিৎসা প্রয়োজন।

চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ করার আগে অ্যাপটির ব্যবহার বেশ উপকারে আসবে। দুর্ঘটনা ছাড়াও অন্যান্য রোগের সমন্ধে প্রাথমিকভাবে জানতেও সাহায্য করবে এটি। দারুণ কাজের এ অ্যাপটির সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিতে এ প্রতিবেদন।

First-aid-android-logo_techshohor

বিশ্বব্যাপী অ্যাপটি বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে। এখন পর্যন্ত দশ লাখ বার ডাউনলোড করা হয়েছে। গুগলের প্লেস্টোরে অ্যাপটির রেটিং ৪.৫। সাইজ ৩.৪ মেগাবাইট।

এক নজরে অ্যাপটির ফিচারগুলো
১. এতে রয়েছে স্বাস্থ্য বিষয়ক নানা ট্রিপস।
২. জরুরী নম্বরে কল করার ব্যবস্থা রয়েছে।
৩. প্রাথমিক রোগ সনাক্তেও সাহায্য করবে এটি। রোগীকে অসুস্থতার ধরণ সর্ম্পকে প্রশ্ন করে এর উওর দেওয়ার মাধ্যমে তা সনাক্ত করা যায়।
৪. বিভিন্ন ধরনের রোগের প্রাথমিক চিকিৎসা সর্ম্পকে বিস্তারিত ছবিসহ  বর্ণনা দেওয়া আছে।

firstaid_techshohor

৫. অ্যাপটিতে রয়েছে বিভিন্ন ওষুধের নাম।
৬. বিভিন্ন রোগের কারণ সর্ম্পকে তুলে ধরা হয়েছে এবং প্রতিকারগুলো সুন্দরভাবে তুলে ধরা হয়েছে।

এখান থেকে অ্যাপটি বিনামূল্যে ডাউনলোড করে ব্যবহার করা যাবে।


স্বাস্থ্য সেবায় প্রযুক্তির ব্যবহার বহুল প্রচলিত। ইদানিং স্মার্টফোনের মাধ্যমেও মিলছে স্বাস্থ্যের বিভিন্ন সেবা। নতুন নতুন ডিভাইস ও অ্যাপ ভূমিকা রাখছে এ ক্ষেত্রে। তেমনি একটি ডিভাইস ও অ্যাপ হলো এলাইভইসিজি।

স্মার্টফোনে এটি ব্যবহার করা হলে এখন আর রোগীকে রিপোর্ট দেখানোর জন্য চিকিৎসকের চেম্বারে শশরীরে যেতে হবে না। স্মার্টফোনটিই এখন হৃদকম্পন পরিমাপ করে তা স্বয়ংক্রিয়ভাবে পাঠিয়ে দিবে চিকিৎসকের কাছে।

alivecor

প্রযুক্তিবিদ ও চিকিৎসকরা এ প্রযুক্তিকে স্বাস্থ্য সেবায় যুগান্তকারী পদক্ষেপ হিসাবে দেখছেন। হাতে পরিধানযোগ্য এ ডিভাইসের মাধ্যমে স্মার্টফোনে থাকা এলাইভইসিজি নামের অ্যাপটি প্রতিনিয়ত হৃদকম্পন রেকর্ড করবে। http://adf.ly/eEH1d

এরপর অ্যাপটি রেকর্ড করা ডাটাবেস থেকে তথ্য বিশ্লেষণ করে কোনো সমস্যা থাকলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ই-মেইলের মাধ্যমে তা চিকিৎসকের কাছে পাঠিয়ে দেবে। ফলে চিকিৎসক রেকর্ড দেখে চিকিৎসার নির্দেশনা দিতে পারবেন।

এর ফলে রোগীকে কষ্ট করে হাসপাতালে চিকিৎসকের চেম্বারে যেতে হবে না। ঘরে বসেই চিকিৎসা সেবা পাওয়া যাবে। রোগী ও চিকিৎসক উভয়ের সময় সাশ্রয় হবে।

৫৭  বছর বয়সী উত্তর ক্যারোলিনার বাসিন্দা ই বি ফক্স গত বছরের অক্টোবর থেকে ডিভাইসটি ব্যবহার করছেন। তিনি জানান, এখন তাকে কষ্ট করে চিকিৎসকের কাছে যেতে হয় না। একটি ই-মেইলের মাধ্যমেই চিকিৎসার দিক নির্দেশনা পাচ্ছেন তিনি।

স্মার্টফোনের মাধ্যমে স্বাস্থ্যসেবা খাতেও নতুন দিগন্ত উন্মোচিত হয়েছে নতুন এ প্রযুক্তির মাধ্যমে।


স্মার্টফোন অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে অ্যান্ড্রয়েডের জনপ্রিয়তা শীর্ষে। অ্যাপস সহজলভ্যতার জন্য অ্যান্ড্রয়েডের ব্যবহার বেশি। এ অপারেটিং সিস্টেমের স্মার্টফোন কাস্টমাইজ করার জন্য নানা রকম লঞ্চার অ্যাপ ব্যবহার করা হয়ে থাকে। এসব লঞ্চার দ্বারা হোম স্কিন, উইজেট ইত্যাদি বিভিন্ন রুপে দেখা যায়।

অ্যান্ড্রয়েডের অনেক লঞ্চারের মধ্যে থেকে ভালোটি খুঁজে পাওয়া খুবই কষ্টসাধ্য। এ প্রতিবেদনে চারটি লঞ্চারের সাথে পরিচিয় করিয়ে দেওয়া হলো যা আপনার কাজ সহজ করে দেবে।

apex

এপেক্স লঞ্চার (Apex Launcher)
অ্যান্ড্রয়েডের এ অ্যাপও বেশ জনপ্রিয়। গুগল প্লে স্টোর থেকে এক (বিস্তারিত…)


অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারীদের জন্য স্মার্টফোনটি সঠিকভাবে চালাতে বেশ কিছু সাহায্যকারী অ্যাপ আছে। কিছু অ্যাপ আছে যেগুলো মেমোরি ক্লিনার হিসেবে ব্যবহার করা হয়। এগুলো ব্যবহার করা হলে স্মার্টফোনের গতি কিছু হলেও বৃদ্ধি পায়। অপ্রয়োজনীয় অ্যাপ বন্ধ রাখে ফলে ব্যাটারি চার্জ ক্ষয় কম হয়। সে রকম একটি চমৎকার অ্যাপ অ্যান্ড্রয়েড অ্যাসিস্ট্যান্ট।

অ্যাপটি ফাইল ম্যানেজার হিসেবে ব্যবহার করা যাবে। একই সাথে প্রয়োজনীয় ফাইল ব্যাকআপ রাখাসহ অনেক কাজ করা যাবে এটির সাহায্যে। এ যেন একেক ভিতর সব।

android_assistent_escreveassim.com_.br_

এক নজরে অ্যাপটির ফিচারগুলো (বিস্তারিত…)


প্রযুক্তির উন্নতির সঙ্গে বাড়ছে স্মার্টফোন ব্যবহার। মুহূতেই অনেক কাজ করে ফেলা যায় নতুন প্রযুক্তির এ ফোনের সাহায্যে। বিশেষ করে বিভিন্ন ধরনের অ্যাপস ব্যবহার অনেক জটিল ও দূরহ বিষয়কেও সজহ করেছে। এরই ধারাবাহিকতায় তৈরি হয়েছে শিক্ষামূলক বিভিন্ন অ্যাপস। তেমনি একটি অ্যাপ নামাজ শিক্ষা।

মুসলিম ধর্মের এ অত্যাবশ্যকীয় ইবাদত প্রতিপালনের বিষয় স্মার্টফোনের মাধ্যমে শেখাতে বাংলা অ্যাপটি তৈরি করা হয়েছে। নামাজ পড়ার নিয়মকানুন, নামাজের সময়, বিভিন্ন সূরা এবং দোয়া সম্পর্কে এতে তুলে ধরা হয়েছে।

imagesএক নজরে অ্যাপটির ফিচারগুলো
১. পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের (বিস্তারিত…)


এবার পুরো রাজধানী ঢাকার জন্য আনুষ্ঠানিকভাবে ‘ডিএমপি’ অ্যাপ চালু করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে অ্যাপটির উদ্বোধন করেন ডিএমপি কমিশনার বেনজীর আহমেদ।

অ্যাপটির মাধ্যমে ঢাকার সকল থানার ওসি এবং ডিউটি অফিসারের নম্বরসহ পাওয়া যাবে প্রতিটি থানার ঠিকানা এবং ম্যাপ। এই অ্যাপ্লিকেশনটি ব্যবহার করে ঢাকার যে কোন স্থান থেকে আপনি আপনার সবচেয়ে কাছের থানাটি সহজেই খুঁজে বের করতে পারবেন; সেই সাথে গুগল ম্যাপে আপনাকে সেই থানায় যাওয়ার পথও দেখিয়ে দেবে।

মঙ্গলবার দুপুরে উদ্বোধন হলেও সোমবার রাতে এটি চালু হয়। প্রথম রাতেই ‘অ্যাপটি ১৪ হাজার ডিভাইস থেকে ডাউনলোড হয়েছে বলে অনুষ্ঠানে জানানো হয়। ফেইসবুক পেইজের মাধ্যমেও ভালো সাড়া মিলছে বলে জানান ডিএমপি কর্মকর্তারা।

Image

মোবাইল ফোনের মাধ্যমে পুলিশের বিভিন্ন সেবাকে জনগনের আরও কাছে পৌছে দিতে ডিএমপি আনুষ্ঠানিকভাবে চালু করল ‘ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ-ডিএমপি’ নামের এ স্মার্টফোন অ্যাপ্লিকেশন।

উত্তরায় সর্বপ্রথম অ্যন্ড্রয়েডচালিত অ্যাপ্লিকেশন (অ্যাপ) চালু করে ডিএমপি।

বর্তমানে অ্যান্ড্রয়েড প্লাটফর্মের সকল মোবাইল ফোনে (স্যামসাং, ওয়ালটন, সিম্ফনি, এইচটিসিসহ অন্যান্য) এটি ব্যবহার করা যাবে।

নতুন মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনটি চালু (বিস্তারিত…)


গ্রামীনফোন এয়ারটেলবাংলালিংকরবিটেলিটকসিটিসেল
——————————————————–
( আপনাদের ১০০% কাজে লাগবেইইই… আজ লাইক দিলে যে দিন কাজে লাগবে ঐ দিন আর পাবেন না

গ্রামীনফোন
নিজের নাম্বার জানতে *১১১*৮*২#
নিজের নাম্বার জানতে *২#
ব্যালেন্স জানতে *৫৬৬#
রিচার্জ করতে *৫৫৫* গোপন নাম্বার #
কাস্টমার কেয়ার : ১২১ এ ফোন দিয়ে ১ প্রেস করে ০
অন্য অপারেটর থেকে গ্রামীন ফোন কাস্টমার কেয়ার ০১৭১১-৫৯৪৫৯৪

এয়ারটেল
নিজের নাম্বার জানতে *১২১*৬*৩#
ব্যালেন্স জানতে *৭৭৮#
রিচার্জ করতে *৭৮৭* গোপন নাম্বার #
কাস্টমার কেয়ার : ৭৮৬
অন্য অপারেটর থেকে এয়ারটেল কাস্টমার কেয়ার ০১৬৭৮৬০০৭৮৬

বাংলালিংক
নিজের নাম্বার জানতে *৫১১#
নিজের নাম্বার জানতে *৬৬৬#
ব্যালেন্স জানতে *১২৪#
রিচার্জ করতে *১২৩* গোপন নাম্বার #
কাস্টমার কেয়ার : ১২১ অথবা ২১২
যে কোনো অপারেটর থেকে বাংলালিংক কাস্টমার কেয়ার ০১৯১১-৩০৪১২১

রবি
নিজের নাম্বার জানতে *১৪০*২*৪#
ব্যালেন্স জানতে *২২২#
রিচার্জ করতে *১১১* গোপন নাম্বার #
কাস্টমার কেয়ার : কাস্টমার কেয়ার : ১২৩ এ ফোন দিয়ে ১ প্রেস করে ০
যেকোনো অপারেটর থেকে রবি কাস্টমার কেয়ার ০১৮১৯৪০০৪০০

টেলিটক
নিজের নাম্বার জানতে মেসেজ অপশনে লিখুন TAR পাঠিয়ে দিন ২২২ নাম্বারে
ব্যালেন্স জানতে *১৫২#
রিচার্জ করতে *১৫১* গোপন নাম্বার #
কাস্টমার কেয়ার : ১২১
যেকোনো অপারেটর থেকে টেলিটক কাস্টমার কেয়ার ০১৫৫-০১৫৭৭৫০ থেকে ৬০

►সিটিসেল
নিজের নাম্বার জানতে – নাই
ব্যালেন্স জানতে বা দেখতে *৮৮৭ ডায়াল
ব্যালেন্স শুনতে *৮১১ ডায়াল
রিচার্জ করতে *৮৮৮ ডায়াল
কাস্টমার কেয়ার : ১২১
যেকোনো অপারেটর থেকে সিটিসেল কাস্টমার কেয়ার ০১১৯৯-১২১১২১


601712_367828133323807_1314266991_n(1)আগামী ছয় মাসের বাংলাদেশে Mobile Number Portability (MNP) চালু করার জন্যে কাজ শুরু করেছে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন বিটিআরসি। আগামী সপ্তাহে অনুষ্ঠিত কমিশন বৈঠক থেকেই এ বিষয়ে অপারেটরদের নির্দেশ দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন বিটিআরসি’র সংশ্লিষ্ট বিভাগগুলো।MNP= বিদ্যমান নম্বর ঠিক রেখেই ইচ্ছে মতো অপারেটর বদলের সুযোগ.

তবে বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে গ্রামীণফোনের সিইও বিবেক সুদ বলেছেন, তারা এমএনপি’র বিপক্ষে। কারণ এর ফলে নতুন অপারেটরদের সম্ভাবনা বাড়লেও তারা খানিকটা হলেও ঝুঁকিতে পড়বেন।

অন্যদিকে এয়ারটেলের কর্পোরেট বিভাগের প্রধান আশরাফুল হক চৌধুরী বলেছেন, এর আগে দফায় দফায় তারা এমএনপি’র বিষয়ে দাবি জানালেও শেষ পর্যন্ত এটি আধারেই থেকে গেছে। এখন অনেক বিলম্ব হয়ে গেলেও এটি বাস্তাবায়িত হলে তাতে গোটা দেশেরই লাভ হবে।

ভারতে এই পরিবর্তনের জন্যে ১৯ রুপী করে খরচ করতে হয়। থাইল্যান্ডে খরচ করতে হয় ৯৯ বাথ করে। তবে মালয়েশিয়াতে এটি ফ্রি। ভারতে তৃতীয় অপর একটি কোম্পানি এমএনপি’র কাজ করে দিলেও বাংলাদেশের অপারেটরগুলো এর বিপক্ষে বলেছে। ফলে নিজেদেরকেই এখন প্রযুক্তি স্থাপন করতে হবে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া, জার্মানি, ব্রাজিলসহ অনেক দেশেই এখন এমএনপি আছে। পাশের ভারত ২০০১ সালে এই প্রযুক্তি গ্রহন করেছে। পরে পাকিস্তান এবং শ্রীলংকাও এমএনপি’র বাস্তাবায়ন করেছে। (প্রিয় টেক)

[ আমাদের কথাঃ MNP সার্ভিসটি চালু হলে সবচেয়ে বেশী উপকৃত হবে গ্রাহক, কারণ তারা যে অপারেটরে কম মূল্যে বেশী সেবা পাবে সেই অপারেটর এর নেটওয়ার্কে চলে যাবে । ফলে গ্রাহক হারানোর ভয়ে সকল অপারেটরই গ্রাহকদের সর্বোচ্চ সার্ভিস দেওয়ার চেষ্টা করবে । এক্ষেত্রে একচেটিয়া বাজার ব্যবহার পরিবর্তন হবে ]


558395_142071752602463_1384647620_n-300x225সাবধান হন এখনি। আপনিও হতে পারেন সিম ক্লোনের শিকার। হাঁ ভয়ানক এই তথ্যটি জানতে পারি একুশে টিভির এক বন্ধুর মাধ্যমে। পরে বিষয়টি সম্পর্কে আরও স্পষ্ট ধারনা পেতে একুশে টি ভির নিউজ দেখে শিওর হলাম মাত্র।

১- সিম ক্লোন কি?
একটি সিম যেটি আপনি ব্যবহার করছেন সেই সিম টি যদি অন্য কেউ ব্যবহার করে কিংবা এক নাম্বার যদি দেখেন এক সাথে দুইজন ব্যবহার করে কিংবা হঠাৎ করে যদি দেখেন আপনার সেল ফোনের কানেকশন নাম্বার থেকে ব্যালান্স কোন কারন ছাড়া কমে যাচ্ছে তবে আপনি সিম ক্লোনের শিকার।

২- কিভাবে শিকার হবেন সিম ক্লোনের?
আপনি যদি অপরিচিত কোন নাম্বার থেকে মিসড কল পান এবং সেটাতে যদি কল ব্যাক করেন তবে আপনি সিম ক্লোনিং এর শিকারে পরিনত হতে পারেন। দুষ্কৃতকারীরা বিশেষ একটি সফটওয়্যার এর মাধ্যমে আপনার নাম্বার টি ক্লোনিং করে। অর্থাৎ আপনি যখন মিসড কল নাম্বারে কল ব্যাক করবেন তখন একটি সফটওয়্যার এর মাধ্যমে আপনার নাম্বার টি ক্লোন হতে পারে। সিম ক্লোনিং হলে আপনার সিমে রাখা ডাটা ক্লোন নাম্বারে চলে যাবে। এবং আপনার প্রাইভেসি ক্ষুণ্ণ হবে।৩- যে সমস্যায় আপনি পড়তে পারেন সিম ক্লোনিং হয়ে গেলে?
সাধারনত জঙ্গি কিংবা দুষ্কৃতিকারীরা আপনার নাম্বার টি ব্যবহার করে আপনার জীবন বিপন্ন করতে পারে। অর্থাৎ ওই নাম্বার দিয়ে কেউ কাউকে মৃত্যুর হুমকি, চাঁদাবাজি কিংবা জঙ্গি কানেকশন করলে আপাত দায়ভার আপনার উপর বর্তাবে। কাজেই আপনি আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে ধৃত হবেন। পরবর্তীতে আরও নানাবিধ সমস্যায় পড়তে পারেন।লক্ষ্য করুন———–
* ভারতে সম্প্রতি এক লাখ সিম ও রিম কার্ড ক্লোনিং হয়েছে। সেখানকার গোয়েন্দা বাহিনী সতর্ক অবস্থায় রয়েছে। ভারতের গোয়েন্দা সংস্থা জানিয়েছে ওই ক্লোনিং সিম বা রিমের মাধ্যমে অনেক অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে।
* বাংলাদেশে এখনও সিম ক্লোনিং হয়েছে বলে ৬ টি মোবাইল অপারেটরের হাতে এমন কোন তথ্য নেই। তবে বাংলাদেশের গোয়েন্দা সংস্থা জানিয়েছে যে কোন সময় এমন অনাকাংখিত ঘটনা ঘটতে পারে।সতর্ক হবেন যেভাবে-
* অপরিচিত নাম্বার থেকে মিসড কল এলে আপনি কল ব্যাক করার পূর্বে ভালো করে চিহ্নিত করবার চেষ্টা করুন যে এটি কার নাম্বার। অথবা কল ব্যাক করা বন্ধ করুন।
* মনে রাখবেন সিম ক্লোনিং হতে হলে মিসড কল আসবে। ডাইরেক্ট রিং হলে সেটি রিসিভ করলে আপনি সিম ক্লোনিং এর শিকার হবেন না। মিসড কল এলেই সতর্ক হন।
* যদি দেখেন আপনার সেল ফোনের ব্যালান্স অকারণে কমে যাচ্ছে সাথে সাথে কল সেন্টারে ফোন করে জানান।
* আপনার সেল ফোন টি এখনি বন্ধ করে অন্য একটি নাম্বার থেকে আপনার নাম্বারে ফোন দিন। দেখুন রিং হয় কিনা। রিং হলে আপনি সিম ক্লোনিং এর শিকার।

সবাই সতর্ক থাকুন ,ভালো থাকুন ।


নিচে টেলিটকের বেসিক ইন্টারনেট সেটিংস সম্পর্কে কিছু তথ্য সংক্ষেপে তুলে ধরলাম।

Teletalk Internet Settings (basic):

• APN – (Access Point Name) : wap
• Proxy Address/ IP/ Getway : 192.168.145.101
• Proxy Port Number : 9201

কম্পিউটারের ক্ষেত্রে ডায়াল আপ কানেকশনে dial নম্বর প্রয়জন পড়তে পারে।
• APN (Access Point Name) : wap
• Phone Number (dial up) : *99#


আমাদের সমাজ এর সকল মেয়েরাই নিজের Phone Number  টা নিয়ে ব্যাপক

Problem এ পরে !!! বার বার Sim Card বদল করে ও সুরাহা পান না । এ ক্ষেত্রে বাংলালিংক এর এই

অফার টা আমার কাছে খুব ই ভাল লেগেছে । Recharge এর সময় Number না বলে ১০ সংখ্যার

একটা Code বললে ই চলবে। সেই Code  ও আবার ইচ্ছে মত Change করে নেয়া যায় ।

এবার সিস্টেম টা বলি-

প্রথমে আপনার Massage option থেকে PIN লিখে 7326 নাম্বার এ Send করতে হবে ।

Than, সাথে সাথে আপনাকে আপনার টাকা Recharge এর Code টা দেয়া হবে । আপনি এই Code

দিয়ে ই Recharge করতে পারবেন ।

Code Change করতে হলে-

MPIN -স্পেস-  Office Code -স্পেস-  New Code এবং Send করতে হবে 7326 নাম্বার এ ।

c tt


সকল ডি-অ্যাক্টিভ/ ইনঅ্যাক্টিভ প্রিপেইড জিপি SIM গ্রাহকদের জন্য গ্রামীণফোন নিয়ে এলো এক আকর্ষনীয় অফার! এই অফারটি সকল গ্রামীণফোন (সহজ, বন্ধু,আপন,স্মাইল, বিজনেস সলিউশনস ১, ২,৩ ও সফল,একতা ১ ও ২, বাঁধন,স্পন্দন, আমন্ত্রণ) প্রিপেইড, ডিজুস প্রিপেইড,ইন্টারনেট সিম প্রিপেইড গ্রাহক যারা ২৪ আগস্ট ২০১২ বা তার পূর্বহতে তাদের সংযোগটি বন্ধ রেখেছেন তারা বন্ধ সংযোগ চালু করলেই পাচ্ছেন ৫০০% বোনাস, প্রতি ২টাকার
কথা বললেই! (গ্রাহকগণ প্রতি ২ টাকার কথা বললেই ১০ টাকা বোনাস হিসাবে পাবেন)।৫০০% বোনাস যেভাবে পাবেন:

১. টকটাইম ২০০%
(জিপি-জিপি)

২. এসএমএস ২০০%
(জিপি-জিপি)

৩. ইন্টারনেট ১০০%
এতেই শেষ না!

আছে বাড়তি আরো কিছু! উপভোগ করুন সারাদিন আনলিমিটেড ইন্টারনেট মাত্র ৪ টাকায়!

অফারের বিস্তারিত

গ্রাহকগণ প্রতি ২ টাকার কথা বললে জিপি- জিপি ৪ টাকার বোনাস টকটাইম ও ৮টি এসএমএস (৪ টাকার সমপরিমাণ) এবং ২ মেগাবাইট ইন্টারনেট (২ টাকার সমপরিমাণ) বোনাস হিসাবে পাবেন।বোনাস পেতে গ্রাহককে ন্যূনতম ২ টাকার (লোকাল) কথা বলতে হবে। প্রতিদিন সর্বোচ্চ ৩০ টাকার সমপরিমাণ বোনাস (টকটাইম +এসএমএস + ইন্টারনেট), ১২ টাকার টকটাইম, ২৪টি এসএমএস এবং ৬ মেগাবাইট ইন্টারনেটপাওয়া যাবে।

লোকাল ভয়েস কল এর ক্ষেত্রে লোকাল PSTN,NWD, P2P কল প্রযোজ্য।

বোনাস টকটাইমের ব্যালেন্স জানতে ডায়াল করুন
*৫৬৬*৯#,এসএমএস এর
জন্য *৫৬৬*২#
এবংইন্টারনেটের জন্য
*৫৬৬*১০#
সুপার F&F, বোনাস
টকটাইম, মাই জোন কল-এর উপর বোনাস প্রযোজ্যহবে না।

বোনাস টকটাইমে শুধুমাত্র জিপি-জিপি কলের ক্ষেত্রে সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত (৬০
পয়সা বা তার কম রেটের কল ব্যতীত)কথা বলতে পারবেন।

সকল বোনাস এর মেয়াদ ২ দিন (বোনাস পাওয়ার দিন সহ)।এছাড়াও প্রাহকগণ প্রতিদিনের ফ্রি ইন্টারনেট বোনাস ব্যবহারের পরে সর্বোচ্চ ৪ টাকায় আনলিমিটেড ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারবেন।

ইন্টারনেট অফারটি (ফ্রি ইন্টারনেট বোনাস + সর্বোচ্চ৪ টাকায় আনলিমিটেড ইন্টারনেট)
পেতে গ্রাহককে মিনিপ্যাক
Pay Per Use (P1) প্যাকেজ অ্যাক্টিভেট করতে হবে।
প্রতিদিনের P1 প্যাকেজের ইন্টারনেট ব্যবহার ব্যালেন্স জানতে ডায়াল করুন*৫৭৭*৫# প্রতিদিন ১০মেগাবাইট (ফ্রি ইন্টারনেট বোনাস+ P1 ডাটা ইউসেজ)
ব্যবহারের পরে Fair Usage Policy প্রযোজ্য হবে। গ্রাহকগণ ২৪ kbps স্পিডে রাত ১২টা পর্যন্ত
ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারবেন।

আপনার ব্যবহৃত প্যাকেজ অনুযায়ী ট্যারিফ ও পালস্ নির্ধারিত হবে।১৫% ভ্যাট প্রযোজ্য।

অফারের সময়সীমা এই অফার ১ অক্টোবর ২০১২ হতে পরবর্তী ঘোষণা না দেয়া পর্যন্ত চলবে।


আগস্ট মাসে দেশে মোবাইল গ্রাহক বৃদ্ধি পেয়েছে মাত্র ৮ লাখ ১৪ হাজার। তাতে দেশের মোট কার্যকর মোবাইল সিমের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৯ কোটি ৫৫ লাখ ২৮ হাজার। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় এই হিসাব প্রকাশ করেছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা-বিটিআরসি।

এর আগে যেখানে প্রতি মাসে ১২ থেকে ১৬ লাখ পর্যন্ত নতুন গ্রাহক পেয়েছে মোবাইল ফোন অপারেটররা; সেখানে জুলাই মাস থেকে গ্রাহক বৃদ্ধির হার কমতে শুরু করেছে। জুলাই মাসেও সব মিলে মাত্র ৯ লাখ গ্রাহক যুক্ত হয়েছিল অপারেটরদের সঙ্গে।

প্রকাশিত হিসাব অনুসারে শীর্ষ অপারেটর গ্রামীণফোনের গ্রাহক ৩ কোটি ৯৮ লাখ ৩ হাজার। তবে যে সময় পর্যন্ত হিসাব প্রকাশ হয়েছে তার মাত্র দুই তিন দিন পরেই গ্রামীণফোনের গ্রাহক চার কোটি পেরিয়ে গেছে। গ্রামীণফোন সূত্রেই পাওয়া গেছে এ খবর।

দ্বিতীয় গ্রাহক সেরা অপারেটর বাংলালিংকের গ্রাহক এখন ২ কোটি ৫৭ লাখ ৪৩ হাজার। জুলাই মাসেও তাদের গ্রাহক ছিল ২ কোটি ৫৬ লাখ ২২ হাজার। রবি এই সময়ে দুই কোটি গ্রাহকের ল্যান্ডমার্ক অতিক্রম করেছে। আগস্টের শেষে তাদের গ্রাহক দাঁড়িয়েছে ২ কোট ১ লাখ ৪৪ হাজার। এই মাসে তারাই সবচেয়ে বেশী (৪ লাখ ৮৮ হাজার) গ্রাহক পেয়েছে। আগের মাসে তাদের গ্রাহক ছিল ১ কোটি ৯৬ লাখ ৫২ হাজার। একই সময়ে এয়ারটেলের গ্রাহক সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৬৭ লাখ ৮৪ হাজার।

অন্যদিকে ছোট দুই অপারেটরের গ্রাহক আগস্ট মাসে কমেছে। সিটিসেল জুলাইয়ে ছিল ১৬ লাখ ৮৫ হাজার গ্রাহকে। আর আগস্টে এসে দাঁড়িয়েছে ১৬ লাখ ৮৩ হাজারে। অন্যদিকে রাষ্ট্রায়াত্ত্ব অপারেটর টেলিটক ১৩ লাখ ৯১ হাজার গ্রাহক থেকে আগস্ট মাসে এসে দাঁড়িয়েছে ১৩ লাখ ৬৭ হাজারে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, মোট কার্যকর সিমের হিসেব দিয়ে অবশ্য কখনোই মোট গ্রাহক প্রকাশ করা যায় না। কারণ মাল্টিপল সিমের কারণেই প্রকৃত গ্রাহক সংখ্যা কার্যকর সিমের চেয়ে অনেক কম হবে।

সম্প্রতি প্রাকাশিত এরিকসনের এক হিসেবে দেখা গেছে, দেশের ৮১ শতাংশ গ্রাহক কেবল একটি সিম ব্যবহার করেন। অন্যদিকে ১৫ শতাংশ গ্রাহক দুইটি এবং আরো চার শতাংশ গ্রাহক আছেন যারা তিন বা তার চেয়ে বেশী সিম ব্যবহার করেন। গত মে মাসে এই হিসেব প্রকাশ করে এরিকসন।


নতুন ফোন হাতে পাওয়ার আন্দই আলাদা। কিন্তু নতুন ফোনে রয়েছে অনেক বৈচিত্রতা, কোন ব্রান্ডটি আপনার জন্য সেরা এবং একটি নুতন ফোন হাতে পাওয়ার পর কিভাবে সেটিকে সঠিক ভাবে ব্যবহার করবেন তা নিয়ে নানান প্রশ্ন। আজ আমি যারা Android পৃথিবীতে নতুন এসেছেন তাদের জন্য 20টি টিপস শেয়ার করবো যেগুলো একজন Android ইউজারের অবশ্যই জানা উচিত।

1. Android কি?
– Android হলো একটি operating system, যেমন কম্পিউটারের জন্য Windows এবং iPhones and iPads এর জন্য iOS.

2. Android এর নির্মাতা কে?
– Google হলো Android এর নির্মাতা,  Samsung, HTC এবং Motorola -র মতো বড় বড় মোবাইল ফোন নির্মাতা কোম্পানি তাদের ফোনে অপারেটিং সিস্টেম হিসাবে  Android ব্যবহার করছে। পাশাপাশি বিভিন্ন কোম্পানি Android বেইজড tablet বের করছে যা খুব জনপ্রিয় হয়েছে। এপর্যন্ত কিছু Android camera ও রিলিজ হয়েছে।

3. কেন Android আজ সবার মুখে মুখে?
– সবসময়ই Android এর নতুন version গুলোতে চমৎকার আর অভাভনীয় সব ফিচার নিয়ে আসে। বিগত মাত্র কয়েক বছরে গুগল Android এর Eclair, Froyo, Gingerbread, Honeycomb, Ice Cream Sandwich ইত্যাদি ভার্সন রিলিজ করেছে। এর এক একটি ভার্সন ছিল প্রযুক্তির অ্গ্রগতির নতুন একটি ধাপ। অতি সম্প্রতি গুগল Android এর নতুন সংস্করণ Jelly Bean রিলিজ করেছে।

4. Android কি কোন সফট্ওয়্যার আছে?
– হ্যাঁ Google Play নামে Android এর বিশাল সফট্ওয়্যার মার্কেট আছে যেখানে থেকে আপনি বই, গান, মুভি, সফট্ওয়্যার ডাউনলোড করতে পারবেন। সেখানে বিশ্বখ্যাত Amazon এর ও রয়েছে নিজস্ব app.

5. আমি কি Android এ Twitter and Facebook ব্যবহার করতে পারবো?
– অবশ্যই পারবেন। আজকাল যেসকল ফোন বের হচ্ছে তার সবই ইন্টারনেট ব্যবহার উপযোগী। Android অপারেটিং সিস্টেম রয়েছে এমন যেকোন হ্যান্ডসেটেই আপনি Facebook and Twitter ব্যবহার করতে পারবেন।

6. আমি কি করে আমার Android এ সফট্ওয়্যার ডাউনলোড করতে পারব?
– দুটি উপায়ে আপনি আপনার Android এ সফট্ওয়্যার ডাউনলোড করতে পারবেন। প্রথমত Google Play এর মাধ্যমে, আপনি যখন প্রথমবার Android টি ওপেন করবেন তখনই Google Play স্ক্রিনে আসবে। সেখান থেকে পছন্দমতো app ডাউনলোড করতে পারবেন। এতে আপনার কোন কম্পিউটার প্রয়োজন হবে না। দ্বিতীয়ত কম্পিউটার ব্যবহার করে Google Play website এর মাধ্যমে, এক্ষেত্রে আপনার গুগল একাউন্টের মাধ্যমে log in করতে হবে।

 

7. আমার কোন ডাটা ক্যাবল নেই তাহলে কিভাবে কম্পিউটারের সাথে connect করব?
– Android Device গুলো cellular data অথবা Wi-Fi এর মাধ্যমে সরাসরি Google Play সার্ভার এর সাথে যুক্ত হতে পারে তাই ক্যাবল নিয়ে চিন্তা করার কিছুই নেই।

8. কিভাবে আমি আমার Android Device এ ছবি ও ভিডিও স্টোর করতে পারবো?
– বেশ কয়েকটি সহজ ধাপে আপনি আপনার Android Device এ ছবি ও ভিডিও স্টোর করতে পারবেন। প্রথমত Dropbox account এবং Dropbox app ব্যবহার করে। সবকিছু Dropbox এ আপনার কম্পিউটার থেকে আপলোড করুন আর Android Device এ Dropbox এ log in করে এর সব ফাইল এক্সেস করুন। তার চেয়ে সহজ হলো ক্যাবল এর মাধ্যমে আপনার Android Device টি কম্পিউটারের সাথে কানেক্ট করুন এবং USB ‍Stoarage device হিসেবে অপশন সিলেক্ট করুন। তারপর drag and drop করে আপনার Android Device এ ছবি ও ভিডিও স্টোর করতে পারবেন।

9. iTunes এ আমার অনেক গান আছে আমি কি Android ব্যবহার করে সেগুলো শুনতে পারবো?
– হ্যাঁ doubleTwist  নামে একটি software আছে যা হুবহু iTunes এর মতো কাজ করে। সফট্ওয়্যারটি ডাউনলোড করে নিন। তারপর আপনার iTunes গানগুলো আপনার Android এ ট্রান্সফার করে নিন।

10. আমি কি আমার Android Angry Birds  গেমটি খেলতে পারবো।
– হ্যাঁ এটি Android এর টপ ফ্রি গেম গুলোর মধ্যে একটি । Google Play থেকে Angry Birds Download করতে পারবেন।

11. Samsung এবং HTC Android phone মধ্যে পার্থক্য কি?
Google Android software টি নির্মাণ করেছে, Samsung আর HTC hardware নির্মাতা কোম্পানীগুলো সেই software টি তাদের ডিভাইসে install দিচ্ছে মাত্র। Hardware নির্মাতা কোম্পানীগুলো competition টিকে থাকার জন্য তাদের Android ডিভাইসগুলোতে পৃথক পৃথক skin, ফিচার ও ডিজাইনের বৈচিত্রতা আনছে।

12. আমি যদি গুগল Android এর Pure experience পেতে চাই তাহলে আমাকে কি করতে হবে?
– আপনি যদি গুগল Android এর pure experience পেতে চান তবে আপনাকে “Nexus”  ডিভাইসটি কিনতে হবে, যেমন Nexus 7 tablet অথবা Galaxy Nexus phone. এই ডিভাইসগুলোতে কোন থার্ড-পার্টির সফটওয়্যার বা হার্ডওয়্যার ব্যবহার করা হয় না।

13. Home screens এবং App drawer এর মধ্যে পার্থক্য কি?
– আপনার Android এ installed সকল app গুলোকে app drawer এ খুঁজে পাবেন। Apple এর ডিভাইস গুলোতে সফট্ওয়্যারগুলো home screen এ থাকে কিন্তু Android device গুলোতে রয়েছে প্রায় 7টি home screen যেখানে আপনি আপনার পছন্দের app গুলোকে রাখতে পারবেন quick access এর জন্য। আর বাকিগুলো app drawer এ স্টোর করে রাখতে পারবেন।

14. Widgets কি?
– Widgets হলো Android এর অন্যতম একটি জনপ্রিয় feature. এগুলো home screen এ বিভিন্ন information দেখার জন্য ব্যবহৃত হয়ে থাকে। যেমন ফেসবুক, টুইটার এর স্ট্যাটাস পরিবর্তত ও বর্তমান অবস্থা দেখার জন্য । এই Widget গুলো ব্যাটারি সাশ্রয়ী কারন এগুলো ব্যবহার করার জন্য আপনাকে প্রতিবার সম্পূর্ন app টি খুলতে হয় না।

15. Android ব্যবহারের জন্য আমার কি কোন Google account এর প্রয়োজন আছে?
– হ্যাঁ, পূর্বেই বলেছি আপনাকে গুগল একাউন্টের মাধ্যমে Google Play তে লগইন করে আপনার পছন্দের app ডাউনলোড করতে হবে। আপনার পূর্বের যেকোন গুগল একাউন্ট যেমন জিমেইল একাউন্ট দিয়েও Android ব্যবহার করতে পারবেন।

16. Contacts ট্রান্সফারের সহজতম উপায় কি?
– আপনি সহজেই গুগলে আপনার contacts গুলো সেভ করতে পারবেন। তারপর আপনি যখন Android থেকে আপনার গুগল একাউন্টে লগইন করবে তখন সকল contacts automatically syn হয়ে যাবে। তাছাড়া আপনি SIM card এর মাধ্যমেও contacts কপি করতে পারেন।


দ্বিতীয় প্রজন্মের লাইসেন্স নবায়নের দ্বিতীয় কিস্তির টাকা দিলেই রিম থেকে সিমে যাবার অনুমতি পাবে সিটিসেল। গতকাল বুধবার বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন এক বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সিটিসেলের আবেদনের প্রেক্ষিতেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানিয়েছে বিটিআরসি।

দেশের একমাত্র কোড ডিভিশন মাল্টিপল অ্যাকসেস বা সিডিএমএ প্রযুক্তি ব্যবহারকারী এই অপারেটর অন্য অপারেটরদের মতো গ্লোবাল সিস্টেম ফর মোবাইল প্রযুক্তি (জিএসএম) ব্যবহারে অনুমতি চেয়েছিল বিটিআরসির কাছে।

বিটিআরসির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) জিয়া আহমেদ বলেন, বুধবারের কমিশন বৈঠকে সিটিসেলের আবেদন নিয়ে আলোচনা হয়েছে। তারা টু-জি লাইসেন্স নবায়নের দ্বিতীয় কিস্তির টাকা পরিশোধ করলে তাদের আবেদন ইতিবাচকভাবে দেখার সিদ্ধান্ত হয়েছে। তবে টাকা দেয়ার পরই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে। ইতিমধ্যে সিটিসেলসহ চার মোবাইল ফোন অপারেটরের টু-জি লাইসেন্স নবায়ন হয়েছে।

অনুমতি পেলে রিম সংযুক্ত বিশেষ ধরনের হ্যান্ডসেট ব্যবহারের প্রয়োজনীয়তা আর থাকবে না এবং যে কোন হ্যান্ডসেটে ব্যবহার করা যাবে সিটিসেলের সিম।


বেজিংয়ে কাজে গিয়ে ট্যাক্সিতে সাধের আইফোনটি ফেলে এসেছিলেন বিজ্ঞাপন সংস্থায় কর্মরতা আই ডানহং। কিন্তু মোবাইলে যে তাঁর ৯ মাসের মেয়ের প্রচুর ছবি আর ভিডিও রয়েছে! সেগুলোও তবে গেল? মোবাইলের থেকেও ছবি-ভিডিও হারানোর দুঃখেই ভেঙে পড়েছিলেন চিনের ওই মহিলা। কিন্তু কয়েক ঘণ্টা পরে বাড়ি ফিরে ইন্টারনেটে বসেই তিনি হতবাক! যে ট্যাক্সির চালক মোবাইলটি পেয়ে তা ব্যবহারের চেষ্টা করেছেন, মোবাইলই তাঁর ছবি তুলে পাঠিয়ে দিয়েছে ওই মহিলার ই-মেল অ্যাকাউন্টে! সৌজন্যে বিশেষ ‘অ্যান্টি থেফ্ট অ্যাপ্লিকেশন’।

সামনে ক্যামেরা থাকা আধুনিক ‘অ্যানড্রয়েড’ মোবাইল ফোনে ব্যবহারযোগ্য ওই বিশেষ প্রযুক্তি সঙ্গে সঙ্গে সেই ব্যক্তির ছবি তুলে নেবে যে ভুল ‘পাসওয়ার্ড’ দিয়ে মোবাইলটি খোলার চেষ্টা করছে।
শুধু তাই-ই নয়, জিপিএস প্রযুক্তির সাহায্যে মোবাইলের অবস্থান জানিয়ে ছবিটি সঙ্গে সঙ্গে পৌঁছে যাবে মোবাইলের প্রকৃত মালিকের ই-মেল অ্যাকাউন্টে। এ ক্ষেত্রে যেমন ডানহং ওই ছবিটি পেয়েই একটি সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে তা ‘পোস্ট’ করেছেন এবং পুলিশকে জানিয়েছেন। তাঁর আবেদন, যে ব্যক্তি মোবাইলটি পেয়েছেন তিনি সেটা রেখেও দিতে পারেন। কিন্তু তাঁর মেয়ের ছবি আর ভিডিওগুলো ফেরত দেওয়া হোক। তবে ‘অ্যাপ্লিকেশন’টির উদ্ভাবকদের আর্জি, এই প্রযুক্তিতে যাঁর ছবি উঠবে, তাকে প্রথমেই যেন সন্দেহ করা না হয়। কারণ কেউ মোবাইল পেয়ে সেটা ফেরত দেওয়ার চেষ্টা করতে গিয়েও ভুল পাসওয়ার্ড লিখে ফেলতে পারেন।